Hyderabad: BJP-র সভা বনাম যশবন্ত সিনহার সমর্থনে মিছিল - দুই দলের শক্তি প্রদর্শন ঘিরে উত্তেজনা তুঙ্গে

হায়দ্রাবাদে জাতীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সভা ডেকেছে BJP। অন্যদিকে আসরে নেমেছে তেলেঙ্গানার ক্ষমতাসীন দল TRS। বিরোধীদের রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী যশবন্ত সিনহার সমর্থনে সমাবেশের আয়োজন করেছে TRS।
যশবন্ত সিনহাকে স্বাগত জানাচ্ছেন কে চন্দ্রশেখর রাও
যশবন্ত সিনহাকে স্বাগত জানাচ্ছেন কে চন্দ্রশেখর রাওছবি সৌজন্যে KTR টুইটার হ্যান্ডেল

রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের আগে শাসক ও বিরোধী শিবিরের মধ্যে শক্তি প্রদর্শনের লড়াই শুরু হয়েছে তেলেঙ্গানায়।

হায়দ্রাবাদে, বিজেপির তরফে জাতীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সভা ডাকা হয়েছে। এই সভায় উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi)। যা ঘিরে তুঙ্গে উত্তেজনা। বিজেপির হোডিং, প্লাকার্ড ছেয়ে গেছে শহরজুড়ে। অন্যদিকে, আসরে নেমেছে তেলেঙ্গানার ক্ষমতাসীন দল তেলেঙ্গানা রাষ্ট্র সমিতি (TRS)। বিরোধীদের রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী যশবন্ত সিনহা (Yashwant Sinha)-র সমর্থনে বিশাল সমাবেশের আয়োজন রেছে টিআরএস।

ইতিমধ্যেই বেগমপেট বিমানবন্দরে (Begumpet Airport) এসে পৌঁছেছেন যশবন্ত সিনহা । তাঁকে স্বাগত জানিয়েছেন তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাও (KCR)। কয়েক ঘন্টা পর এই বিমানবন্দরেই নামবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

বিমানবন্দর থেকে জল বিহার পর্যন্ত বিশাল বাইক র‍্যালি শুরু হয়েছে। হুড খোলা গাড়িতে একসঙ্গে রয়েছেন যশবন্ত সিনহা ও চন্দ্রশেখর রাও। জানা যাচ্ছে, যশবন্ত সিনহার সমর্থনে জল বিহারে একটি সভা হবে।

আগামী ১৮ জুলাই রাষ্ট্রপতি নির্বাচন। তাতে সমর্থন চাইতে আলাদা করে আসাদউদ্দিনের অল ইন্ডিয়া মজলিস-ই-ইত্তেহাদুল মুসলিমীন (AIMIM) ও কংগ্রেসের নেতাদের সঙ্গে দেখা করবেন যশবন্ত সিনহা। হায়দরাবাদে পা রেখেই যশবন্ত সিনহা জানান, ‘যদি তিনি রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন, তাহলে জাতীয় গণতান্ত্রিক জোটের (NDA) দ্রৌপদী মুর্মুর থেকে ‘বেশি সাংবিধানিক’ (more constitutional) হবেন।‘

শহরজুড়ে কার্যত পোস্টারযুদ্ধ চলছে। কেন্দ্রের উন্নয়নের খতিয়ান তুলে ধরে রাস্তাজুড়ে কাটআউট, ব্যানার লাগিয়েছে বিজেপি। অন্যদিকে তেলেঙ্গানা রাষ্ট্র সমিতিও কেসিআর ও যশবন্ত সিনহার ছবিতে ছেয়ে দিয়েছে রাস্তার দু পাশে।

রাস্তায় পোস্টার
রাস্তায় পোস্টার

প্রায় ৫ বছর পর, রাজধানী নয়াদিল্লির বাইরে হায়দরাবাদে শুরু হতে চলেছে বিজেপির জাতীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সভা। সভায় যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ থেকে শুরু করে একাধিক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী, বিজেপি শাসিত বেশ কয়েকটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীরা, বিজেপির জাতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা-সহ অন্যান্য শীর্ষ নেতারা। এই কারণে নজিরবিহীন নিরাপত্তায় ঘিরে ফেলা হচ্ছে তেলেঙ্গনার রাজধানীকে। যদিও এবারও প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে যাবেন না কেসিআর। শেষ ছয় মাসে এ নিয়ে তৃতীয়বার নিজ রাজ্যে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানাচ্ছেন না মুখ্যমন্ত্রী কেসিআর।

২০২৩-এর শেষের দিকে তেলেঙ্গানায় বিধানসভা নির্বাচন হওয়ার কথা। তার আগে হায়দরাবাদে এই জাতীয় কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠক যথেষ্টই তাৎপর্যপূর্ণ। বিজেপির তরফে তেলেঙ্গানাকে 'দক্ষিণ মিশন' হিসেবে দেখছে।

রবিবার বিকেলে হায়দরাবাদের প্যারেড গ্রাউন্ডে জনসভায় ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী।

তবে তার আগে, বিজেপির জাতীয় কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠককে কটাক্ষ করেছেন তেলেঙ্গানার তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রী কেটি রামা রাও। হায়দরাবাদের বিশাল অফিস ভবনের ছবি পোস্ট করে তিনি লিখেছেন, ‘সুন্দর শহর হায়দরাবাদে হোয়াটসঅ্যাপ ইউনিভার্সিটির কার্যনির্বাহী পরিষদের সভার জন্য স্বাগতম।

সকল জুমলা জীবের প্রতি,

আমাদের ‘দম’ বিরিয়ানি এবং ইরানি ‘চা’ উপভোগ করতে ভুলবেন না। #TelanganaThePowerhouse অনুগ্রহ করে পরিদর্শন করুন এবং আপনাদের রাজ্যে এরকম প্রয়োগ করার চেষ্টা করুন।‘

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in