Tripura: 'রাজ্যে অরাজকতা চলছে' - বিপ্লব দেবের সঙ্গে সুদীপ রায় বর্মনের বিরোধ চরমে

সুদীপ রায় বর্মনের কথায়, ‘এভাবে চলতে থাকলে মানুষ ভাববে ত্রিপুরায় অরাজকতা চলছে, আইনশৃঙ্খলা বলে কিছু নেই। মানুষ ক্ষমা করবে না এখানকার রাজ্য সরকারকে।'
Tripura: 'রাজ্যে অরাজকতা চলছে' - বিপ্লব দেবের সঙ্গে সুদীপ রায় বর্মনের বিরোধ চরমে
সুদীপ রায় বর্মন, বিপ্লব দেবফাইল চিত্র

রাজ্যে অরাজকতা বজায় থাকলে রাজ্যের মানুষ সরকারকে ক্ষমা করবেন না। বিজেপির বিধায়ক সুদীপ রায় বর্মনের এই ধরনের অভিযোগে বিজেপির অন্তর্কোন্দল প্রকাশ্যে চলে এল। এমনিতেই মন্ত্রীসভার রদবদল নিয়ে সুদীপ রায় বর্মন শিবিরে ক্ষোভ ক্রমশ বাড়ছিল এবং তা প্রকাশ্যে চলে আসছিল। তার কারণ, সম্প্রতি মন্ত্রীসভার যে সম্প্রসারণ ঘটেছে, তাতে তাঁর শিবিরের সেরকম কেউ নেই। ফলে এই ইস্যুতেই বিজেপির অন্দরে অন্তর্কলহ বেড়েছে।

বিজেপির একটি সূত্র জানাচ্ছে, মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের বিরুদ্ধ গোষ্ঠীর বিধায়করা ক্ষুব্ধ। সুদীপ রায় বর্মনের কথায়, ‘এভাবে চলতে থাকলে মানুষ ভাববে ত্রিপুরায় অরাজকতা চলছে, আইনশৃঙ্খলা বলে কিছু নেই। মানুষ ক্ষমা করবে না এখানকার রাজ্য সরকারকে।' মুখ্যমন্ত্রীর প্রতি বিষোদগার করে তিনি বলেন, 'মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের উচিত সবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করা। ক্রিমিনালরা তো ক্রিমিনালই হয়। ক্রিমিনালদের বিরুদ্ধে প্রশাসন ও দলগত ভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হোক।'

প্রধানমন্ত্রীর কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, 'ত্রিপুরায় দেখছি বিরোধীদের উপর লাগাতার আক্রমণ হচ্ছে, আমার মনে হয় তা দলের শীর্ষ নেতৃত্বও পছন্দ করে না, সমর্থন করে না৷ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির 'সবকা সাথ, সবকা বিকাশ' থেকে সরে এলে মানুষ আমাদের ক্ষমা করবে না।’‌

সম্প্রতি ত্রিপুরায় থাকা তৃণমূলের নেতা-প্রতিনিধিদের উপর, প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকারের কনভয়ে এবং কর্মী-সমর্থকদের ওপর হামলার অভিযোগ উঠেছে বিজেপির বিরুদ্ধে। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের কথায়, ত্রিপুরায় আইনশৃঙ্খলা নেই, অরাজকতা চলছে। এইধরনের কথা বলে দলের উপর চাপ সৃষ্টি করতে চাইছেন বিজেপির এই বিক্ষুব্ধ বিধায়ক।

প্রকাশ্যে যেভাবে তিনি মুখ্যমন্ত্রীর সমালোচনা করছেন তাতে অস্বস্তি বাড়ছে বিজেপির। তবে কি তিনি তৃণমূলে যাচ্ছেন, সেই বিষয়ে স্পষ্ট করে তিনি কিছু বলেননি। তবে জল্পনা জিইয়ে রেখেছেন। সুদীপ রায় বর্মনকে দলে নেওয়ার চেষ্টা করবে তৃণমূল, এমনটি মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। শেষপর্যন্ত তিনি কী করেন, সেটাই দেখার।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in