Insaaf Sabha: আনিস হত্যার বিচার চেয়ে রাজপথে বাম ছাত্র-যুবরা, ধর্মতলা চত্বরে তারুণ্যের জোয়ার

মঙ্গলবার সকাল ১১টা পর্যন্ত ধর্মতলা চত্বরে সভা করার অনুমতি দেয়নি পুলিশ। এ প্রসঙ্গে ডিওয়াইএফআই নেত্রী মীনাক্ষী মুখার্জি বলেন, আইনত এই বিষয়ে পুলিশের অনুমতি দেওয়ার কোনও এক্তিয়ারই নেই।
মিছিল তখন হাওড়া ব্রিজে
মিছিল তখন হাওড়া ব্রিজেছবি - নিজস্ব

ছাত্রনেতা আনিস খান সহ সকল শহীদদের ইনসাফ, দুর্নীতিগ্রস্তদের শাস্তি, দুর্নীতিমুক্ত নিয়োগ এবং সবার জন্য শিক্ষা ও কাজের দাবিতে ২০ সেপ্টেম্বর, মঙ্গলবার বেলা বারোটায় ধর্মতলায় 'ইনসাফ সভা'র ডাক দিয়েছে বামপন্থী ছাত্র-যুব সংগঠন এসএফআই ও ডিওয়াইএফআই। এক ঐতিহাসিক সমাবেশের সাক্ষী থাকতে চলেছে শহর কলকাতা। ঠিক যেন তারই ইঙ্গিত দিলেন ডিওয়াইএফআই রাজ্য সম্পাদক মীনাক্ষী মুখার্জি।

রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে হাজার হাজার ছাত্র-যুব সহ সাধারণ মানুষ যোগ দিতে চলেছেন এই সমাবেশে। সূত্রের খবর, মঙ্গলবার ইনসাফ সভায় যোগদানের জন্য তিন জায়গায় জমায়েত হবে। শিয়ালদহ, হাওড়া এবং পার্কস্ট্রীটে সমবেত হয়ে সেখান থেকে মিছিল করে সমাবেশের উদ্দেশ্যে রওনা দেবেন বাম ছাত্র-যুবরা।

তবে জানা গেছে, মঙ্গলবার সকাল ১১টা পর্যন্ত ধর্মতলা চত্বরে সভা করার অনুমতি দেয়নি পুলিশ। এ প্রসঙ্গে ডিওয়াইএফআই নেত্রী মীনাক্ষী মুখার্জি বলেন, আইনত এই বিষয়ে পুলিশের অনুমতি দেওয়ার কোনও এক্তিয়ারই নেই। সেটা তাঁরা নিজেরাই বলেছেন। সুতরাং, যে বিষয়ে এক্তিয়ার নেই, সেখানে বেশি কথা না বলাই ভাল।

তাঁর আরও সংযোজন - "...... বিভিন্ন জায়গা থেকে কমরেডরা, বামপন্থী মানুষজন, সাধারণ মানুষ, আক্রান্তরা আসছেন। বঞ্চিত, হতাশাগ্রস্ত মানুষরাও সবাই আসবেন। মানুষ এলে তাঁরাই নিজেরাই নিজেদের জায়গা করে নেবেন।"

মঙ্গলবার সকাল থেকেই ধর্মতলা চত্বর ঘিরে ফেলা হয়েছে কড়া পুলিশি পাহাড়ায়। রাখা হয়েছে বেশ কিছু প্রিজন ভ্যানও। বাম ছাত্র-যুবদের সাথে পুলিশের অশান্তির আশঙ্কা প্রসঙ্গে ডিওয়াইএফআই নেত্রীর বক্তব্য, সাধারণ মানুষের জন্য গোটা সিস্টেমের থেকে আমরা ইনসাফ চাইছি। রাজ্যের শিক্ষা ব্যবস্থা, শিল্প সবকিছুরই খারাপ পরিণতি হয়েছে। যে কারণে চাকরি না পেয়ে ছাত্র-যুবরা ধরনা দিচ্ছে। বিচার চাইতে গেলে খুন হচ্ছে আনিস, সুদীপ্ত, মইদুল, বিদ্যুৎরা। আমরা এর একটা বিহিত চাই।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, আজকের ইনসাফ সভায় যোগ দেবে সিঙ্গুরের ছাত্র-যুবরাও। কিছুদিন আগেই সিঙ্গুরের মোহমায়া হাইস্কুলের ছাত্ররা স্কুলের বারান্দা থেকে চিৎকার করে বলেছিল - "শিল্প চাই, কাজ চাই"। ২০ তারিখের সমাবেশে যোগদানের প্রসঙ্গে সিঙ্গুরের এক যুবক জানান, কলেজ পাশের পর ঘরে বসে রয়েছি, কোনও কাজ পাইনি। টাটা এখানে কারখানা করলে একটা চাকরি পেতাম, সেটাও হয়নি। আমরা শিল্প চাই, তাই ২০ তারিখ ধর্মতলায় যাব।

মিছিল তখন হাওড়া ব্রিজে
মাত্র ২৪ ঘণ্টা বাকি! মেলেনি পুলিশি অনুমতি - 'ইনসাফ সভা' ওখানেই হবে - দাবি বাম ছাত্র-যুবদের

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in