Presidential Election: রাষ্ট্রপতি নির্বাচন পরিচয়ের নয়, আদর্শের রাজনীতির প্রতিদ্বন্দ্বিতা - আরজেডি

আরজেডি-র জাতীয় মুখপাত্র মৃত্যুঞ্জয় তেওয়ারী এদিন বলেন, "যদি আমরা বিজেপির ট্র্যাক রেকর্ড দেখি, তারা আদিবাসী, অত্যন্ত অনগ্রসর শ্রেণী এবং বঞ্চিত শ্রেণীকে উন্নীত করার কোনো উদ্যোগ নেয়নি।
রাষ্ট্রপতি ভবন
রাষ্ট্রপতি ভবন ফাইল ছবি, প্রেসিডেন্ট সেক্রেটারিয়েট-এর সৌজন্যে

রাষ্ট্রপতি নির্বাচন পরিচয়ের রাজনীতির প্রশ্নে নয়, আদর্শের রাজনীতির প্রতিদ্বন্দ্বিতা। বুধবার বিহারে রাষ্ট্রপতি নির্বাচন প্রসঙ্গে একথা জানিয়েছেন রাজ্যের বিরোধী নেতৃত্ব। আসন্ন রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট দ্রৌপদী মুর্মুকে রাষ্ট্রপতি মনোনীত প্রার্থী হিসাবে লড়াইয়ের ময়দানে নামানো প্রসঙ্গে বিরোধী নেতৃত্ব এই মন্তব্য করেছেন।

আরজেডি-র জাতীয় মুখপাত্র মৃত্যুঞ্জয় তেওয়ারী এদিন বলেন, "যদি আমরা বিজেপির ট্র্যাক রেকর্ড দেখি, তারা আদিবাসী, অত্যন্ত অনগ্রসর শ্রেণী এবং বঞ্চিত শ্রেণীকে উন্নীত করার কোনো উদ্যোগ নেয়নি। অন্যদিকে, আরজেডি বা মহাজোটের অন্যান্য দলগুলি সর্বদা তাদের কথা ভাবে। এখন বিজেপি এক উপজাতীয় মুখকে নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করেছে এবং আমাদের তাকে সমর্থন করতে বাধ্য করার চেষ্টা করছে। কেন রাষ্ট্রপতি প্রার্থীর জন্য একটি নাম নিয়ে সব দলকে পারস্পরিক ঐকমত্যে আসতে বলা হয়নি?"

তিনি আরও বলেন, "আমাদের নেতা তেজস্বী যাদব জানিয়েছিলেন, এনডিএ যদি প্রথমে দ্রৌপদী মুর্মুর নাম ঘোষণা করত, তবে তিনি এই বিষয়ে ভেবে দেখতেন। কিন্তু বিজেপির একটি আদর্শ রয়েছে (যা হিটলার দ্বারা প্রভাবিত)। তারা তাদের নীতি জনগণের উপর চাপিয়ে দিতে চায়। তাই আমরা আবার বলছি যে আমাদের প্রতিদ্বন্দ্বিতা দ্রৌপদী মুর্মুর সাথে নয়। আমরা বিজেপি এবং তার নীতির বিরুদ্ধে লড়াই করছি।”

তেজস্বী যাদব এবং বিহারের মহাজোটের নেতারা সর্বসম্মতভাবে তাদের প্রার্থী যশবন্ত সিনহাকে সমর্থন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের প্রচারে ১৫ জুলাই বিহারে যাওয়ার কথা রয়েছে তাঁর।

সিপিআই(এমএল)-এর বিধায়ক মাহবুব আলম বলেছেন: "বিজেপি প্রতীকের রাজনীতি করছে। আদিবাসী সম্প্রদায়ের মানুষের সাথে এর কোনো সম্পর্ক নেই। অন্যদিকে বাম দলগুলো আদিবাসী সম্প্রদায়ের জন্যে লড়াই করে। বিজেপি বিরোধী দলগুলোর সমর্থন পেতে দ্রৌপদী মুর্মুকে মুখ হিসেবে ব্যবহার করছে। আমরা বিজেপি এবং তার আদর্শের বিরুদ্ধে। আমরা দৃঢ়ভাবে যশবন্ত সিনহার পক্ষে দাঁড়িয়ে আছি এবং ১৮ জুলাই ভোটের দিন তাঁকে সমর্থন করব।"

এখনও পর্যন্ত, রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে এনডিএ প্রার্থী এগিয়ে রয়েছে।

লোকসভা, রাজ্যসভা এবং বিধানসভার সদস্যরা রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের জন্য যোগ্য ভোটার। বিহারে, ৫৬ জন সাংসদ এবং ২৪৩ জন বিধায়ক ভোট দেওয়ার জন্য রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে অংশ নেবেন। একজন সাংসদের ভোটের মূল্য ৭০০ আর বিধায়কের ভোটের মূল্য ১৭৩।

বিহারের রাজ্যসভা, লোকসভা এবং বিধায়কের মোট ভোটের মান হল ৮১,২৩৯। যেখানে বিধায়কদের ভোটের মূল্য ৪২,০৩৯ এবঞ উভয় কক্ষের সাংসদদের ভোটের মূল্য ৩৯,২০০।

বিহারে বিজেপির সবচেয়ে বেশি ভোট রয়েছে। যার মধ্যে ২৩ জন লোকসভা সাংসদ এবং ৭৭ জন বিধায়ক রয়েছে। বিহারে বিজেপির মোট ভোটের মূল্য ২৮,৭২১। ৪৭ জন বিধায়ক এবং ১৬ জন লোকসভা সাংসদ সহ JD-U এর ২২,৪৮৫ ভোটের মান রয়েছে। RJD-এর ৮০ জন বিধায়কের সঙ্গে ১৪,৩৪০ ভোটের মান রয়েছে, কংগ্রেসের ১৯ জন বিধায়কের সঙ্গে ৪,৬৮৭ ভোটের মান রয়েছে। বিহারে বাম দলগুলির ১৬ বিধায়ক সহ ২,৭৬৮ এবং এআইএমআইএম-এর একজন বিধায়কের ভোটের মান ১৭৩।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in