ECI: ২০১৯ লোকসভা ভোটের সময় থেকে 'ঘৃণাসূচক বক্তব্যের' বিরুদ্ধে ১৩০টি অভিযোগ পেয়েছে নির্বাচন কমিশন

তথ্য অনুসারে, সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলিতে ঘৃণাসূচক বক্তব্য সংক্রান্ত সর্বাধিক (৫৯) অভিযোগ ২০১৯ লোকসভা ভোটের সময় করা হয়। ২০২০ দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনের সময় ৩৪টি এই জাতীয় ঘটনা রিপোর্ট করা হয়।
নির্বাচন কমিশন
নির্বাচন কমিশনফাইল ছবি সংগৃহীত

গত কয়েক বছরে ভোটের সময় বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে 'ঘৃণাসূচক বক্তব্যের' বিরুদ্ধে মোট ১৩০টি অভিযোগ পেয়েছে নির্বাচন কমিশন৷

নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুসারে, সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলিতে ঘৃণামূলক বক্তব্য সংক্রান্ত সর্বাধিক (৫৯) অভিযোগ ২০১৯ লোকসভা ভোটের সময় করা হয়েছিল। এরপর, ২০২০ দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনের সময় মোট ৩৪ টি এই জাতীয় ঘটনার রিপোর্ট করা হয়।

২০২১ সালে, আসাম, পশ্চিমবঙ্গ, তামিলনাড়ু, কেরালা এবং পুদুচেরি বিধানসভা নির্বাচনের সময় সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে ঘৃণাত্মক বক্তব্যের মোট ২৯টি ঘটনা কমিশনে রিপোর্ট করা হয়েছিল। একইভাবে, গোয়া, মণিপুর, পাঞ্জাব, উত্তরাখণ্ড এবং উত্তরপ্রদেশের ২০২২ সালের বিধানসভা নির্বাচনে এই ধরনের মোট ৮টি ঘটনার অভিযোগ জমা পড়েছে।

এই ধরণের একাধিক ঘটনার পর, ইন্টারনেট অ্যান্ড মোবাইল অ্যাসোসিয়েশন অফ ইন্ডিয়া (IAMAI)-এর অধীনে সমস্ত প্রধান সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলি একত্রিত হয় এবং ২০১৯ সালের সাধারণ নির্বাচনের সময় একটি "ভলান্টারি কোড অফ এথিকস"-এ পারস্পরিকভাবে সম্মত হয়৷

কোডটি ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচন সময় থেকে কার্যকর হয়৷ এর পরে অনুষ্ঠিত সমস্ত বিধানসভা নির্বাচনের জন্য, সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলির অবাধ, সুষ্ঠু এবং নৈতিক ব্যবহার নিশ্চিত করতে এবং নির্বাচনী প্রক্রিয়ার অখণ্ডতা বজায় রাখার জন্য তৈরি করা হয়েছে। মধ্যস্থতাকারী প্ল্যাটফর্মগুলি ভোটার শিক্ষা এবং সচেতনতার জন্য তাদের দায়িত্ব পালনের জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

নির্বাচন কমিশন, "ভলান্টারি কোড অফ এথিকস" অনুসরণ করে, এমসিসি, আরপিএ, আইপিসি এবং অন্যান্য বিধানের বিভিন্ন বিধান অনুসারে নির্বাচনের সময় নির্বাচনী আইন অনুসারে আপত্তিজনক সামগ্রী (লিঙ্ক, ভিডিও, পোস্ট, টুইট) সরিয়ে ফেলার জন্য বেশ কয়েকটি সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মকে নির্দেশ দেয়।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in