মহারাষ্ট্র ২ বছর আগে ‘স্বাধীনতা’ পেয়েছে, নাম না করে বিজেপিকে কটাক্ষ শিবসেনা মুখপাত্রের

তাঁর কথায় – “জনগণ ক্ষুব্ধ, তাঁরা প্রধানমন্ত্রী বা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কে সেসব নিয়ে মাথা ঘামাতে রাজি ছিলেন না। আর সেই কারণেই ৩টি কৃষি আইন প্রত্যাহার করতে বাধ্য হয়েছে সরকার।”
মহারাষ্ট্র ২ বছর আগে ‘স্বাধীনতা’ পেয়েছে, নাম না করে বিজেপিকে কটাক্ষ শিবসেনা মুখপাত্রের
শিবসেনা নেতা সঞ্জয় রাউতফাইল ছবি

শিবসেনার সাংসদ এবং প্রধান মুখপাত্র সঞ্জয় রাউত শনিবার বলেন যে মহারাষ্ট্র দুই বছর আগে ‘স্বাধীনতা’ পেয়েছে। “আমরা সঠিক পদক্ষেপ নিয়েছিলাম ... তাই মহারাষ্ট্র দুই বছর আগে স্বাধীনতা পেয়েছে” - ভারতীয় জনতা পার্টির নাম না করেই কটাক্ষ করেন সঞ্জয় রাউত।

কয়েক বছর আগে বিধানসভা নির্বাচনের পরে বিজেপিকে ক্ষমতাচ্যুত করার জনাদেশ এসেছিল। তাই মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরের নেতৃত্বে শিবসেনা-জাতীয়তাবাদী কংগ্রেস পার্টি-কংগ্রেস সরকার গঠন করে। দলীয় এক অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে শিবসেনা নেতা আরও বলেন “ভারত ছাড়ো আন্দোলন”-এর পর ভারতে ব্রিটিশ শাসনের অবসান হয়েছিল। তিনি কৃষি আন্দোলনকে ভারত ছাড়ো আন্দোলনের সাথে তুলনা করেছেন।

তাঁর কথায় – “জনগণ ক্ষুব্ধ, তাঁরা প্রধানমন্ত্রী বা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কে সেসব নিয়ে মাথা ঘামাতে রাজি ছিলেন না। আর সেই কারণেই ৩টি কৃষি আইন প্রত্যাহার করতে বাধ্য হয়েছে সরকার।” তিনি দাবি করেন - আসন্ন নাসিক মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন নির্বাচনে ১২২টি আসনের মধ্যে ন্যূনতম ১০০টি আসন জিতে ক্ষমতাসীন বিজেপিকে হারাবে শিবসেনা।

প্রসঙ্গত, মহারাষ্ট্র বিজেপির রাজ্য সভাপতি চন্দ্রকান্ত পাটিল প্রধানমন্ত্রীর শুক্রবারের সিদ্ধান্তকে “দুর্ভাগ্যজনক” বলে মন্তব্য করেছেন। সেই প্রসঙ্গে রাউত বলেন যে, পাটিল যদি সত্যিই এতো দুঃখবোধ করেন, তাহলে “আমরা তাকে সান্ত্বনাবার্তা পাঠাব, দরকারে একটি শোকসভারও আয়োজন করব।”

অন্যদিকে, মহারাষ্ট্রের বিরোধী দলনেতা দেবেন্দ্র ফড়নবিশ বলেন, প্রধানমন্ত্রী কৃষি আইন প্রত্যাহারের মাধ্যমে ‘বিরল উদারতা’দেখিয়েছেন।

-With IANS inputs

শিবসেনা নেতা সঞ্জয় রাউত
কৃষি আইনে নতিস্বীকার, এবার CAA, UAPA, ৩৭০ ধারা নিয়ে ক্রমশই চাপ বাড়ছে মোদী সরকারের উপর

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in