Delhi: 'মস্ত বড় ভুল করেছি' - বিকালে AAP-এ যোগ দিয়ে ভোররাতে কংগ্রেসে ফিরে এলেন কাউন্সিলর

'ঘর ওয়াপসি' (Ghar wapsi)-র পর ট্যুইটারে এক ভিডিও বার্তায় ক্ষমা চেয়ে দিল্লি কংগ্রেসের সহ-সভাপতি আলি মেহেদি বলেন 'মস্ত বড় ভুল করে ফেলেছি।' সঙ্গে তিনি জানান 'আমি রাহুল গান্ধীর সৈনিক।'
কংগ্রেসের সহ-সভাপতি আলি মেহেদি
কংগ্রেসের সহ-সভাপতি আলি মেহেদিছবি - ট্যুইটার

শুক্রবার, বিকালে কংগ্রেস (Congress) ছেড়ে আম আদমি পার্টিতে যোগ দিয়েছেলেন ৩ কাউন্সিলার। আর, কয়েক ঘন্টা না পেরোতেই 'ভুল ভেঙেছে' তাঁদের। ভোর রাতেই তাঁরা আবার ফিরেছে পুরানো দলে (কংগ্রেস)।

রাতারাতি 'ঘর ওয়াপসি' (Ghar wapsi)-র পর ট্যুইটারে এক ভিডিও বার্তায় ক্ষমা চেয়ে দিল্লি কংগ্রেসের সহ-সভাপতি আলি মেহেদি বলেন 'মস্ত বড় ভুল করে ফেলেছি।' সঙ্গে তিনি জানান 'আমি রাহুল গান্ধীর সৈনিক।'

মেহেদী বলেন, মুস্তাফাবাদের (২৪৩ নম্বর ওয়ার্ডের) নবনির্বাচিত কাউন্সিলর সাবিলা বেগম এবং ব্রিজপুরীর (২৪৫ নম্বর ওয়ার্ড) নবনির্বাচিত কাউন্সিলর নাজিয়া খাতুন, যারা তাঁর সাথে AAP-তে যোগ দিয়েছিলেন, তারাও পুনরায় কংগ্রেসে ফিরেছেন।

শনিবার, ভোররাতে (১ টা ২৫ মিনিটে) পোস্ট করা ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে, মেহেদি হাত জোড় করে বার বার ক্ষমা চাইছেন। আর বলছেন, 'আমি মস্ত বড় ভুল করে ফেলেছি।' কংগ্রেসের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করে বলেন, 'আমার বাবা ৪০ বছর ধরে কংগ্রেসে রয়েছেন।'

ভিডিও বার্তার পর ট্যুইটারে মেহদি লেখেন, 'কোনও পদ চাই না আমার। শুধু কংগ্রেসের জন্য কাজ করতে চাই। মস্ত বড় ভুল করে ফেলেছি। হাতজোড় করে ক্ষমা চাইছি তার জন্য। রাহুল গান্ধী, সনিয়া গান্ধী প্রিয়ঙ্কা গান্ধী, দলের কর্মী এবং এলাকাবাসীর কাছে ক্ষমা চাইছি। আমি রাহুল গান্ধী, প্রিয়ঙ্কা গান্ধী এবং কংগ্রেসিদের সৈনিক। চিরকাল কংগ্রেসিই থাকব।'

তাহলে ঠিক কি কারণে দল বদল করেছেন তাঁরা?

সেই প্রশ্নের উত্তর নিজেই দিয়েছেন আলি মেহেদি। তিনি বলেন, 'আমি আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েছিলাম... AAP-তে যোগ দেওয়ার পরে আমি বুঝতে পেরেছিলাম যে তারা উন্নয়ন কাজের জন্য তহবিল দিতে পারে, কিন্তু সংখ্যালঘু ইস্যুতে তাদের অবস্থান পরিবর্তন হয়নি। আমার নির্বাচনী এলাকার মানুষ আমাকে বলেছে যে, আমাদের লড়াই কেবল উন্নয়নের জন্য নয়, বেঁচে থাকার জন্যও।'

প্রসঙ্গত, শুক্রবার, সন্ধায় মেহদিসহ বাকি ২ কাউন্সিলর AAP-এ যোগদান করার পরেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন কংগ্রেস নেতাকর্মীরা। উত্তর-পূর্ব দিল্লির মুস্তাফাবাদ, ব্রিজপুরি এলাকায় বিক্ষোভে নামেন কংগ্রেস কর্মী-সমর্থকরা। কংগ্রেস নেতা অজয় মাকেন, দলের সোশ্যাল মিডিয়া অধ্যক্ষ মনু জৈনও মেহদির সমালোচনায় মুখ খুলে তাঁকে 'বিষধর সাপ', 'দলবদলু' বলেও উল্লেখ করেন। এরপরই পরিস্থিতি বেগতিক বুঝে ভোর ভোর কংগ্রেসে ফেরার সিদ্ধান্ত নেন মেহদি।

কংগ্রেসের সহ-সভাপতি আলি মেহেদি
Electoral Bond: গুজরাট-হিমাচলের নির্বাচনে ৬৭৬ কোটি টাকা সংগ্রহ করেছে রাজনৈতিক দলগুলি: RTI

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
logo
People's Reporter
www.peoplesreporter.in