বিধানসভায় পুলিশি নিগ্রহের প্রতিবাদে বিরোধীদের ডাকে আজ বিহার বনধ

তেজস্বী এক সাংবাদিক বৈঠকে জানিয়েছেন, রাজ্য পুলিশ এখন জনতা দল-এর পুলিশে পরিণত হয়েছে। বিলটি পাশ করানোর জন্য বিধানসভার ভিতরে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছিল। যাতে শক্তি প্রয়োগ করে বিলটি পাশ করানো যায়।
বিধানসভায় পুলিশি নিগ্রহের প্রতিবাদে
বিরোধীদের ডাকে আজ বিহার বনধ
ছবি RJD-র ট‍্যুইটার হ‍্যান্ডেল থেকে সংগৃহীত

বিহার বিধানসভা চত্বরে বিরোধী বিধায়কদের উপর পুলিশের নিগ্রহের ঘটনায় আজ বিহার বনধের ডাক দিয়েছেন বিরোধী নেতা তেজস্বী যাদব। এই ঘটনায় বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমারের ক্ষমাপ্রার্থনার দাবি জানিয়েছেন তিনি। সকাল থেকেই পথে নেমেছেন বিরোধী কর্মীরা। এদিকে শুক্রবারই কৃষক সংগঠনের ডাকা ভারত বনধে সমর্থন জানিয়েছেন তেজস্বী।

উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার বিরোধী নেতা তেজস্বী যাদব ও অন্যান্য বিরোধী বিধায়কদের বিধানসভার ভিতর থেকে টেনেহিঁচড়ে বের কর আনে বিহার পুলিশ। এই ঘটনাকে গণতন্ত্রের উপর মুখ্যমন্ত্রীর হামলা বলে মন্তব্য করেছেন তেজস্বী। এইধরনের সরকারের বিরুদ্ধে একজোট হয়ে সমস্ত বিহারবাসীকে এই বনধে সামিল হতেও আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। প্রসঙ্গ, বিহারে বিশেষ পুলিশ বিল পাশের সময় তার বিরোধিতা করায় পুরো ঘটনাটি ঘটেছে। এমনকী, বিধানসভার স্পিকার বিজয় কুমারকে একপ্রকার বন্দি করে রাখারও চেষ্টা করা হয় বলে অভিযোগ।

তেজস্বী এক সাংবাদিক বৈঠকে জানিয়েছেন, রাজ্য পুলিশ এখন জনতা দল-এর পুলিশে পরিণত হয়েছে। বিলটি পাশ করানোর জন্য বিধানসভার ভিতরে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছিল। যাতে শক্তি প্রয়োগ করে বিলটি পাশ করানো যায়। যদিও মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার দাবি করেছেন, বিধানসভার ভিতরে বিশৃঙ্খলা তৈরি হওয়ার কারণেই পুলিশকে ডাকতে হয়েছিল। কিন্তু নীতীশের এই দাবিকে উড়িয়ে দিয়ে তেজস্বীর দাবি, পুরোটাই পরিকল্পনামাফিক হয়েছে। তিনি আরও জানিয়েছেন, বিল নিয়ে হোক বা অন্য কোনও ইস্যু, বিধানসভার ভিতরে প্রতিবাদ করার অধিকার রয়েছে বিরোধীদের। তার মানে এই নয় যে, বিরোধী বিধায়কদের বিধানসভার ভিতর থেকে এভাবে নিগ্রহ করে বের করবে পুলিশ। এমনকী, মহিলা বিধায়কদেরও ছাড় দেওয়া হয়নি। এই একটি ঘটনার মাধ্যমেই সমস্ত গণতান্ত্রিক মূল্যবোধকে উপেক্ষা করেছে নীতিশ সরকার।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in