Jignesh Mevani: কোকরাঝাড়ে জামিনের পরেই আবারও গ্রেপ্তার জিগনেশ মেভানী

প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে একটি "আপত্তিকর" টুইটের অভিযোগে আসাম পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করার ৬ দিন পরে এদিনই তিনি জামিন পান। মুক্তির পরেই আসাম পুলিশ গুজরাটের বিধায়ক জিগনেশ মেভানিকে আবারও গ্রেপ্তার করে।
Jignesh Mevani: কোকরাঝাড়ে জামিনের পরেই আবারও গ্রেপ্তার জিগনেশ মেভানী
জিগনেশ মেভানীফাইল ছবি জিগনেশ মেভানীর ট্যুইটার হ্যান্ডেলের সৌজন্যে

কোকরাঝাড় জেলার এক আদালতে জামিন পাবার পরেই আবারও গ্রেপ্তার করা হল গুজরাটের বিধায়ক জিগনেশ মেভানীকে। প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে একটি "আপত্তিকর" টুইটের অভিযোগে আসাম পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করার ছয় দিন পরে এদিনই তিনি জামিন পান। জামিনে মুক্তির পরেই আসাম পুলিশ সোমবার গুজরাটের বিধায়ক জিগনেশ মেভানিকে আবারও গ্রেপ্তার করে।

জানা গেছে বারপেটা জেলা থেকে পুলিশ মেভানিকে আবার গ্রেপ্তার করেছে। যদিও গুজরাটের বিধায়ককে আবারও গ্রেপ্তার করা হয়েছে তা প্রকাশ করতে অস্বীকার করেছে। গত ১৮ এপ্রিল একটি টুইটে প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে একটি "আপত্তিকর" মন্তব্য করার অভিযোগে বুধবার রাতে গুজরাটের নির্দল বিধায়ককে প্রথম গ্রেপ্তার করা হয়। মেভানিকে বৃহস্পতিবার সকালে গুয়াহাটিতে নিয়ে যাওয়া হয় এবং সেখান থেকে তাঁকে সড়কপথে কোকরাঝারে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।

বৃহস্পতিবার কোকরাঝাড় জেলার মুখ্য বিচার বিভাগীয় ম্যাজিস্ট্রেট আদালত দলিত কর্মীর জামিনের আবেদন নাকচ করে তাকে তিন দিনের পুলিশ হেফাজতে পাঠিয়েছিলেন।

রবিবার, তার জামিন আবেদনের শুনানির পর, আদালত তার আদেশ সংরক্ষণ করে তাঁকে একদিনের বিচার বিভাগীয় হেফাজতে পাঠায় এবং পুলিশকে সোমবার মেভানিকে আবার আদালতে হাজির করতে বলে।

এদিন তাঁর পুনরায় গ্রেফতারের আগে, মেভানি বলেন, এটি বিজেপি এবং আরএসএসের একটি গভীর ষড়যন্ত্র।

আদালত চত্বরের বাইরে মেভানী বলেন, "তারা (বিজেপি এবং আরএসএস) আমার ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য পরিকল্পিতভাবে এই ঘটনা ঘটাচ্ছে। একই জিনিস তারা রোহিত ভেমুলার সাথে করেছে, তারা চন্দ্রশেখর আজাদকে করেছে, এখন তারা আমাকে টার্গেট করছে।"

আসামের বিজেপি নেতার অভিযোগের ভিত্তিতে গুজরাট বিধায়ককে (বুধবার রাতে) তাঁর নিজ রাজ্য থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। মেভানির গ্রেপ্তারের পর থেকে, যিনি আগে কংগ্রেসকে বাইরের সমর্থনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, কংগ্রেস আসামের বিভিন্ন অংশে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন এবং মেভানীর গ্রেপ্তারকে 'ষড়যন্ত্র' বলে অভিহিত করেছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখতে কংগ্রেসের তরফে কোকড়াঝারে আইনি দল পাঠানো হয়েছে।

আসাম কংগ্রেসের প্রধান ভূপেন কুমার বোরা অভিযোগ করেছেন, এটি একটি ষড়যন্ত্র এবং পুলিশের 'গুন্ডাগিরি', যেখানে বিজেপি সরকার একটি সাধারণ টুইটের সাথে মোকাবিলা করতে রাজ্যের পুলিশ বাহিনীকে অপব্যবহার করেছে। অল ইন্ডিয়া ইউনাইটেড ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের একটি প্রতিনিধিদলও মেভানির সঙ্গে থানায় গিয়েছিলেন।

সিপিআই-এম বিধায়ক মনোরঞ্জন তালুকদার এবং স্বতন্ত্র বিধায়ক অখিল গগৈও থানায় মেভানির সাথে দেখা করেন।

৪১ বছর বয়সী এই আইনপ্রণেতার বিরুদ্ধে অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র, উপাসনালয় সম্পর্কিত অপরাধ, ধর্মীয় অনুভূতিতে ক্ষোভ প্রকাশ এবং শান্তি ভঙ্গের কারণ হতে পারে এমন উস্কানির অভিযোগ আনা হয়েছিল।

বিজেপি নেতা অরূপ কুমার দে অভিযোগ করেছিলেন যে মেভানির মন্তব্য "একটি নির্দিষ্ট সম্প্রদায়ের লোকদের একটি অংশকে উস্কে দিতে পারে"।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.