Agnipath Scheme: ‘পাবজির মতো আমাদের নিয়ে খেলছে সরকার, ‘অগ্নিপথ’-এর বিরোধিতায় বিক্ষোভ যুবকদের

কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং যে ‘অগ্নিপথ’ প্রকল্পের ঘোষণা করেছেন, তাতে বছরে ৪৫ থেকে ৫০ হাজার যুবক ‘অগ্নিবীর’ হিসাবে নিয়োগ পাবেন সেনাবাহিনীতে। এটি হবে চুক্তিভিত্তিক, মাত্র ৪ বছরের জন্য।
Agnipath Scheme: ‘পাবজির মতো আমাদের নিয়ে খেলছে সরকার, ‘অগ্নিপথ’-এর বিরোধিতায় বিক্ষোভ যুবকদের
চলছে বিক্ষোভছবি সংগৃহীত

মাত্র চার বছরের চুক্তিতে সেনাবাহিনীতে নিয়োগের জন্য ‘অগ্নিপথ’ প্রকল্পের ঘোষণা করেছে কেন্দ্র সরকার। কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমেছে দেশের জনগণ। বিহারের পাটনা, মুজাফফরপুর এবং বক্সারে শুরু হয়েছে বিক্ষোভ।

দু’বছর ধরে দেশে সেনা নিয়োগ বন্ধ। ভারতীয় সেনাবাহিনীতে শূন্যপদ রয়েছে দেড় লক্ষের অধিক। এই অবস্থায়, গত মঙ্গলবার স্বল্পমেয়াদী চুক্তিতে সেনা নিয়োগের জন্য ‘অগ্নিপথ’ প্রকল্পের ঘোষণা করেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং। যা নিয়ে বিতর্ক দেখা দিয়েছে। সামরিক বিশেষজ্ঞরা বিষয়টিকে ‘আত্মঘাতী’ পদক্ষেপ বলে মন্তব্য করেছেন।

কেন্দ্রের ‘অগ্নিপথ’ প্রকল্পের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নেমেছেন চাকরী প্রার্থীরা। মুজাফফরপুরের জাতীয় সড়ক এবং বক্সারের রেলপথ অবরোধ করেছেন তাঁরা। বিক্ষোভ থেকে তাঁরা আওয়াজ তুলছেন - ‘ভারতী দো ইয়া আরতি দো’ অর্থাৎ, চাকরি দিন নাহলে আমাদের মেরে ফেলুন।

জানা যাচ্ছে, বিক্ষোভ চলাকালীন মুজাফফরপুরের ২৮ নম্বর জাতীয় সড়কে টায়ার ও হোডিং পুড়িয়েছেন আন্দোলনকারীরা। একই দৃশ্য দেখা গেছে বক্সারের রেল স্টেশনের কাছেও।

সংবাদমাধ্যমের সামনে এক আন্দোলনকারী বলেন, ‘সরকার আমাদের সাথে PUBG-এর মতো একটি খেলা খেলছে।’ অন্য আরেক আন্দোলনকারী জানান, ‘কেন্দ্র যখন দু বছর ধরে নিয়োগ আটকে রেখেছিল, তখন কিছুই বলেন নি কোনও বিজেপি নেতা।’

বক্সারে এক আন্দোলনকারী সাংবাদিকদের সামনে প্রশ্ন তোলেন, ‘যেখানে একজন সাংসদ বা বিধায়ক পাঁচ বছরের মেয়াদ পান, সেখানে আমরা মাত্র চার বছরে কী করব?’

কি জন্য বিক্ষোভ, বিতর্ক কেন্দ্রের ‘অগ্নিপথ’ প্রকল্প ঘিরে?

কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং যে ‘অগ্নিপথ’ প্রকল্পের ঘোষণা করেছেন, তাতে বছরে ৪৫ থেকে ৫০ হাজার যুবক ‘অগ্নিবীর’ হিসাবে নিয়োগ পাবেন সেনাবাহিনীতে। এটি হবে চুক্তিভিত্তিক, স্বল্প মেয়াদের। মাত্র ৪ বছরের জন্য। তবে তারপর মাত্র ২৫ শতাংশ যুবক ‘অগ্নিবীর’ ১৫ বছর কাজের সুযোগ পাবেন। অর্থাৎ চার বছর পর বাদ পড়বেন প্রায় ৩৫ হাজার যুবক।

অর্থাৎ, সেনাবাহিনীতে কাজ করার যোগ্যতা থাকা সত্বেও কর্মহীন হয়ে পড়বেন বিশাল সংখ্যক ‘অগ্নিবীর’। এতে ভারতে স্থায়ী সেনার সংখ্যা কমবে এবং সঙ্কটে পড়বে ভারতের নিরাপত্তা ব্যবস্থা, এমনটাই মনে করছে বিশেষজ্ঞ মহল।

শুধু তাই নয়, কর্মহীন হয়ে পড়ার পর বিশাল সংখ্যক ‘অগ্নিবীরের’ মানসিক অবস্থা কোন দিকে যাবে, তা নিয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা। জানা যাচ্ছে, বর্তমানে দেশের সেনাবাহিনীতে জওয়ানের সংখ্যা ১৩ লক্ষেরও বেশি। পেনশন নিয়ে তাঁদের দাবি দীর্ঘদিনের। অভিযোগ, সেই দাবিকে দমিয়ে রাখতে এই নতুন পন্থা নিয়েছে কেন্দ্র।

কেন্দ্রের এই অগ্নিপথ প্রকল্পকে কটাক্ষ করেছেন সিপিআইএম সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি। বাম নেতা ট্যুইটারে লেখেন, "পেশাদার সেনা বাড়ানোর বদলে পেনশনের টাকা বাঁচাতে চুক্তি ভিত্তিক সেনা নিয়োগের প্রস্তাব দিল মোদী সরকার। প্রশিক্ষিত চুক্তি ভিত্তিক সেনাদের ৩ থেকে ৫ বছর পর বেসরকারি সেনা বাহিনীতে নাম লেখানো ছাড়া আর কোনো উপায় থাকবে না। এই দেশবিরোধী প্রকল্প বাতিল করুন।"

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in