Supreme Court: রাজনৈতিক দলে ধর্মীয় শব্দ-প্রতীক ব্যবহার, নয়া নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

সোমবার, এক মামলার শুনানিতে শীর্ষ আদালত জানিয়েছে, ধর্মীয় অর্থ বহন করে এমন শব্দ বা প্রতীক ব্যবহার করছে যে সমস্ত রাজনৈতিক দল, তাদের প্রতীক ও নাম বাতিলের পদক্ষেপ গ্রহণ করুক নির্বাচন কমিশন।
ছবি প্রতীকী
ছবি প্রতীকীগ্রাফিক্স আকাশ

যে সব রাজনৈতিক দল ধর্মকে হাতিয়ার করছে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্বাচন কমিশন (ECI)-কে নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।

সোমবার, এক মামলার শুনানিতে শীর্ষ আদালত জানিয়েছে, ধর্মীয় অর্থ বহন করে এমন শব্দ বা প্রতীক ব্যবহার করছে যে সমস্ত রাজনৈতিক দল, তাদের প্রতীক ও নাম বাতিলের পদক্ষেপ গ্রহণ করুক নির্বাচন কমিশন।

রাজনৈতিক দলের পক্ষে ধর্মীয় প্রতীক, নাম বা শব্দ ব্যবহারে আপত্তি জানিয়ে শীর্ষ আদালতে মামলা দায়ের করেন সৈয়দ ওয়াসিম রিজভি নামে এক ব্যক্তি। তিনি পিটিশনে ১৯৫১ সালের জনপ্রতিনিধিত্ব আইন (RPI)-এর ২৯-এ, ১২৩ (৩) ও ১২৩ (৩-এ) ধারার কথা তুলে ধরেন। তিনি দাবি করেন, ভোটারদের প্রলুব্ধ করার জন্য ধর্মের ব্যবহার- সংবিধানের ধর্মনিরপেক্ষ মূল্যবোধের পরিপন্থী। RPI আইনের ১২৩ ধারা অনুযায়ী এটি কঠোরভাবে নিষিদ্ধ।

বিচারপতি এম আর শাহ (Justices M. R. Shah) ও বিচারপতি কৃষ্ণ মুরারি (Justice Krishna Murari)-র ডিভিশন বেঞ্চে আবেদনকারীর আইনজীবী গৌরব ভাটিয়া (Gaurav Bhatia) জানান, দুটি আঞ্চলিক দলের নামের সঙ্গে ‘মুসলিম’ শব্দ রয়েছে। এছাড়া, বেশ কয়েকটি দলের পতাকায় অর্ধচন্দ্র ও তারা রয়েছে। এভাবে কি কোনও রাজনৈতিক দলগুলির নামের সঙ্গে কোনো ধর্মীয় অর্থ থাকতে পারে?

ভাটিয়া বলেন, উদাহরণ হিসেবে ইন্ডিয়ান ইউনিয়ন মুসলিম লীগ (IUML) কথা তুলে ধরেন ভাটিয়া। তিনি আদালতে বলেন, কেরালার IUML দলের শুধু বিধায়ক নয়, লোকসভা ও রাজ্যসভার তাঁদের সাংসদও রয়েছে। এরপরে তিনি বলেন, ‘এটি রাজনীতির আদর্শ আচরণবিধি লঙ্ঘন করে। আমরা রাজনীতিকে কি কলুষিত করতে পারি? এটি আমাদের দেখতে হবে।’

এস আর বোম্মাই বনাম ভারত সরকারের একটি মামলার রায়ে শীর্ষ আদালত জানিয়েছিল, ধর্মনিরপেক্ষতা ভারতীয় সংবিধানের মৌলিক বৈশিষ্ট্য। সে কথা তুলে ধরে এদিন আদালতে ভাটিয়া বলেন, ধর্মীয় নাম ব্যবহার করে যদি কোনও দলের প্রার্থী ভোট চান, তাহলে তো সেই প্রার্থী গণপ্রতিনিধিত্ব আইন ও ধর্মনিরপেক্ষতাকে লঙ্ঘন করবেন।

এই বিষয়ে যুক্তি শোনার পর, বিচারপতিদের বেঞ্চ নির্বাচন কমিশন, কেন্দ্রীয় আইন ও বিচার বিভাগের সচিবকে নির্দেশ দিয়েছে, আগামী ১৮ অক্টোবরের মধ্যে এই বিষয়ে সংশ্লিষ্ট রাজনৈতিক দলগুলিকে বোঝাতে বলে।

এদিন মামলাকারীর আইনজীবী বলেন, ‘ধর্মকে বাদ রেখেই বাকি সব বিষয়ের ভিত্তিতে জনগণকে ভোট দিতে হবে। যদি একজন প্রার্থী ধর্মীয় প্রতীক/নামের ভিত্তিতে নির্বাচিত হন, তাহলে তা RPA-এর ১২৩ (৩) ধারা প্রণয়নের পুরো উদ্দেশ্যই শেষ হয়ে যাবে।’

শীর্ষ আদালতের রায়ের উদ্ধৃতি দিয়ে পিটিশনে বলা হয়েছে, 'ধর্মনিরপেক্ষতা এবং সমাজের উপর এর প্রভাবকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়েছে শীর্ষ আদালত। অতএব, রাজনৈতিক দলগুলিকে ধর্মীয় প্রতীক/নাম ব্যবহারের অনুমতি দিয়ে, সংবিধান অবমাননা করছে ভারতের নির্বাচন কমিশন।’

- with inputs from IANS

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in