৪৫ থেকে ৫৮ শতাংশ পর্যন্ত বাড়লো সারের দাম, মাথায় হাত কৃষকদের, প্রতিবাদে মহম্মদ সেলিম

রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন এবং কেন্দ্রীয় কৃষি আইনের প্রতিবাদে দেশজুড়ে কৃষকদের প্রতিবাদ আন্দোলনের মাঝেই দেশের সর্ববৃহৎ সার বিক্রেতা ইফকো সারের দাম ৪৫ থেকে ৫৮ শতাংশ বাড়িয়েছে।
৪৫ থেকে ৫৮ শতাংশ পর্যন্ত বাড়লো সারের দাম, মাথায় হাত কৃষকদের, প্রতিবাদে মহম্মদ সেলিম
মহম্মদ সেলিমের ট্যুইটের সৌজন্যে

রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন এবং কেন্দ্রীয় কৃষি আইনের প্রতিবাদে দেশজুড়ে কৃষকদের প্রতিবাদ আন্দোলনের মাঝেই দেশের সর্ববৃহৎ সার বিক্রেতা ইফকো সারের দাম ৪৫ থেকে ৫৮ শতাংশ বাড়িয়েছে। শুক্রবার এক ট্যুইট বার্তায় একথা জানিয়েছেন সিপিআই(এম) পলিটব্যুরো সদস্য মহম্মদ সেলিম।

একদিকে পশ্চিমবঙ্গ-সহ পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচন, অন্যদিকে কেন্দ্রীয় সরকারের কৃষি আইনের বিরুদ্ধে দেশজুড়ে কৃষকদের বিক্ষোভ আন্দোলন - এই দুইয়ের মাঝেই দেশের বৃহত্তম সার বিক্রেতা ভারতীয় কৃষক সার সমবায় (আইএফএফসিও) সারের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে অনেকটাই। নতুন দাম কার্যকর হয়েছে ১ এপ্রিল থেকে। নতুন দামে মাথায় হাত পড়েছে চাষিদের।

একটা হিসাব তুলে ধরা যাক। ইউরিয়ার পর ভারতে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয় ডি-অ্যামোনিয়াম ফসফেট (ডিএপি)। ৫০ কেজি ডিএপি কিনতে কৃষকদের খরচ করতে হবে ১,৯০০ টাকা, যা বর্তমান মূল্যের তুলনায় ৫৮ শতাংশ বেশি। এর দাম ছিল ১২০০ টাকা।

আইএফএফসিও বিভিন্ন জনপ্রিয় জটিল সারের এনপিকেএস (নাইট্রোজেন, ফসফরাস, পটাশ এবং সালফার) অনুপাতের সঙ্গে খুচরো দামও বাড়িয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে ১০:২৬:২৬ (১১৭৫ থেকে ১৭৭৫/ব্যাগ), ১২:৩২:১৬ (১১৮৫ থেকে ১৮০০/ব্যাগ পর্যন্ত) এবং ২০:২০:০:১৩ (৯২৫ থেকে ১৩৫০ / ব্যাগ পর্যন্ত)।

আইএফএফসিওর এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, ইউরিয়াহীন সারের দাম নাগালের বাইরে চলে গিয়েছে। আন্তর্জাতিক মূল্যবৃদ্ধির দরুণ এভাবে দাম বেড়েছে। ভারতে আমদানিকৃত ডিএপির দাম এখন প্রতি টন প্রায় ৫৪০ ডলার, অক্টোবরে ছিল ৪০০ ডলারেরও কম। একইভাবে অ্যামোনিয়া এবং সালফারের দামও প্রতি টনে প্রায় ২৮০ ডলার থেকে ৫০০ এবং ৮৫ ডলার থেকে বেড়ে ২২০ ডলারে দাঁড়িয়েছে। এমনকী ইউরিয়া এবং মুরিয়েট পটাসের দাম এই সময়ের মধ্যে যথাক্রমে ২৭৫ ডলার থেকে ৩৮০ এবং ২৩০ থেকে ২৮০ ডলারে দাঁড়িয়েছে।

এই মূল্যবৃদ্ধির সঙ্গে রাজনৈতিক কোনও যোগ না থাকলেও আগামী খরিফ শস্য মরশুমে শস্য উৎপাদনে এবং সার কেনার ক্ষেত্রে যথাযথ সহায়তা করতে না পারলে মোদির সরকার যথেষ্ট সমস্যায় পড়বে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in