৩৭০ ধারা বিলোপের দু'বছর বর্ষপূর্তি, কিন্তু লাভ কী হল! প্রশ্ন তুলছেন স্থানীয়রা
ছবি- প্রতীকী

৩৭০ ধারা বিলোপের দু'বছর বর্ষপূর্তি, কিন্তু লাভ কী হল! প্রশ্ন তুলছেন স্থানীয়রা

৩৭০ ধারা বিলোপের সময় সরকার যে বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থানের কথা বলেছিল, তারপর কি হল? বিনিয়োগ কোথায়? কর্মসংস্থান কোথায়?

দু'বছর আগে ৫ আগস্ট জম্মু-কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বিলোপ হয়। সেজন্য বৃহস্পতিবার কোনও ধর্মঘট ডাকা হয়নি। তবুও শ্রীনগরে বেশিরভাগ দোকানপাট বন্ধ ছিল। সীমিত যানবাহন চলাচল করেছে। অনন্তনাগ, বাদগাম, গান্ডেরবাল, কুপওয়াড়াতেও এদিন অধিকাংশ দোকান বাজার বন্ধ ছিল। যেগুলো খোলা ছিল, সেই দোকানদারদের বক্তব্য, পুলিশ জোর করে খুলিয়ে রেখেছে।

জম্মু কাশ্মীরের বিশেষ অধিকার কেড়ে নেওয়া, রাজ্যটাকে দু'টুকরো করে দেওয়া, নাগরিক অধিকার কেড়ে নেওয়া, দমন-পীড়ন, চাপিয়ে দেওয়ার রাজনীতি যে জম্মু-কাশ্মীরে মানুষ ভালোভাবে নিতে পারেননি, তার রাজ্যভাগের দ্বিতীয় বর্ষপূর্তিতে সুস্পষ্ট। একইসঙ্গে জম্মু-কাশ্মীর মানুষের ন্যায়সঙ্গত অধিকার প্রতিষ্ঠায় আন্দোলন চলবে। জনসাধারণের এই মনোভাবই স্পষ্ট করলেন সিপিআই নেতা এবং গুপকার জোটের মুখপাত্র মহম্মদ ইউসুফ তারিগামি।

বৃহস্পতিবার গুপকার জোটের বৈঠক ছিল জোটের চেয়ারম্যান ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ফারুক আব্দুল্লাহ বাড়িতে। সেই বৈঠকের পর জোটের মুখপাত্র জানান, লড়াই চলবে। তারিগামি বলেন, জম্মু কাশ্মীরের পরিস্থিতি উদ্বেগজনক। তা নিয়ে এদিনের বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। ৩৭০ ধারা বাতিল করার সময় নানা রকম দাবি করা হলেও সরকারের পক্ষ থেকে কোনও দাবিই পূরণ হয়নি। সরকারের দাবি ছিল, স্বাভাবিক অবস্থা ফিরিয়ে আনা হবে, হিংসার অবসান ঘটবে। কিন্তু একইসঙ্গে মন্ত্রী বলেছেন, যখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে তখনই রাজ্যের মর্যাদা যথাসময়ে ফিরিয়ে দেওয়া হবে।

তারিগামীর প্রশ্ন, ৩৭০ ধারা বিলোপের সময় সরকার যে বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থানের কথা বলেছিল, তারপর কি হল? বিনিয়োগ কোথায়? ব্যবসায়ীদের জিজ্ঞাসা করুন দু'বছরে তাঁদের কোনও পরিবর্তন হয়েছে কিনা। জম্মু-কাশ্মীর, এমনকী লাদাখে কোন উন্নয়নমূলক কাজ হয়েছে! এমনকী আগের সরকারের শুরু করার কাজও শেষ করতে পারেনি। প্রতিশ্রুতি মতো কিছুই বদলায়নি। বরং এমন কিছু ঘটছে যাতে সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতা খর্ব হচ্ছে। মানুষের বাক স্বাধীনতা খর্ব হয়েছে।

পিডিপি নেত্রী মেহেবুবা মুফতি টুইট করে বলেন, ব্যাপক অবিচার ও লাগামছাড়া নির্যাতনের মুখোমুখি হয়ে প্রতিবাদ করা ছাড়া অন্য কোন উপায় থাকে না। হুরিয়ত কনফারেন্স বিবৃতিতে জানিয়েছে, বর্তমান ভারত সরকারের সিদ্ধান্ত জম্মু-কাশ্মীরের সমস্যাকে আরও জটিল করে তুলেছে। ৩৭০ ধারা ও ৩৫ এ ধারা বাতিলের সিদ্ধান্তকে একতরফা বলে ঘোষণা করেছে হুরিয়ত।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in