Sanjay Raut: ৯ ঘণ্টা জেরার পর ইডি-র হাতে আটক শিবসেনা সাংসদ সঞ্জয় রাউথ

শিবসেনা সাংসদ সঞ্জয় রাউতকে আটক করলো এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)। পাত্র চাল জমি কেলেঙ্কারির (Patra Chawl Land Scam) অভিযোগে অর্থ পাচারের মামলায় রবিবার সন্ধ্যায় তাঁকে আটক করা হয়।
শিবসেনা মুখপাত্র সঞ্জয় রাউথ
শিবসেনা মুখপাত্র সঞ্জয় রাউথফাইল ছবি সংগৃহীত

তদন্তে 'অসহযোগিতার' অভিযোগের ভিত্তিতে - গ্রেপ্তারের সম্ভাবনা নাকচ না করে - পরবর্তী পদক্ষেপের জন্য তাকে ইডি অফিসে নিয়ে যাবার আগে কয়েক ঘন্টা ধরে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

রবিবার তাঁকে 'মৈত্রী' বাংলো থেকে বের করে আনার সময়, রাউত বাইরে অপেক্ষারত শত শত সমর্থকদের দিকে হাত নাড়েন। এইসময় সেখানে ছিলেন তাঁর স্ত্রী বর্ষা, মা এবং পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা।

পথে, রাউত ফোনে এক বেসরকারী সংবাদ মাধ্যমকে বলেন যে তিনি "ইডিকে সম্পূর্ণ সহযোগিতা করছেন" এবং শিবসেনাকে ধ্বংস করার জন্য নিযুক্ত রাজনৈতিক কৌশলে তিনি ভীত হবেন না।

রাউত বলেন, "আমি ভীত নই... আইনের সাথে অসহযোগিতার কোন প্রশ্নই আসে না, আমি শিবসেনার জন্য নিজেকে উৎসর্গ করতে প্রস্তুত। ইডি টিম খুব সকালে কোনো নোটিশ না দিয়েই এসেছিল, আমার কাছ থেকে তথাকথিত এই মামলার বিষয়ে কোনো কাগজপত্র পাওয়া যায়নি।”

তিনি ফের বলেন, পূর্বের মহা বিকাশ আঘাদি সরকার (যা গত ২৯শে জুন ভেঙে যায়) পতনে সাহায্য করার জন্য অতীতেও তাঁকে চাপ দেওয়া হয়েছিল এবং তার বিরুদ্ধে ইডি অভিযোগগুলিকে 'মিথ্যা' বলে অভিহিত করে তিনি ঘোষণা করেছিলেন যে তিনি কারও সামনে নত হবেন না, ভারতীয় জনতা পার্টির বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাবেন।

রাউত আরও বলেন, তিনি আসন্ন উপ-রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের জন্য ইডির কাছে সময় চেয়েছিলেন; কারণ তিনি বিভিন্ন বিরোধী দলের সাথে সমন্বয় রক্ষা করছেন।

এদিন রাউত জানিয়েছেন, "দল আমার পিছনে আছে, উদ্ধব ঠাকরে আমাকে সমর্থন করছে... আমরা এই ধরনের চাপের সামনে আত্মসমর্পণ করব না, আমাদের চুপ করানো এবং শিবসেনাকে শেষ করার উদ্দেশ্যে এই কাজ করা হচ্ছে।"

এর আগে, তাঁর ভাই বিধায়ক সুনীল রাউত এক বেসরকারী সংবাদমাধ্যমে জানান, ইডি পাত্র চাউল মামলার সাথে সম্পর্কিত কিছু নথি শনাক্ত করতে পারেনি, যার ফলে সঞ্জয় রাউতকে আটক করা হয়েছে এবং তাকে ইডি অফিসে নিয়ে যাওয়া হবে।

রবিবার ভোরবেলা রাউতের ভান্ডুপের বাসভবন 'মৈত্রী'-তে ৯ ঘন্টারও বেশি সময় ধরে তল্লাশি চালানোর পরে ED তাঁকে আটক করে।

এর আগে রাউত দুটি ইডি সমন এড়িয়ে যান এবং তারপর উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনের কারণে তিনি ৭ আগস্ট পর্যন্ত তিনি সময় চেয়েছিলেন।

এদিন রাউতকে আটকের পর শত শত শিবসেনা কর্মী রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ দেখায়, স্লোগান দেয় এবং রাউতের আটক ও গ্রেফতারের নিন্দা জানায়।

ইডির পদক্ষেপটি ১৬ বিদ্রোহী শিবসেনা বিধায়কের অযোগ্যতা সংক্রান্ত সুপ্রিম কোর্টের সামনে গুরুত্বপূর্ণ শুনানির এক দিন আগে নেওয়া হয়েছে। গত ২০ জুন থেকে মহারাষ্ট্রের রাজনীতিতে অস্থিরতা শুরু হয় এবং পরে উদ্ধব সরকারের পতন হয়।

এদিন কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে মুম্বাই পুলিশ ও সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্স মোতায়েন করে কঠোর নিরাপত্তা বলয় তৈরি করা হয়ে।

ইডি এর আগে পুনের ব্যবসায়ী অবিনাশ ভোসলেকে ডিএইচএফএল ইয়েস ব্যাঙ্ক মামলায় হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল এবং সূত্র দাবি করেছিল যে তারা এই বিষয়েও রাউতকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চেয়েছিল। সূত্রের দাবি, ইডি-র পাত্র চাউল মামলাও ডিএইচএফএল মামলার সঙ্গে যুক্ত।

রাউত এর আগে টুইটারে অভিযোগ করেছিলেন যে কেন্দ্রের নির্দেশে তাকে হেনস্থা করা হচ্ছে। এপ্রিল মাসে, ইডি জমি কেলেঙ্কারির অভিযোগে রাউতের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে। রাউতের সহযোগী প্রবীণ রাউতের ৯ কোটি টাকার সম্পত্তি এবং সঞ্জয় রাউতের স্ত্রী বর্ষা রাউতের ২ কোটি টাকার সম্পত্তি ইডি দ্বারা আটক করা হয়েছে। এই ঘটনায় প্রবীণকে গ্রেফতার করেছে ইডি।

ইডির এক আধিকারিক জানিয়েছেন, "আমরা এইচডিআইএল-এর প্রবীণ, সারং ওয়াধাওয়ান এবং রাকেশ ওয়াধওয়ানের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেছি এবং গুরু আশিস কনস্ট্রাকশন এবং অন্যদের অভিযোগপত্রে অভিযুক্ত হিসাবে নাম দেওয়া হয়েছে।"

তদন্তের সময় ইডি জানতে পারে যে প্রবীণ বর্ষাকে ৫৫ লক্ষ টাকা দিয়েছেন বলে অভিযোগ। প্রবীণের স্ত্রীর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে এই টাকা দেওয়া হয়েছে।

with IANS inputs

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in