ভারতে ফের রুশ পর্যটকের রহস্যমৃত্যু, ১৫ দিনের মধ্যে তৃতীয় মৃতদেহ উদ্ধার ওড়িশায়!

গত ২৪ ডিসেম্বর, ওড়িশার রায়গড় জেলার এক হোটেলে মৃত্যু হয় রুশ রাজনীতিবিদ পাভেল আন্তভ ও তাঁর বন্ধু ভ্লাদিমির বাইদানভের। পাভেল আন্তভ ছিলেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সমালোচক।
ফের রুশ পর্যটকের রহস্যমৃত্যু
ফের রুশ পর্যটকের রহস্যমৃত্যু ছবি সংগৃহীত

আবার এক রুশ নাগরিকের রহস্য মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে ওড়িশায় (Odisha)। সূত্রের খবর, মঙ্গলবার জগৎসিংপুর জেলার পারাদ্বীপ বন্দরে (Paradip port) একটি পণ্যবাহী জাহাজে রাশিয়ান এক নাগরিককে মৃতদেহ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে গত ১৫ দিনের মধ্যে তৃতীয় রুশ নাগরিকের মৃত্যুর ঘটনা ঘটল।

পুলিশ সূত্রে খবর, নিহত রুশ নাগরিকের নাম সের্গি মিলিয়াকভ (Sergy Milyakov) (৫১)। হার্ট অ্যাটাক হয়ে তাঁর মৃত্যু হয়েছে বলে ধারণা করছে পুলিশ। যদিও মৃত্যুর সঠিক কারণ এখনও জানা যায়নি।

জগৎসিংহপুরের পুলিশ সুপার অখিলেশ্বর সিং (Akhilesvhar Singh) বলেন, ‘আমরা জানতে পেরেছি যে তিনি কার্গো জাহাজের একজন ক্রু সদস্য ছিলেন। ময়নাতদন্তের পরই তাঁর মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে। আমাদের প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে, তিনি হঠাৎ জাহাজের ভিতরে পড়ে যান। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যেতে পারেন তিনি।’

অখিলেশ্বর সিং জানিয়েছেন, ‘মিলিয়াকভের ময়নাতদন্তের ভিডিওগ্রাফি করবে পুলিশ। এবং মৃতদেহের পাশাপাশি ভিসারাল নমুনা (visceral samples) সংরক্ষণ করবে পুলিশ।

গত ২৪ ডিসেম্বর, ওড়িশার রায়গড় জেলার এক হোটেলে মৃত্যু হয় রুশ রাজনীতিবিদ পাভেল আন্তভ (Pavel Antov) ও তাঁর বন্ধু ভ্লাদিমির বাইদানভের (Vladimir Bydanov)। জানা যায়, পাভেল আন্তভ ছিলেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সমালোচক। তাই, ওড়িশাতে তাঁর রহস্য মৃত্যু ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়ায়।

প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ দাবি করেছে, পাভেলের মৃত্যুর নেপথ্যে 'অন্য কারও' হাত আছে বলে মনে হচ্ছে না। কিন্তু পরে ময়না তদন্তের রিপোর্টে জানা যায় ‘অভ্যন্তরীণ আঘাতের’ কারণেই মৃত্যু হয়েছে পাভেলের। আর, রুমমেট ভ্লাদিমির বিদেনভ মারা গেছেন হার্ট অ্যাটাকে। এই রেশ কাটতে না কাটতেই আবার এক রুশ নাগরিকের রহস্য মৃত্যু ঘটল ওড়িশাতে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত এক সপ্তাহ আগে পাভেলের ভিসারাল সংরক্ষণ না করা বা ময়নাতদন্তের ভিডিওগ্রাফি না করার জেরে সমালোচনার মুখে পড়েছিল ওড়িশা পুলিশ। মিলিয়াকভের ক্ষেত্রে সেই একই ভুলের পুনরাবৃত্তি করতে চাই না নবীন পট্টনায়ক সরকারের পুলিশ।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in