Congress: কংগ্রেসের ‘আত্মসমীক্ষা’ প্রয়োজন, আজাদের দলত্যাগের পর এবার সরব মণীশ তেওয়ারি

মণীশ তেওয়ারি বলেন, '৪২ বছর ধরে আমরা কংগ্রেসম্যান হিসাবে আছি। এই প্রতিষ্ঠানে (কংগ্রেস) আমরা ভাড়াটে নই, আমরা সদস্য। এখন কেউ যদি আমাদের ঠেলে দেওয়ার চেষ্টা করেন, এটা অন্য বিষয়।’
কংগ্রেসের বিরুদ্ধে এবার সরব মণীশ তিওয়ারি
কংগ্রেসের বিরুদ্ধে এবার সরব মণীশ তিওয়ারিফাইল ছবি

কংগ্রেসের ‘আত্মসমীক্ষা’ প্রয়োজন। মনে হচ্ছে, ভারত ও কংগ্রেসের মধ্যে একটি ‘ফাটল’ দেখা দিয়েছে। শুক্রবার, গুলাম নবী আজাদ কংগ্রেস থেকে পদত্যাগের পরেই এমনই প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন কংগ্রেস সাংসদ মণীশ তেওয়ারি।

সংবাদ সংস্থা IANS-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে পাঞ্জাবের আনন্দপুর সাহিবের সাংসদ বলেন, ‘এখন মনে চলমান ভারত ও কংগ্রেসের মধ্যে সমন্বয়ের অভাব দেখা দিয়েছে। দুই অংশের মধ্যে একটি ফাটল দেখা দিয়েছে। তাই কংগ্রেসের এখন আত্ম-সমীক্ষা প্রয়োজন।’

এরপরেই, দুই বছর আগে কংগ্রেস হাইকমান্ডের একটি বৈঠকের কথা টেনে মণীশ তেওয়ারি বলেন, ‘দল যদি ২০২০ সালের ২০ ডিসেম্বর সোনিয়া গান্ধীর বাসভবনে হওয়া জি-২৩ (G-23) গ্রুপের পরামর্শ মানত, তাহলে বর্তমানে এই পরিস্থিতি তৈরি হত না।’

তেওয়ারি বলেন, ‘দুই বছর আগে ২৩ জন কংগ্রেস নেতা সোনিয়া গান্ধীকে লিখিতভাবে জানিয়েছিলেন যে, দলের পরিস্থিতি উদ্বেগজনক এবং বিষয়টিকে গুরুত্ব সহকারে নেওয়া উচিত। এরপর কংগ্রেস সমস্ত বিধানসভা নির্বাচনে হেরেছে। ভারত ও কংগ্রেস - বরাবর একই রকম চিন্তা করে থাকে। কিন্তু, এখন মনে হচ্ছে অন্যরকম চিন্তা শুরু করেছে।’

এদিন, গুলাম নবী আজাদের দলত্যাগ নিয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাননি মনীশ তেওয়ারি। তবে, কংগ্রেসের অন্দরে আজাদকে নিয়ে সমালোচনার ঝড় ওঠায়, সমালোচকদের একহাত নেন তিনি। কংগ্রেস সাংসদ বলেন, ‘এটা হাস্যকর বিষয়। যাদের ওয়ার্ড ভোটে লড়াই করার ক্ষমতা নেই, তারা এখন ‘জ্ঞান’ দিচ্ছেন।’

তিওয়ারি বলেন, ‘আমি আজাদের চিঠির বিষয়ের মধ্যে যেতে চাই না। তিনিই এই বিষয়ে ভালো ব্যাখ্যা দিতে পারবেন। কিন্তু আশ্চর্যের বিষয়, যাদের ওয়ার্ডের ভোটে লড়াই করার ক্ষমতা নেই, কংগ্রেস নেতাদের ‘চাপরাসি’ ছিলেন, এমন লোকেরা পার্টি সম্পর্কে ‘জ্ঞান’ দিচ্ছেন। এটি হাস্যকর বিষয়।’

২০২০ সালে যে ২৩ জন শীর্ষ কংগ্রেস নেতা দলের সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীকে চিঠি লিখে সাংগঠনিক পরিবর্তন চেয়েছিলেন, তাঁদের মধ্যে মণীশ তেওয়ারিও ছিলেন। সদ্য দল ত্যাগ করা গুলাম নবি আজাদও এই দলে ছিলেন।

প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মণীশ তেওয়ারি এদিন নিজের ক্ষোভ উগরে বলেন, ‘৪২ বছর ধরে আমরা কংগ্রেসম্যান হিসাবে আছি। এজন্য কারও কাছ থেকে কোনও ‘শংসাপত্রের’ প্রয়োজন নেই। আমি এটি আগেও বলেছি। এই প্রতিষ্ঠানে (কংগ্রেস) আমরা ভাড়াটে নই, আমরা সদস্য। এখন কেউ যদি আমাদের ঠেলে দেওয়ার চেষ্টা করেন, এটা অন্য বিষয়।’

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in