Bharat Jodo Yatra: ১০০ কিলোমিটার পার, রাহুলের প্রসংসায় পঞ্চমুখ শিবসেনা

শিবসেনা জানিয়েছে, 'রাহুল গান্ধী এই যাত্রার মাধ্যমে মানুষের কাছে বেকারত্ব, কৃষক, শ্রমিক, ছোট এবং মাঝারি শিল্পের সমস্যার কথা তুলে ধরছেন। অন্যদিকে, বিজেপির 'পেট ব্যাথা' করছে।'
রাহুলের প্রসংসায় পঞ্চমুখ শিবসেনা
রাহুলের প্রসংসায় পঞ্চমুখ শিবসেনাফাইল ছবি

'ভারত জোড়ো যাত্রা'-র ষষ্ঠ (৬) দিনে ১০০ কিলোমিটারের ফলক ছুঁয়েছে কংগ্রেস। মঙ্গলবার, টুইট বার্তায় সেকথা উল্লেখ করে রাহুল গান্ধী লিখেছেন - 'আমরা সবে শুরু করেছি।'

প্রায় ৩,৫৭০ কিলোমিটারের দীর্ঘ যাত্রাপথ নিয়ে কংগ্রেস আগেই জানিয়েছে, রাহুল গান্ধীর নেতৃত্বে এই যাত্রা পথ হবে শতাব্দীর 'দীর্ঘতম পদযাত্রা'

আর, এই যাত্রাপথ নিয়ে কংগ্রেস এবং রাহুল গান্ধীর প্রশংসা করেছে একদা চরম বিরোধী রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ শিবসেনা। মঙ্গলবার, দলীয় মুখপত্র 'সামানা'-তে শিবসেনা বলেছে, 'ভারতীয় জনতা পার্টি (BJP)-র উচিত, রাহুল গান্ধীর পোশাক নিয়ে কটাক্ষ না করে তাঁর উত্থাপিত প্রশ্নের জবাব দেওয়া।'

'সামনা'-তে বলা হয়েছে, 'কংগ্রেস নেতা তাঁর চলমান যাত্রাপথে যে জ্বলন্ত প্রশ্নগুলি তুলেছেন, দেখে মনে হচ্ছে তা বিজেপির মুখ বন্ধ করে দিয়েছে।'

মারাঠি পত্রিকাটিতে আরও বলা হয়েছে, 'রাহুল গান্ধীর এই যাত্রা মানুষের কাছ থেকে ভাল সাড়া পাচ্ছে। তিনি মানুষের কাছে বেকারত্ব, কৃষক, শ্রমিক, ছোট এবং মাঝারি শিল্পের সমস্যার কথা তুলে ধরছেন। আর জ্বলন্ত প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার পরিবর্তে, রাহুল কী খান, কী পোশাক পরেন - এই বিষয়গুলি তুলে বিজেপি ফালতু আক্রমণের আশ্রয় নিচ্ছে।'

সামনা-তে বলা হয়েছে, কংগ্রেসের যাত্রা একদিকে মানুষের মধ্যে সচেতনতা গড়ে তুলছে। অন্যদিকে, বিজেপির 'পেট ব্যাথা' করছে।

একদা, কংগ্রেস, গান্ধী পরিবার এবং কংগ্রেসের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের প্রবল সমালোচনা করেছে সামনা। এবার, তাতেই বিজেপিকে নিশানা করে কংগ্রেস নিয়ে 'ভিন্নমত' পোষণ করেছে শিবসেনা। মঙ্গলবার, সামনা-তে লেখা হয়েছে, 'এই ভারত জোড়ো যাত্রা দেশে বিরাজমান 'ঘৃণার পরিবেশ মেরামত' করবে।'

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার, 'ভারত জোড়ো যাত্রা' নিয়ে একই দাবি করেন রাহুল। টুইটারে তিনি জানান, 'গত আট বছরে দেশকে ভাগ করে বিজেপি যে ক্ষতি করেছে, এই যাত্রার মাধ্যমে তা পূরণ করার চেষ্টা করছে কংগ্রেস।'

মঙ্গলবার সকালে কেরালার তিরুবনন্তপুরমের কানিয়াপুরম (Kaniyapuram) থেকে 'ভারত জোড় যাত্রা' শুরু করেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। দিনের শেষে, রাত ৮ নাগাদ তা শেষ হয় কাল্লামবালাম (Kallambalam)-এ। রাত ৮ টা ৩০ মিনিট নাগাদ সেখানেই, জনসভা করেন রাহুল গান্ধী।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in