মুসলিমদের উদ্দেশ্য করে উস্কানিমূলক মন্তব্য জামিয়ায় গুলি চালানো যুবকের - অভিযোগ নেই, জানালো পুলিশ

গত বছর জামিয়া মিলিয়ার কাছে হওয়া সিএএ-বিরোধী আন্দোলনে গুলি চালিয়েছিল যে যুবক, ভিডিওতে দেখতে পাওয়া যুবক সেই। শনিবার পাতৌদিতে এক মহাপঞ্চায়েতে অংশ নিয়ে উস্কানিমূলক এই মন্তব্য করেছে ওই যুবক।
মুসলিমদের উদ্দেশ্য করে উস্কানিমূলক মন্তব্য জামিয়ায় গুলি চালানো যুবকের - অভিযোগ নেই, জানালো পুলিশ
রাম ভক্ত গোপালছবি ট্যুইটার ভিডিও থেকে সংগৃহীত

শনিবার থেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ঘুরছে, যেখানে বছর সতেরোর এক কিশোরকে মুসলিম মহিলাদের অপহরণ করার জন্য জনতাকে উৎসাহিত করতে দেখা যাচ্ছে। গত বছর জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়ার কাছে হওয়া সিএএ-বিরোধী আন্দোলনে গুলি চালিয়েছিল যে কিশোর, ভিডিওতে দেখতে পাওয়া কিশোর সেইই। শনিবার হরিয়ানার পাতৌদিতে হওয়া এক মহাপঞ্চায়েতে অংশ নিয়ে উস্কানিমূলক এই মন্তব্য করেছে ওই কিশোর।

ভিডিওতে জনতার উদ্দেশ্যে কিশোরটি আরো বলে - যখন আমরা মুসলমানদের আক্রমণ করবো, তখন মুসলমানরা 'রাম রাম' বলে চিৎকার করবে। জানা গেছে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে গত ৪ জুলাই।

গত বছরের গুলি চালানোর ঘটনার দিকে ইঙ্গিত করে সে বলে, "জিহাদী, সন্ত্রাসবাদী মানসিকতা সম্পন্ন ব‍্যক্তিদের পাতৌদি থেকে আমি কেবল এইটুকুই সাবধানবাণী দিতে চাই, সিএএ-র সমর্থনে আমি যখন ১০০ কিমি দূরে জামিয়াতে যেতে পারি, তখন পাতৌদি খুব বেশি দূরে নয়।"

এই ঘটনা প্রসঙ্গে দ্য স্ক্রলের এক রিপোর্ট উদ্ধৃত করে মঙ্গলবার সকালে একটি ট্যুইট করেছেন রানা আয়ুব। যেখানে তিনি লিখেছেন - 'গডসে ২.০ - জামিয়ায় গুলি চালানো যুবক হরিয়ানায় এক সভায় প্ররোচনামূলক ভাষণ দিয়েছে। একবছর আগে এই যুবকই জামিয়ায় ছাত্রদের ওপর গুলি চালিয়েছিলো। এই যুবক বলেছে মুসলিমদের খুন করা হবে।'

'লাভ জিহাদ' এবং জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ আইন নিয়ে আলোচনার জন্য এই মহাপঞ্চায়েতের আয়োজন করা হয়েছিল। বিজেপির মুখপাত্র এবং করণি সেনা প্রেসিডেন্ট সূরয পাল আমুও এই সভায় উপস্থিত ছিলেন। তিনিও জনতার উদ্দেশ্যে উস্কানিমূলক মন্তব্য করেছেন বলে অভিযোগ।

তিনি জনতাকে "ইতিহাস না হয়ে, ইতিহাস তৈরি করার" আহ্বান জানিয়েছেন। দেশে যাতে কোনো তৈমুর, ঔরঙ্গজেব, বাবর, হুমায়ূন জন্ম নিতে না পারে তা দেখতে বলেছেন তিনি। হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, "কোনো পাকিস্তানীকে এখানে বাড়ি ভাড়া দেব না আমরা। এই দেশ থেকে প্রত‍্যেক পাকিস্তানীকে সরানো হোক। এই প্রস্তাব পাশ করতেই হবে।"

গতকাল ‌পর্যন্ত এই ঘটনায় কোনো এফআইআর দায়ের হয়নি বলে জানা গেছে। মানেসরের ডিএসপি বরুণ সিঙ্গলা সোমবার সংবাদমাধ‍্যমে জানিয়েছেন, "মহাপঞ্চায়েতে বক্তৃতা সম্পর্কিত কোনো অভিযোগ এখনও পাইনি আমরা। কোনো FIR-ও দায়ের হয়নি এখনও।"

গত বছরের ৩০ জানুয়ারি দিল্লির জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে সিএএ এবং এনআরসি বিরোধী বিক্ষোভ চলাকালীন এই যুবকই বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি চালিয়েছিলো। তাঁর ‘ইয়ে লো আজাদি’ ভাইরাল হয়েছিলো সোশ্যাল মিডিয়ায়। যদিও ওই ঘটনার পর তাঁকে ২৮ দিনের জন্য জুভেনাইল জাস্টিস বোর্ডে পাঠানো হয় এবং পরে ছেড়ে দেওয়া হয়। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, তাঁর বয়স ১৭ বছর এবং তিনি নাবালক। সেই সময় তাঁর নামও প্রকাশ করা হয়নি।

এই সভার একদিন আগে এক ফেসবুক লাইভে গত ৩ জুলাই এই যুবক জানিয়েছিলেন তিনি ৪ জুলাই পাতৌদিতে ওই সভায় যোগ দিতে যাবেন। জনৈক আর বি গুজ্জর এই লাইভ সঞ্চালন করেছিলেন।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in