Tripura: প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির হস্তক্ষেপ চেয়েও জবাব মেলেনি, অভিযোগ CPIM-র

সিপিআইএমের অভিযোগ, ২০১৮ সালের মার্চ থেকে ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত প্রায় তিন হাজার সদস্য ও সমর্থকদের বাড়িতে আগুন লাগানো হয়েছে। ভাঙচুর হয়েছে। ছ’শোরও বেশি দলীয় কার্যালয়ে হামলা চালানো হয়েছে।
Tripura: প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির হস্তক্ষেপ চেয়েও জবাব মেলেনি, অভিযোগ CPIM-র
সীতারাম ইয়েচুরি ও মানিক সরকার ছবি - The Wire

ত্রিপুরার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকারের কনভয়ে হামলা, সিপিআইএম কর্মী-সমর্থকদের উপর অত্যাচার, কার্যালয়ে ভাঙচুরের ঘটনায় রাষ্ট্রপতির দ্বারস্থ হতে চায় দল। কিন্তু তার জন্য সিপিআইএমকে সময় দেওয়া হচ্ছে না। শুধু তাই নয়, ‘হামলা’র ঘটনা সম্পর্কে জানিয়ে খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

যদিও প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে এখন সেই চিঠির প্রাপ্তি স্বীকার করা হয়নি। মঙ্গলবার নয়াদিল্লির একে গোপালন ভবনে ত্রিপুরার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকারকে পাশে বসিয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে এমনই অভিযোগ করলেন সিপিআইএমের সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি।

তিনি বলেন, ‘আজকালের মধ্যেই আমরা রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে চেয়েছিলাম। তিনদিন আগে সাক্ষাত করতে সময় চেয়ে রাষ্ট্রপতি ভবনে চিঠি পাঠানো হয়েছে। কিন্তু এখনও কোনও জবাব আসেনি। হ্যাঁ অথবা না’ও আমাদের জানানো হয়নি।’ একইসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি নিজে ত্রিপুরার ঘটনা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লিখে তাঁর হস্তক্ষেপ দাবি করেছিলাম। চিঠির প্রাপ্তিস্বীকারই করা হয়নি।’

এদিন ত্রিপুরার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘তৃণমূল গত দু’আড়াই মাস ধরে ত্রিপুরায় আসছে। ওদের উপর হামলার ঘটনারও কড়া নিন্দা করেছি আমরা। এটা ত্রিপুরার সংস্কৃতি নয়।’ তাঁর অভিযোগ, বিজেপির আক্রমণ থেকে রেহাই পাচ্ছেন না কংগ্রেস কর্মীরাও। তাহলে কি বিজেপিকে রুখতে বামেরা কংগ্রেসের তৃণমূলের সঙ্গে হাত মেলাবে? সেই প্রশ্ন উড়িয়ে মানিকবাবু। বলেছেন, ‘এখন এসব আমাদের মাথাতেই নেই।’

সিপিআইএমের অভিযোগ, ২০১৮ সালের মার্চ থেকে ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত প্রায় তিন হাজার সিপিআইএম সদস্য ও সমর্থকদের বাড়িতে আগুন লাগানো হয়েছে। ভাঙচুর হয়েছে। ছ’শোরও বেশি দলীয় কার্যালয়ে হামলা চালানো হয়েছে। মানিকবাবু বলেন, ‘ফ্যাসিবাদী আক্রমণ চলছে। মানবাধিকার রক্ষা করা হচ্ছে না।’ ইয়েচুরি হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, 'এরকম বর্বরোচিত আক্রমণ সহ্য করা হবে না।’

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in