Puducherry: বেসরকারি ক্ষেত্রে চাকরিতে সংরক্ষণ, ন্যূনতম ২১ হাজার টাকা বেতনের দাবি তুললো DYFI

সংগঠনের পক্ষ থেকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল পুদুচেরিতে বেসরকারি খাতে চাকরিতে সংরক্ষণের দাবি তোলা হয়েছে। এছাড়াও কর্মক্ষেত্রে মহিলাদের নিরাপত্তা এবং সকলের জন্য ন্যূনতম মাসিক বেতন ২১ হাজার টাকা দাবি করা হয়।
Puducherry: বেসরকারি ক্ষেত্রে চাকরিতে সংরক্ষণ, ন্যূনতম ২১ হাজার টাকা বেতনের দাবি তুললো DYFI
ছবি প্রতীকীছবি সৌজন্যে নিউজক্লিক

বেসরকারি ক্ষেত্রে চাকরিতে সংরক্ষণের দাবি তুললো সিপিআই-এম-এর যুব সংগঠন ডেমোক্র্যাটিক ইয়ুথ ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়া (ডিওয়াইএফআই)। সংগঠনের পক্ষ থেকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল পুদুচেরিতে বেসরকারি খাতে চাকরিতে সংরক্ষণের দাবি তোলা হয়েছে। এছাড়াও কর্মক্ষেত্রে মহিলাদের নিরাপত্তা এবং সকলের জন্য ন্যূনতম মাসিক বেতন ২১ হাজার টাকা দাবি করা হয়।

ডিওয়াইএফআই পুদুচেরি ইউনিটের সভাপতি এ. ভাস্কর আইএএনএস-এর সাথে কথা বলার সময় জানিয়েছেন: "কেন্দ্রে নরেন্দ্র মোদী সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে ডিওয়াইএফআই প্রাইভেট সেক্টরের চাকরিতে সংরক্ষণের দাবি জানিয়ে আসছে। কারণ নিম্নবিত্ত, অনগ্রসর শ্রেণী এবং তফসিলি জাতি ও উপজাতি এবং প্রান্তিকদের জন্য সরকারী ক্ষেত্রে চাকরির অভাব রয়েছে। তাই আমরা বেসরকারি খাতের চাকরিতে সংরক্ষণের দাবি জানাচ্ছি যাতে অন্তত কিছু মানুষ চাকরি পেতে পারেন।"

ডিওয়াইএফআই নেতা আরও বলেছেন, এই কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ২.৫ লক্ষ যুবক কর্মসংস্থান কেন্দ্রে নাম নথিভুক্ত করেছেন। তিনি আরও বলেন, ২০২১ সালের জুনে করা এক সমীক্ষা অনুসারে, পুদুচেরিতে বেকারত্বের হার ছিল ৪৭ শতাংশ এবং তা ক্রমশ বাড়ছে।

DYFI পুদুচেরি রাজ্য সম্পাদক এ আনন্দ বলেন, মোদী সরকার প্রতি বছর ২ কোটি চাকরির প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। কিন্তু নোটবাতিল, GST শুল্ক এবং কোভিড-১৯ এর কারণে দেশ জুড়ে এক কোটিরও বেশি ছোট এবং ক্ষুদ্র উদ্যোগ বন্ধ হয়ে গেছে। তিনি আরও বলেন, রিপোর্ট অনুসারে, মাসিক বেতন পেতেন এমন ৬৮ লক্ষ মানুষ সাম্প্রতিক সময়ে তাঁদের চাকরি হারিয়েছেন।

আনন্দ, আইএএনএস-এর সাথে কথা বলার সময় জানান: "মোদি সরকারের আমলে দেশের সর্বস্তরে হতাশা নেমে এসেছে এবং যুবকরা সবথেকে বেশি প্রভাবিত হয়েছে।"

আনন্দ জানিয়েছেন, আগামী ২১ এপ্রিল ডিওয়াইএফআই ক্রমবর্ধমান বেকারত্বের বিরুদ্ধে পুদুচেরিতে একটি সাইকেল র‌্যালি করবে এবং একই দিনে চেন্নাই, কন্যাকুমারী, কোয়েম্বাটোর এবং তিরুচিতে অনুষ্ঠিতব্য সাইকেল সমাবেশের অংশ হবে।

আনন্দ জানিয়েছেন: "কেন্দ্র মুনাফা অর্জনকারী পাবলিক সেক্টরের উদ্যোগকে বেসরকারীকরণ করছে এবং মোদীর 'সবকা সাথ সবকা বিকাশ'-এর সর্বাত্মক উন্নয়ন একটি ভুয়ো বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে ভারতের ২৩ শতাংশ শহুরে যুবক বেকার।"

ডিওয়াইএফআই নেতা কেন্দ্রীয় সরকারকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের পাওয়ার সেক্টর ইউনিটগুলি বেসরকারি ক্ষেত্রে হস্তান্তর না করার দাবি জানিয়েছেন। তিনি বিদ্যুৎ খাতের শূন্যপদও অবিলম্বে পূরণের দাবি জানান।

- with Agency Inputs

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.