Bihar: ‘আমাদের উদ্দেশ্য স্পষ্ট’, বিহারে জাতি ভিত্তিক জনগণনা নিয়ে দাবি নীতিশ কুমারের

মোদীকে নিশানা করে তিনি প্রশ্ন তোলেন, 'যদি কোনো রাজ্যে দারিদ্র্য থাকে, আপনি তা দূর করবেন, তাই না?'
বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার
বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার ফাইল ছবি সংগৃহীত

দীর্ঘদিন ধরেই জাতি ভিত্তিক জনগণনার দাবি জানিয়েছিলেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী তথা জেডিইউ নেতা নীতিশ কুমার (Nitish Kumar)। শনিবার, সেই দাবি মেনে শুরু হয়েছে গণনা।

এ নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ বলেন, 'রাজ্য সরকারের উদ্দেশ্য স্পষ্ট। এই জাতি ভিত্তিক শুমারি থেকে উপকৃত হবেন সমাজের সমস্ত শ্রেণির মানুষই। এই গণনার উদ্দেশ্য হল সমস্ত সম্প্রদায়ের আর্থিক পরিস্থিতির একটি স্পষ্ট অনুমান পাওয়া। যাতে সেই তথ্য অনুযায়ী তাঁদের উন্নয়নমূলক কাজে সহায়তা করতে পারে এবং, কেন্দ্রকে তার 'সবকা সাথ সবকা বিকাশ' (সবাইকে সাথে নিয়ে সকলের উন্নয়ন) করার জন্য সঠিক তথ্য দিতে পারে।

মোদীকে নিশানা করে তিনি প্রশ্ন তোলেন, 'যদি কোনো রাজ্যে দারিদ্র্য থাকে, আপনি তা দূর করবেন, তাই না?'

এক সাক্ষাৎকারে NDTV-কে তিনি জানান, 'আমরা শুরু থেকেই দাবি করে আসছি যে, সারা দেশে জাতিভিত্তিক আদমশুমারি করা উচিত। যাতে বিভিন্ন জাতির লোকদের উন্নয়নমূলক কাজে সহায়তা করা জন্য তাদের অবস্থা সম্পর্কে তথ্য পাওয়া যায়।'

তিনি আরও বলেন, '২০১১ সালের আদমশুমারির পরে, সরকার একটি জাত ভিত্তিক গণনা পরিচালনা করেছিল। কিন্তু এটি সঠিকভাবে হয়নি এবং তা প্রকাশও করা হয়নি। আমরা আবার এটি সঠিকভাবে করতে বলেছিলাম, কিন্তু তারা রাজি হননি।'

নীতিশ কুমার জানান, বিহারের সব দল একসঙ্গে বসে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তিনি দাবি করেন, 'আমরা সকলেই প্রধানমন্ত্রীর সাথে দেখা করে আমাদের মতামত জানিয়েছিলাম। কেন্দ্র জানায়, তারা জাতি ভিত্তিক আদমশুমারি করবে না, তবে কোনও রাজ্য যদি এটি করতে চায়, তবে তারা এব্যাপারে স্বাধীন। তাই আমরা 'জাতি আধারিত গণনা' (জাতি-ভিত্তিক প্রধান গণনা) করছি।'

তিনি আরও বলেন, 'জাতি ভিত্তিক গণনায় আসলে সমস্ত জাতি ও ধর্মের মানুষদের গণনা করা হবে। সঠিক ভিত্তিতে যাতে জাতি শুমারি হয়, তার জন্য আধিকারিকদের সঠিক প্রশিক্ষণও দেওয়া হয়েছে।'

সরকারি সূত্রে খবর, দুই ধাপে এই জাতি ভিত্তিক শুমারি বা জনগণনা করা হবে। আগামী ২১ জানুয়ারির মধ্যে প্রথম দফার গণনা শেষ হবে। এতে রাজ্যে কত পরিবার রয়েছে, তা গণনা করা হবে।

জনগণনার দ্বিতীয় ধাপ শুরু হবে মার্চ মাস থেকে। এতে রাজ্যের সমস্ত নাগরিকদের জাতি, বর্ণ ও ধর্মের ভিত্তিতে বিভাজিত তালিকা তৈরি করা হবে। ২০২৩ সালের মে মাসের মধ্যে এই জাতি শুমারির কাজ সম্পূর্ণ শেষ হয়ে যাবে। আর, জাতি ভিত্তিক গণনার জন্য সরকারের ৫০০ কোটি টাকা খরচ হবে।

আরও পড়ুন

বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার
Bihar: বিরোধীদের ঐক্যবদ্ধ করতে দেশব্যাপী পদযাত্রা করবেন নীতিশ কুমার
বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার
Bihar: ২০২৫ সালে নেতৃত্ব দেবেন তেজস্বী যাদব, ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমারের

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in