'বিজেপিতে যোগ দিলে কোনো ভুল নেই', ট্যুইটার কভার থেকে মমতা ব্যানার্জির ছবি সরালেন দীনেশ ত্রিবেদী

'বিজেপিতে যোগ দিলে কোনো ভুল নেই', ট্যুইটার কভার থেকে মমতা ব্যানার্জির ছবি সরালেন দীনেশ ত্রিবেদী
দীনেশ ত্রিবেদীছবি সংগৃহীত

রাজ‍্যসভায় বক্তৃতা দিতে উঠে নাটকীয়ভাবে সাংসদ পদ ও তৃণমূল ছেড়েছেন দীনেশ ত্রিবেদী। জল্পনা শীঘ্রই বিজেপিতে যোগ দেবেন তিনি। সেই জল্পনা জিইয়ে রেখেই সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, "যদি তিনি বিজেপিতে যোগ দেন, তাহলে এর মধ্যে কোনো ভুল নেই।"

এনডিটিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বিজেপিতে যোগ দেওয়া সংক্রান্ত প্রশ্নের জবাবে দীনেশ ত্রিবেদী বলেন, "দীনেশ ত্রিবেদীর কোনো আমন্ত্রণের জন্য অপেক্ষা করার দরকার নেই। তাঁরা সবাই আমার বন্ধু, এখন নয়, অনেক আগে থেকেই। প্রধানমন্ত্রী আমার খুব ভালো বন্ধু। বহু বছর ধরে অমিত ভাই (অমিত শাহ) আমার ভালো বন্ধু। আমি যেতে পারি... আমি এখনই যেতে পারি, এবং এতে কোনো ভুল নেই। আগামীকালই যদি আমি বিজেপিতে যোগ দিই, তাহলে এর মধ্যে কোনো ভুল নেই। যদি ওরা (বিজেপি) আমাকে স্বাগত জানায়, আমি যা শুনছি, আমি কৃতজ্ঞ থাকব ওদের কাছে। যদি সর্বত্র জনগণ তাদের গ্রহণ করে থাকে, তাহলে এর অর্থ তারা দেশের জন্য ভালো কিছু করছে।"

আজ রাজ‍্যসভায় তৃণমূল ছাড়ার সময় দলকে আক্রমণ করে দীনেশ ত্রিবেদী বলেছিলেন, "আমার রাজ‍্যের সর্বত্র হিংসাত্মক ঘটনা ঘটছে। অথচ আমরা কিছু বলতে পারছি না। আমি রবীন্দ্রনাথ, নেতাজির ভূমি থেকে আসা মানুষ। তাই আমি এটা আর দেখতে পারছি না। আমি একটা দলে আছি, দলের শৃঙ্খলা মেনে চলতে হয় আমাকে। কিন্তু আমার দমবন্ধ হয়ে আসছে। এর চেয়ে ইস্তফা দেওয়া ভালো।"

সাক্ষাৎকারেও দলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন ৭০ বছরের এই রাজনীতিবিদ। তিনি বলেন, "আমরা একসাথে এই দল (তৃণমূল) তৈরি করেছিলাম - মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, অজিত পাঁজা, মুকুল রায়, আমি নিজে। দলের একটা প্রাণ ছিল। দলের সেই আত্মা চলে গেছে এখন। দল রাজনৈতিক নেতৃত্বের হাত থেকে বাণিজ্যিক সংস্থার হাতে চলে গিয়েছে। যদি আপনি একজন পরামর্শদাতাকে ১০০ কোটি টাকা দেন... একদিকে আপনি বলছেন আপনার দল গরীব দল, অন‍্যদিকে পরামর্শদাতাকে কয়েক কোটি টাকা দিচ্ছেন আপনি। বামেদের হারানোর জন্য কী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এরকম কোনো পরামর্শদাতার প্রয়োজন হয়েছিল? এই পরামর্শদাতারা এখন দলের মালিক হয়ে গেছেন, দলের উপরে উঠে গিয়েছেন তাঁরা।"

তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা ব‍্যানার্জিকেও কটাক্ষ করতে ছাড়েননি প্রাক্তন রেলমন্ত্রী। তাঁর কথায়, "রাজনীতিতে আপনি কর্মচারী ও বস হতে পারেন না। উনি (মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়) সবসময় বলেন যে আমি মাথা উঁচু রাখতে চাই। আমরা আমাদের মাথা ঝুঁকিয়ে রাখতে চাই না... আমরাও মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে চাই।"

তৃণমূল ছাড়ার পরই নিজের ট‍্যুইটার হ‍্যান্ডল থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি সরিয়ে ফেলেছেন দীনেশ ত্রিবেদী। তার থেকেও বড় চমক তৃণমূল ছাড়ার পরই ট‍্যুইটারে তাঁকে ফলো করা শুরু করলেন রাজ‍্যপাল জগদীপ ধনখড়।

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in