Pegasus: সংসদের দুই কক্ষেই আলোচনা চেয়ে বিরোধীদের হট্টগোল, দুপুর ২টো পর্যন্ত মুলতুবি লোকসভা

পেগেসাস স্পাইওয়ারের নজরদারির অভিযোগ নিয়ে সংসদের দুই কক্ষে তুমুল হট্টগোল। যার জেরে মঙ্গলবার সকালে অধিবেশন শুরুর পর বেলা দুটো পর্যন্ত মুলতুবি করে দেওয়া হয় লোকসভা। রাজ্যসভা মুলতুবি হয় বেলা ১২টা পর্যন্ত।
Pegasus: সংসদের দুই কক্ষেই আলোচনা চেয়ে বিরোধীদের হট্টগোল, দুপুর ২টো পর্যন্ত মুলতুবি লোকসভা
সংসদফাইল ছবি সংগৃহীত

পেগেসাস স্পাইওয়ারের নজরদারির অভিযোগ নিয়ে সংসদের দুই কক্ষে তুমুল হট্টগোল। যার জেরে মঙ্গলবার সকালে অধিবেশন শুরুর পর বেলা দুটো পর্যন্ত মুলতুবি করে দেওয়া হয় লোকসভা। রাজ্যসভা মুলতুবি হয়েছে বেলা বারোটা পর্যন্ত। গতকালও পেগেসাস বিতর্কে দফায় দফায় মুলতুবি হয় সংসদের দুই কক্ষ।

কংগ্রেস সহ চার বিরোধী দল রাজ্যসভায় লিখিত ভাবে সব আলোচনা মুলতুবি রেখে পেগেসাস নিয়ে আলোচনার জন্য ২৬৭ ধারা অনুসারে নোটিশ দেয়। কংগ্রেস ছাড়া অন্য তিন দল হল সিপিআই(এম), আপ এবং তৃণমূল কংগ্রেস।

গতকাল পেগেসাসের সম্ভাব্য নজরদারির তালিকায় রাহুল গান্ধী, প্রশান্ত কিশোর এবং কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণবের নাম প্রকাশিত হয়। এরপরেই এই ঘটনার প্রতিবাদে সরব হয় কংগ্রেস। কোনোরকম দেরি না করে তদন্ত শুরু করার দাবি জানানোর পাশাপাশি কংগ্রেসের পক্ষ থেকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ইস্তফা দাবি করা হয়।

যদিও কংগ্রেসের আনা এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ জানান, এই রিপোর্টের কোনো ভিত্তি নেই এবং সংসদের বাদল অধিবেশনের কাজ ভন্ডুল করে দেবার জন্যেই এই রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে। বেশ কিছু বিদেশী শক্তি চায়না ভারত উন্নতি করুক। তিনি বলেন 'আপ ক্রোনোলজি সমঝিয়ে'।

সোমবার সংসদে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী যখন মন্ত্রীসভার নতুন সদস্যদের সঙ্গে পরিচয় করাচ্ছিলেন সেই সময়েই বিরোধীদের পক্ষ থেকে পেগেসাস প্রসঙ্গে হট্টগোল শুরু হয়। লোকসভা এবং রাজ্যসভায় তুমুল হৈ হট্টগোল এবং শ্লোগান শুরু হয়ে যায়। এরপরেই প্রধানমন্ত্রী তাঁর পরিচয় পর্ব থামিয়ে দেন।

বিরোধীদের পেগেসাস স্পাইওয়ার আক্রমণ প্রসঙ্গে বর্তমান আইটি মন্ত্রী এনএসওকে উদ্ধৃত করে জানান, এই ধরণের ঘটনা যে কোনো সময়, যে কোনো জায়গায় খোলাখুলি ঘটতে পারে। সাধারণত বিভিন্ন সরকারি সংস্থা এইসব ব্যবহার করে।

পেগেসাসের ঘটনা প্রসঙ্গে প্রাক্তন আইটি মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ বলেন – এনএসও জানিয়েছে ৪৫টি দেশ পেগেসাস ব্যবহার করে। তাহলে কেন শুধু ভারতকে লক্ষ্যবস্তু করা হচ্ছে। পেগেসাস যারা তৈরি করে সেই এনএসও স্পষ্ট জানিয়েছে, তাঁদের মূল ক্লায়েন্ট পশ্চিমি দেশগুলো। তাহলে কেন ভারতকে এই বিষয়ে লক্ষ্যবস্তু করা হচ্ছে? এর পেছনে আসল গল্প কী?

প্রসঙ্গত, দ্য ওয়ারের রিপোর্ট অনুসারে, পেগেসাসের সম্ভাব্য নজরদারির তালিকায় ভারত ছাড়াও আছে আজারবাইজান, বাহারিন, হাঙ্গেরী, কাজাখস্তান, মেক্সিকো, মরক্কো, রোয়ান্ডা, সৌদি আরব, আরব আমীরশাহী।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in