“চাল পাচ্ছেন না! মরে যান, আমাকে ফোন করবেন না” - কর্নাটকের খাদ্যমন্ত্রীর জবাবে শোরগোল

ওই কৃষক রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী উমেশ কাট্টিকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন, কবে থেকে তাঁরা বরাদ্দ খাদ্যশস্য পাবেন? তাতে মন্ত্রী যা উত্তর দেন, তা নিয়েই শোরগোল পড়েছে।
“চাল পাচ্ছেন না! মরে যান, আমাকে ফোন করবেন না” - কর্নাটকের খাদ্যমন্ত্রীর জবাবে শোরগোল
খাদ্যমন্ত্রী উমেশ কাট্টিছবি- ডেকান হেরাল্ড

কোভিড পরিস্থিতি, লকডাউন সব মানুষকে নানা অভিজ্ঞতার মুখোমুখি দাঁড় করিয়েছে। এই অবস্থায় গত এক বছরে অর্থনৈতিক অবস্থা আরও খারাপ হয়েছে। সবথেকে খারাপ অবস্থা দিন আনি, দিন খাই মানুষদের। গরিব মানুষ আরও গরিব হয়েছে। পুঁজিপতি শিল্পপতিরা আর মধ্যেও মুনাফা লুটেছে। এরইমধ্যে এক কৃষক এক মন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে এমন এক অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হলেন, যা জীবদ্দশায় শুনতে হবে বলে স্বপ্নেও ভাবেননি তিনি।

ওই কৃষক রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী উমেশ কাট্টিকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন, কবে থেকে তাঁরা বরাদ্দ খাদ্যশস্য পাবেন? তাতে মন্ত্রী যা উত্তর দেন, তা নিয়েই শোরগোল পড়েছে। দু'জনের কথোপকথনের অডিও প্রকাশ্যে চলে আসার পর আবার সাফাইও গেয়েছেন মন্ত্রী। তাতে অবশ্য সাধারণ মানুষ গলছেন না। ঘটনাটি বিজেপি শাসিত কর্নাটকের।

অডিও রেকর্ডে শোনা যাচ্ছে কৃষক বলছেন, স্যার এখন (রেশনে চালের পরিমাণ) ২ কেজি করে দিলেন। এতে চলবে কীভাবে? উত্তরে মন্ত্রী বলেন, সরকার ৩ কেজি করে রাগিও দিচ্ছে। কিন্তু তা উত্তর কর্নাটকের রেশনে পাওয়া যাচ্ছে না বলে ওই কৃষক জানান। মন্ত্রী বলেন, মে-জুন মাসে কেন্দ্রীয় সরকার ৫ কেজি করে চাল বা গম দেবে। কৃষকের পালটা প্রশ্ন, আপনারা কবে দেবেন? মন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি, আগামী মাস থেকেই দেওয়া হবে। তখন ওই কৃষক বলেন, ততদিন কি আমরা না খেয়ে থাকব, না মরে যাব? মন্ত্রী উমেশ কাট্টি এবার বলে বসেন, মরে যাওয়াই ভালো। আসলে এই কারণেই আমরা খাদ্যশস্য দেওয়া বন্ধ করে দিয়েছি। আমাকে আর ফোন করবেন না।

এই অডিও প্রকাশ্যে আসার পর নানা মহল থেকে ওই মন্ত্রীকে বরখাস্ত করার জন্য মুখ্যমন্ত্রী বিএস ইয়েদুরাপ্পার কাছে দাবি জানানো হচ্ছে। সমালোচনার ঝড় শুরু হয়েছে বিরোধী কংগ্রেস শিবিরে। কংগ্রেস নেতা ডিকে শিবকুমার সরকারের সমালোচনা করেন। সাফাই দিতে গিয়ে উমেশ কাট্টি ফের বিতর্কিত মন্তব্য করেন, কেউ ঠিকঠাক প্রশ্ন করলে তার ঠিকঠাক উত্তর পাবেন। যদিও ইয়েদুরাপ্পার কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in