কৃষি আইন বাতিলের দাবীতে উত্তরপ্রদেশ, হরিয়ানার পর পাঞ্জাবের মহাপঞ্চায়েতে জনসমুদ্র

উত্তরপ্রদেশ, হরিয়ানার পর এবার কৃষি আইন বাতিলের দাবীতে মহাপঞ্চায়েত পাঞ্জাবে। বহু দূর দূরান্ত থেকে এদিনের পঞ্চায়েতে সাধারণ মানুষও যোগ দিতে আসেন।
কৃষি আইন বাতিলের দাবীতে উত্তরপ্রদেশ, হরিয়ানার পর পাঞ্জাবের মহাপঞ্চায়েতে জনসমুদ্র
পাঞ্জাবের জাগরাওতে মহাপঞ্চায়েতছবি ম্যায় ভি আন্দোলনজীবী ট্যুইটার হ্যান্ডেলের সৌজন্যে

উত্তরপ্রদেশ, হরিয়ানার পর এবার কৃষি আইন বাতিলের দাবীতে মহাপঞ্চায়েত পাঞ্জাবে। বৃহস্পতিবার পাঞ্জাবের জাগরাও সবজিমন্ডির কাছে অনুষ্ঠিত এই মহাপঞ্চায়েতে যোগ দেন কয়েক হাজার মানুষ। বহু দূর দূরান্ত থেকে এদিনের পঞ্চায়েতে সাধারণ মানুষও যোগ দিতে আসেন।

এদিনের জনসভায় কৃষক নেতৃত্বের পক্ষ থেকে জানানো হয় – যতক্ষণ পর্যন্ত না কেন্দ্রের মোদী সরকার এই আইন বাতিল করবে ততক্ষণ এই আন্দোলন চলবে। তাঁরা আরও জানান, এই লড়াই এখন আর শুধু কৃষকদের লড়াই নেই। সাধারণ মানুষের লড়াইতে পরিণত হয়েছে। এই লড়াইতে ৯৯ শতাংশ মানুষ কৃষকদের পক্ষে দাঁড়ালেও মোদী সরকার তাঁদের কথা না শুনে কর্পোরেটদের কথাই শুনছে।

কেন্দ্রের আলোচনার প্রস্তাব সম্পর্কে এদিন কৃষক নেতৃত্ব বলেন – এই আলোচনার প্রস্তাব এক মিথ্যা ছাড়া কিছুই নয়। একদিকে সীমান্তে পেরেক, গজাল দিয়ে ব্যারিকেড তৈরি করে, রাস্তা আটকে কেন্দ্র আন্দোলনকারীদের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র আনার ক্ষেত্রে বাধা সৃষ্টি করছে। কেন্দ্র সরকার নিজেরাই আলোচনার রাস্তা বন্ধ করে রাখতে চাইছে। তাঁরা আরও বলেন কৃষকরা শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে এই আইন বাতিলের দাবীতে লড়াই চালিয়ে যাবে।

কৃষক নেতৃত্ব বলেন – এই আন্দোলন কোনো রাজনৈতিক দল শুরু করেনি। কৃষকরা নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষার জন্য এবং সাধারণ মানুষের রক্ষার জন্য শুরু করেছে। দেশের কৃষি ব্যবস্থাকে বড়ো কর্পোরেটদের হাত থেকে বাঁচানোর জন্য এই আন্দোলন।

খারাপ আবহাওয়ার কারণে এদিনের জনসভা শুরু হতে প্রায় ১ ঘণ্টা দেরি হলেও তাতেও হতাশ হননি উপস্থিত মানুষজন। এই মহাপঞ্চায়েতে সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার একাধিক নেতা উপস্থিত ছিলেন। প্রশাসনিক হিসেবে অনুসারে এই জনসভায় ৩০ হাজারের বেশি মানুষের ভিড় হয়েছিলো।

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in