শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় CBI-র হাতে গ্রেফতার SSC-র প্রাক্তন চেয়ারম্যান সুবীরেশ ভট্টাচার্য

দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদের পর বাঁশদ্রোণীর ফ্ল্যাট থেকে তাঁকে গ্রেফতার করল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকরা। জেরায় একাধিক অসংগতি মিলেছে সুবীরেশের বয়ানে।
সুবীরেশ ভট্টাচার্য
সুবীরেশ ভট্টাচার্যগ্রাফিক্স - সুমিত্রা নন্দন

স্কুল শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় সিবিআই-র হাতে গ্রেফতার এসএসসি-র প্রাক্তন চেয়ারম্যান তথা উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় ও হিল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সুবীরেশ ভট্টাচার্য। দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদের পর বাঁশদ্রোণীর ফ্ল্যাট থেকে তাঁকে গ্রেফতার করল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকরা। তদন্তে সম্পূর্ণ অসহযোগিতার কারণেই তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে দাবি সিবিআই-র।

পার্থ চট্টোপাধ্যায়, এস পি সিনহা, অশোক সাহা, কল্যাণময় গাঙ্গুলীর পর এই প্রথম কোনও উপাচার্যকে গ্রেফতার করা হল শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি মামলায়। সূত্রের খবর, সোমবার বেলা ১১ টা নাগাদ তাঁকে নিজাম প্যালেসে হাজিরা দিতে বলা হয়। জেরায় একাধিক অসংগতি মিলেছে সুবীরেশের বয়ানে। পাশাপাশি, তাঁর বাঁশদ্রোণীর বাড়ি এবং উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে দফায় দফায় তল্লাশি চালানো হয়।

সিবিআই সূত্রের খবর, যে ৫টি এফআইআর দায়ের করেছিলেন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দারা তাঁর মধ্যে সুবীরেশের নাম ছিল। এফআইআর-র উপর ভিত্তি করে তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সোমবার সন্ধ্যায় তাঁকে নিজাম প্যালেসে নিয়ে যাওয়া হতে পারে। সেখানেই রয়েছেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়, এস পি সিনহা, অশোক সাহা, কল্যাণময় গাঙ্গুলী। পরবর্তীতে সুবীরেশ ভট্টাচার্য সহ বাকিদের একত্রে মুখোমুখি বসিয়ে জেরা করা হতে পারে।

সূত্র মারফত আরও জানা গেছে, মঙ্গলবার আদালতে তোলা হতে পারে সুবীরেশকে। সেখানেই তাঁকে হেফাজতে নেওয়ার আবেদন জানাবে সিবিআই।

নিয়োগ দুর্নীতির তদন্তে এস পি সিনহা এবং অশোক সাহার বয়ানের ভিত্তিতে এর আগেও একাধিকবার সুবীরেশকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছিলেন গোয়েন্দা আধিকারিকরা। গত ২৫ আগস্ট তাঁর বাঁশদ্রোণীর ফ্ল্যাটে তল্লাশি অভিযান চালানোর পর ফ্ল্যাটটি সিল করা হয়েছিল। তল্লাশি চালানো হয়েছিল উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় এবং সুবীরেশের বাসভবনেও। তবে প্রাক্তন চেয়ারম্যানের দাবি, তাঁর আমলে শিক্ষক নিয়োগে কোনও দুর্নীতি হয়নি। পদ্ধতিগত কিছু ত্রুটি থাকলেও থাকতে পারে।

এই প্রসঙ্গে বিশিষ্ট আইনজীবী তথা সিপিআই(এম) সাংসদ বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য বলেন, এরা সকলেই যে দুর্নীতি করেছেন তা প্রমাণিত, এটা এখন আর তদন্ত সাপেক্ষ নয়। এদের ওপরওয়ালা একজন, তিনি হলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তদন্তের স্বার্থে মুখ্যমন্ত্রীকে গ্রেফতার করা দরকার। নাহলে তদন্তের সঠিক পরিণতি হবে না।

সুবীরেশ ভট্টাচার্য
মাত্র ২৪ ঘণ্টা বাকি! মেলেনি পুলিশি অনুমতি - 'ইনসাফ সভা' ওখানেই হবে - দাবি বাম ছাত্র-যুবদের

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in