Gujarat: একাধিক নেতা বিধায়কের দলত্যাগ - তবু বিজেপির বিরুদ্ধে কঠিন লড়াই দিতে আত্মবিশ্বাসী কংগ্রেস

গুজরাট কংগ্রেস থেকে হার্দিক প্যাটেল সহ কিছু নেতার দলত্যাগের পর আরও কিছু বিধায়ক দলত্যাগ করতে পারেন বলে গুঞ্জন চলছে। যদিও এই বিষয়টিতে গুরুত্ব দিতে নারাজ দলের নীচুতলার কর্মীরা।
Gujarat: একাধিক নেতা বিধায়কের দলত্যাগ - তবু বিজেপির বিরুদ্ধে কঠিন লড়াই দিতে আত্মবিশ্বাসী কংগ্রেস
ছবি প্রতীকী ছবি সৌজন্য - ডেকান হেরাল্ড

গুজরাট কংগ্রেস থেকে হার্দিক প্যাটেল সহ কিছু নেতার দলত্যাগের পর আরও কিছু বিধায়ক দলত্যাগ করতে পারেন বলে গুঞ্জন চলছে। যদিও এই বিষয়টিতে গুরুত্ব দিতে নারাজ দলের নীচুতলার কর্মীরা। বরং তাঁরা আসন্ন রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনে জোর লড়াই দেবার বিষয়ে আত্মবিশ্বাসী। কঠোর দলের কর্মী ও নেতারা শাসক দলের বিরুদ্ধে কঠিন লড়াই দেওয়ার বিষয়ে আত্মবিশ্বাসী৷

কংগ্রেস সূত্র অনুসারে, বিজেপি আসন্ন নির্বাচনে কংগ্রেসকে পরাজিত করার জন্য সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালাবে এবং ২০২২ সালের ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য বিধানসভা নির্বাচনে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য সর্বশক্তি নিয়োগ করে লড়াই চালাবে। বিজেপি তার এই কৌশলে সফল হলেও, কংগ্রেস কঠিন লড়াই করতে বদ্ধপরিকর।

দলীয় সূত্রের খবর, সিনিয়র নেতাদের আশঙ্কা, দলের প্রায় জনা ছয়েক বিধায়ক, তিন থেকে চার রাজ্য স্তরের নেতা বিজেপি নেতৃত্বের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলছেন। নির্বাচনের আগে যে কোনো সময় তারা দল পরিবর্তন করতে পারেন। কংগ্রেসকে হতাশ করতে বিজেপি প্রতিটি জেলা এবং বড় শহরগুলিতে কয়েকজন নেতাকে নিজেদের দলে টানার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

রাজ্য বিধানসভার বিরোধী দলনেতা সুক্রাম রাথভা জানিয়েছেন, "কংগ্রেস বিধায়ক দলে কোন মতবিরোধ নেই। আমি ব্যক্তিগতভাবে দলের প্রতি বিধায়কের সাথে যোগাযোগ রাখছি, তাই আমি কোনও বিধায়কের পদত্যাগ করার কোনও কারণ দেখি না। যদি না তিনি দলের সমর্থনে নিজের জয়ের বিষয়ে আত্মবিশ্বাসী না হন৷ দলের রাজ্য নেতারা তাদের সমস্যাগুলি সমাধান করার চেষ্টা করছেন এবং এর জন্য রাজ্য স্তরের নেতারা তাদের সাথে আলাদাভাবে বৈঠক করছেন।"

বিশিষ্ট কংগ্রেস নেতা অর্জুন মোধওয়াদিয়া জানিয়েছেন, কংগ্রেস সদস্য এবং একনিষ্ঠ নেতা কর্মীরা দলের যেকোনো সংকট কাটিয়ে উঠতে সক্ষম। দল থেকে সম্ভাব্য গণ বহিষ্কারের প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানিয়েছেন: "এটি সম্পূর্ণ অনুমানমূলক প্রশ্ন। তবুও আমি বলব যে দল ইন্দিরা গান্ধী এবং রাজীব গান্ধীর মতো নেতৃত্বের দুর্ভাগ্যজনক অকাল মৃত্যুকে কাটিয়ে উঠেছে তাদের কাছে এগুলি খুব ছোট সমস্যা। অতীতে অনেকেই চলে গেছেন এবং এখনও কেউ কেউ চলে গেলে খুব কমই পার্থক্য হবে। এই প্রচার গত দু’দশক ধরে বিজেপি চালাচ্ছে এবং প্রতিটি নির্বাচনেই কংগ্রেস গত নির্বাচনের থেকে ভালো পারফর্ম করেছে।"

শুধু রাথভা বা মোধওয়াদিয়া নয়, এমনকি জেলা পর্যায়ের নেতা ও কর্মীরা বিজেপির চোরা শিকারের পাল্টা কৌশল নিয়ে প্রস্তুত। আমরেলি জেলা কংগ্রেস কমিটির সভাপতি ধীরাজলাল রায়নি আত্মবিশ্বাসী যে চার বর্তমান বিধায়কের কেউই দল ছাড়বেন না, কারণ সকলের পুনরায় মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা আছে।

রায়ানি আরও বলেন, এমন অপপ্রচারের পরেও সম্প্রতি কয়েকজন নেতা দল ছেড়েছেন এবং যার পরেও কর্মীদের মনোবল কমেনি। দু'দিন আগে, আমরেলিতে কর্মসংস্থানের দাবিতে একটি বিক্ষোভ সংগঠিত হয়েছিল যাতে কমপক্ষে ৭০০ থেকে ১০০০ শ্রমিক অংশ নিয়েছিল। মঙ্গলবার সাভারকুন্ডলা সিটি ওয়ার্কিং কমিটির সভায় আড়াইশ সদস্য উপস্থিত ছিলেন। তিনি আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে বলেন, এমনকি যদি বিজেপি আরও কয়েকজন নেতাকে দলে টানতে সক্ষম হয়, তবুও পার্টি কর্মীদের মধ্যে তার সামান্যই প্রভাব পড়বে।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in