এবার প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতি মামলাতেও সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট

এবার প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতি মামলাতেও সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট
কলকাতা হাইকোর্টফাইল ছবি সংগৃহীত

এবার প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতি মামলাতেও সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট। বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের বেঞ্চ এই নির্দেশ দিয়েছেন, যিনি এর আগে SSC দুর্নীতির একাধিক মামলায় সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছিলেন।

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের জন্য হওয়া টেট পরীক্ষায় ফেল করেও চাকরি পেয়েছেন অনেকে। এই অভিযোগে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা দায়ের করা হয়। সেই মামলায় চন্দন মণ্ডল নামের মূল অভিযুক্তকে হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য সিবিআইকে নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি গাঙ্গুলি। এই চন্দন মণ্ডলের নামে অভিযোগ, লক্ষ লক্ষ টাকা নিয়ে বেআইনি ভাবে বহু জনকে প্রাথমিক শিক্ষকের চাকরি পাইয়ে দিয়েছেন তিনি।

কিছুদিন আগে রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী তথা সিবিআই-এর প্রাক্তন অতিরিক্ত ডিরেক্টর উপেন্দ্রনাথ বিশ্বাস নিজের সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও আপলোড করেছিলেন, যেখানে এই চন্দন মণ্ডলের বিরুদ্ধে টাকার বিনিময়ে চাকরি পাইয়ে দেওয়ার অভিযোগ করেছেন তিনি। তাঁর এই ভিডিওর ভিত্তিতে হাইকোর্টে মামলা দায়ের হয়। আদালত উপেন্দ্রনাথ বিশ্বাসকে মামলার পক্ষ করার নির্দেশ দিয়েছে। তাঁকে তদন্তে সহযোগিতা করারও নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি।

আগামী ১৫ জুন মুখবন্ধ খামে সিবিআইকে রিপোর্ট জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

টেট দুর্নীতি নিয়ে সোমবার ও মঙ্গলবার পরপর দুটি মামলা দায়ের হয়েছে কলকাতা হাইকোর্টে। একটি মামলায় সুব্রত মন্ডল নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে যে টেট পরীক্ষায় ফেল করেও চাকরি করছেন তিনি। অন্য মামলাটিতে এরকম ৮৭ জনের নাম জমা দেওয়া হয়েছে, যাঁরা টেট না দিয়েই শিক্ষকতা করছেন। দ্বিতীয় মামলার শুনানিতে এই নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়।

অন্যদিকে বুধবার প্রাথমিক শিক্ষকে স্বচ্ছ নিয়োগের দাবিতে রাজ্যের প্রশাসনিক ভবন নবান্নের সামনে বিক্ষোভ দেখান টেট উত্তীর্ণ চাকরি প্রার্থীরা। তাঁদের অভিযোগ, ২০১৪ সালে টেট পরীক্ষাতে পাশ করেও এখনও চাকরি মেলেনি তাঁদের। অথচ ফেল করেও বহু লোক চাকরি পেয়েছেন।

এদিন মিছিলে বিক্ষোভকারীরা হাতে রুটি এনেছিলেন। রুটি দেখিয়ে তাঁরা বলেন, সরকার যেনো তাদের রুটিটুকু জোগানোর ব্যবস্থা করে দেয়। তাঁরা স্পষ্ট জানান, 'আমরা ৫০০ টাকা ভাতা চাই না। আমরা আমাদের ন্যায্য চাকরি চাই। আমরা সকলেই টেট পাশ করেছি। কিন্তু আমাদের বঞ্চিত করে হচ্ছে।' পুলিশ মিছিল আটকাতে গেলে রাস্তাতেই বসে পড়েন আন্দোলনকারীরা। এরপর পুলিশের সাথে ধস্তাধস্তি হয় আন্দোলনকারীদের। অনেককে টেনেহিঁচড়ে প্রিজন ভ্যানে তোলে পুলিশ। আন্দোলনকারীদের অভিযোগ, তাদের বলপূর্বক টানাহেঁচড়া করে প্রিজনভ্যানে তোলা হয়েছে। মহিলাদের জামা কাপড় ছিঁড়ে দেওয়া হয়েছে। ধস্তাধস্তিতে এক আন্দোলনকারী আহত হন। তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। হাসপাতালে থাকাকালীন তিনি বলেন, "আমরা আজ বঞ্চিত। পথে নেমেছি। আমরা কি এইজন্য শিক্ষিত হয়েছি? বঞ্চিত হয়ে পথে নামার জন্য?"

পাশাপশি, মির্জা গালিব স্ট্রিটে খাদ্য ভবনের সামনেও এদিন বিক্ষোভ দেখান বহু চাকরিপ্রার্থী। তাঁদের অভিযোগ, খাদ্য দপ্তরে সাব-ইন্সপেক্টর পরীক্ষায় পাস করে প্যানেলে নাম প্রকাশিত হয় ৯৫৭ জনের। কিন্তু তাঁদের মধ্যে ১০০ জনকে চাকরি দিলেও বাকিদের বিষয়ে কোনো কিছু জানানো হচ্ছে না। এই নিয়ে আদালতে মামলাও হয়েছে বলে জানা গেছে।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in