মোদীজী 'জিডিপি' অর্থাৎ গ্যাস-ডিজেল-পেট্রোলের দামে বিরাট বিকাশ করে দেখিয়েছেন - রাহুল গান্ধী

রাহুল গান্ধীর করা ট্যুইট অনুসারে শেষ ৬ মাসে গ্যাসের দাম ৯৩.৫০ পয়সা বেড়েছে। ডিজেল ৮৩.৬৪ পয়সায় পৌঁছেছে এবং পেট্রোল ৯১.৬৩ পয়সায় পৌঁছে গেছে।
মোদীজী 'জিডিপি' অর্থাৎ গ্যাস-ডিজেল-পেট্রোলের দামে বিরাট বিকাশ করে দেখিয়েছেন - রাহুল গান্ধী
রাহুল গান্ধীফাইল ছবি সংগৃহীত

দেশজুড়ে পেট্রোল ডিজেল রান্নার গ্যাসের লাগামছাড়া দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে সরব রাহুল গান্ধী। রবিবার এক ট্যুইট বার্তায় কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের কড়া সমালোচনা করে রাহুল গান্ধী লেখেন – জনতা মহগাঁই সে ত্রস্ত, মোদী সরকার ট্যাক্স বসুলি মে মস্ত। অর্থাৎ - দেশের মানুষ দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধিতে ত্রস্ত আর মোদী সরকার মনের সুখে কর আদায় করছে।

এদিনের ট্যুইট বার্তায় ওয়াইনাডের কংগ্রেস সাংসদ আরও বলেন – মোদীজী জিডিপি অর্থাৎ গ্যাস-ডিজেল-পেট্রোলের দামে বিরাট বিকাশ করে দেখিয়েছেন। এরই সঙ্গে তিনি এক খবরের কাগজের কাটিং যুক্ত করেছেন। যেখানে দেখা যাচ্ছে শেষ ৬ মাসে গ্যাসের দাম ৯৩.৫০ পয়সা বেড়েছে। ডিজেল ৮৩.৬৪ পয়সায় পৌঁছেছে এবং পেট্রোল ৯১.৬৩ পয়সায় পৌঁছে গেছে।

উল্লেখ্য, ইদানীংকালের মধ্যে গতকালই সর্বোচ্চ স্তরে পৌঁছায় পেট্রোল ও ডিজেলের দাম। শনিবার লিটার পিছু ২৫ পয়সা করে বাড়ে এই দুই পণ্যের দাম। এই নিয়ে এক সপ্তাহের মধ্যে চতুর্থবার এবং লাগাতার দ্বিতীয় দিন দাম বাড়ে পেট্রোল ও ডিজেলের।

শনিবার দাম বাড়ার পর শহর কলকাতায় পেট্রোলের দাম লিটার পিছু দাঁড়ায় ৮৭.১১ পয়সা। মুম্বাইতে এই দাম ৯২.২৮ পয়সা। চেন্নাইতে ৮৮.২৯ পয়সা এবং দিল্লিতে ৮৫.৭০ পয়সা।

শনিবারের দাম অনুসারে কলকাতায় লিটার পিছু ডিজেলের দাম ৭৯.৪৮ পয়সা। মুম্বাইতে ৮২.৬৬ পয়সা। চেন্নাইতে ৮১.১৪ পয়সা এবং দিল্লিতে ৭৫.৮৮ পয়সা।

বেশ কয়েক মাস পরে গত ৬ জানুয়ারি থেকে বিভিন্ন তেল সংস্থা পেট্রোপণ্যের দামের দৈনিক মূল্যায়ন শুরু করে। এর পর থেকে গত কয়েকদিনে পেট্রোলের দাম লিটারে বেড়েছে ১.৯৯ পয়সা এবং ডিজেলের দাম লিটার পিছু বেড়েছে ২.০১ পয়সা। এর আগে গত ২০১৮ সালের ৪ অক্টোবর পেট্রোল ও ডিজেলের দামে সর্বাধিক বৃদ্ধি ঘটেছিলো।

উল্লেখ্য, পেট্রোল এবং ডিজেলের দাম বিভিন্ন রাজ্যে আলাদা আলাদা হয় ভ্যাট-এর কারণে। এছাড়াও পেট্রোপণ্যের দামের সঙ্গে যোগ হয় এক্সাইজ ডিউটি। সাধারণ গ্রাহকদের বোঝা কমানোর জন্য একাধিক বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সংস্থার পক্ষ থেকে এক্সাইজ ডিউটি কমানোর আবেদন জানানো হয়েছে। যদিও এখনও পর্যন্ত সেই পথে হাঁটেনি সরকার।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in