Gujarat: গুজরাটের মন্ত্রীর বিরুদ্ধে এক মহিলাকে আটক ও ধর্ষণের অভিযোগ, তদন্তে পুলিশ

গুজরাটের খেড়া পুলিশ রাজ্যের গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রী এবং মহমেদাবাদের বিজেপি বিধায়ক অর্জুন সিংহ চৌহানের বিরুদ্ধে এক মহিলাকে ধর্ষণ এবং বেআইনিভাবে আটকে রাখার অভিযোগের তদন্ত করবে৷
গুজরাটের মন্ত্রী অর্জুন সিং চৌহান
গুজরাটের মন্ত্রী অর্জুন সিং চৌহানফাইল ছবি সংগৃহীত

গুজরাটের খেড়া পুলিশ রাজ্যের গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রী এবং মহমেদাবাদের বিজেপি বিধায়ক অর্জুন সিংহ চৌহানের বিরুদ্ধে এক মহিলাকে ধর্ষণ এবং বেআইনিভাবে আটকে রাখার অভিযোগের তদন্ত করবে৷

খেড়া জেলার পুলিশ সুপার দিভি মিশ্র আইএএনএসকে জানিয়েছেন, "আমরা মেহমেদাবাদ তালুকের হালদারভাস গ্রামে বসবাসকারী এক ব্যক্তির কাছ থেকে একটি অভিযোগ পেয়েছি৷ পুলিশ প্রথমে আবেদনকারীর স্ত্রীকে ধর্ষণ এবং বেআইনিভাবে আটকে রাখার অভিযোগের প্রাথমিক তদন্ত করবে৷ অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলে ফৌজদারি পদ্ধতি অনুসরণ করা হবে।" বুধবার হালদারবাস গ্রামের প্রাক্তন সরপঞ্চ ডিএসপির কাছে একটি আবেদন জমা দেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রাক্তন সরপঞ্চ অভিযোগ করেছেন "রাজ্যের বর্তমান গ্রামীণ উন্নয়ন মন্ত্রী অর্জুন সিংহ চৌহান তাঁর স্ত্রীকে বেআইনিভাবে আটকে রেখেছিলেন এবং তাঁকে ধর্ষণ করেছিলেন।"

প্রাক্তন সরপঞ্চের অভিযোগ, "আমার স্ত্রী অর্জুন সিংহের সংস্পর্শে এসেছিলেন, যখন ২০১৫ সালে তিনি বিজেপির জেলা কমিটির সভাপতি ছিলেন। তিনি আমার স্ত্রীকে তালুকা পঞ্চায়েত প্রার্থী হিসাবে মনোনীত করেন এবং আমার স্ত্রী নির্বাচিত হন। এরপর ২০১৬ থেকে ২০২১ সালের মধ্যে অর্জুন সিংহ বিভিন্ন জায়গায় তাঁকে সভা-সমাবেশের নামে ডেকেছিলেন এবং বারবার ধর্ষণ করেন। এছাড়াও একাধিক প্রভাবশালী ব্যক্তির সঙ্গে তিনি আমার স্ত্রীকে শারীরিক সম্পর্ক তৈরি করতে বাধ্য করেন।

তিনি আরও জানিয়েছেন, "আমার স্ত্রী আমাকে বলেছিলেন কীভাবে ওই বিজেপি নেতা করোনা মহামারীর সময় শোষণ করেছিলেন। অর্জুন সিংহ তাঁকে অবৈধভাবে আটকে রেখেছিলেন এবং তাঁকে শোষণ করেছিলেন। আমি যখন আমার স্ত্রীকে চৌহানের বিরুদ্ধে ফৌজদারি অভিযোগ দায়ের করতে বলেছিলাম, তখন তিনি তা করতে অস্বীকার করেন এবং বলেন তিনি একজন শক্তিশালী ব্যক্তি এবং তিনি আমাদের পরিবারের ক্ষতি করতে পারেন।"

দুই মাস আগে তাঁর স্ত্রী বাড়ি ছেড়ে চলে যান এবং অন্য গ্রামে বসবাস করছেন বলে দাবি করেন প্রাক্তন সরপঞ্চ।

আইএএনএস এই বিষয়ে মন্ত্রী অর্জুন সিংহের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in