কৃষি সংকট মোকাবিলায় আপনি ব্যর্থ, বাধ্য হচ্ছি আত্মহত্যায় - মোদীকে চিঠি লিখে আত্মঘাতী কৃষক

আত্মঘাতী কৃষকের নাম দশরথ লক্ষ্মণ কেদারী বলে জানা গেছে। নিজের সুইসাইড নোটে কৃষকদের বর্তমান দুর্দশার কথা উল্লেখ করেছেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীগ্রাফিক্স - সুমিত্রা নন্দন

প্রধানমন্ত্রীকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়ে আত্মহত্যা করলেন হতাশাগ্রস্ত এক কৃষক। শনিবার মহারাষ্ট্রের পুনে শহরে এই ঘটনাটি ঘটেছে। আত্মঘাতী কৃষকের নাম দশরথ লক্ষ্মণ কেদারী বলে জানা গেছে। নিজের সুইসাইড নোটে কৃষকদের বর্তমান দুর্দশার কথা উল্লেখ করেছেন তিনি।

আত্মহত্যার কথা নিশ্চিত করেছে কৃষকের পরিবার। নিহতের শ্যালক অরবিন্দ ওয়াঘমারে জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর জন্মদিনের দিন (১৭ জানুয়ারি) পুকুরে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন দশরথ কেদারী। সংবাদসংস্থা আইএএনএস-কে ওয়াঘমারে জানিয়েছেন, "বাঁকারফাটা গ্রামে গত ৮ বছর ধরে কৃষকের কাজ করছিলেন দশরথ কেদারী। ওইদিন (১৭ জানুয়ারি) তাঁকে খুব বিষণ্ণ দেখাচ্ছিল। তা সত্ত্বেও প্রধানমন্ত্রীর দীর্ঘায়ু কামনা করে তাঁকে শুভেচ্ছা জানান তিনি। এরপরই কোনও এক সময়ে পাশের একটি পুকুরে গিয়ে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি। একটি সুইসাইড নোট উদ্ধার হয়েছে।"

সুইসাইড নোটে 'শুভ জন্মদিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী' জানিয়ে ফসলের ন্যূনতম সহায়ক মূল্য না পাওয়ার অভিযোগ করেছেন দশরথ কেদারী। চিঠিতে তিনি অভিযোগ করেছেন, প্রধানমন্ত্রী কেবল নিজেকে নিয়ে উদ্বিগ্ন। কৃষকদের কথা ভাবছেন না। কেন্দ্রের পাশাপাশি মহারাষ্ট্র সরকারের বিরুদ্ধেও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তিনি।

নিজের সুইসাইড নোটে কেদারী লিখেছেন, "আমাদের কাছে টাকা নেই। মহাজনরা অপেক্ষা করতে প্রস্তুত না। আমাদের এখন কী করা উচিত? বাজারে পেয়াঁজ নিয়ে যাওয়ার সামর্থ্যও নেই আমাদের। মোদী সাহেব, আপনি শুধু নিজের কথাই ভাবেন। আপনাকে অবশ্যই ফসলের ন্যূনতম সহায়ক মূল্য দিয়ে হবে। আমরা আপনার কাছে ভিক্ষা চাইছি না। কৃষিক্ষেত্রের সমস্যা নিয়ন্ত্রণ করতে পারছেন না আপনি। কৃষকরা কী করবে এখন? ব্যাংক এবং সমবায় সমিতি থেকে বারবার হুমকি দেওয়া হচ্ছে, আধিকারিকরা গালিগালাজ করছেন। আমরা বিচারের জন্য কার কাছে যাবো?"

তিনি আরও লেখেন, "আপনার নিষ্ক্রিয়তার কারণে আমি আজ আত্মহত্যা করতে বাধ্য হচ্ছি। অনুগ্রহ করে আমাদের ফসলের দাম দিন, আমরা ভিক্ষা চাইছি না, এটা আমাদের ন্যায্য অধিকার।"

আলেফাটা থানায় একটি দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যুর মামলা দায়ের করা হয়েছে। মৃত্যুর সঠিক কারণ নিশ্চিত করার জন্য তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। কেদারির পরিবারে তাঁর মা, স্ত্রী এবং দুই কলেজ পড়ুয়া সন্তান রয়েছে।

কৃষি সংকট মোকাবিলায় ব্যর্থ সরকার এই অভিযোগ তুলে কেন্দ্র সরকারের তীব্র সমালোচনা করেছে শিবসেনা। সেনা মুখপাত্র মনীষা কায়ান্দে বলেন, "একজন কৃষক প্রধানমন্ত্রীকে জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন, তারপর তিনি চিতায় যাচ্ছেন আর প্রধানমন্ত্রী দেশে চিতা আনতে ব্যস্ত। এটাই দেশের দুঃখজনক অবস্থা।"

আগামী সপ্তাহে পুনে আসছেন কেন্দ্রীয় অর্থ মন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। আত্মঘাতী কৃষকের পরিবারের সাথে সীতারামনকে দেখা করার দাবি তুলেছে শিবসেনা।

- With inputs from IANS

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in