ফের শিরোনামে যোগী রাজ্য - ধর্ষণ করে খুন কিশোরীকে, ৬ দিন পর গর্ত থেকে উদ্ধার দেহ

জেরায় অভিযুক্ত স্বীকার করেছে যে ওই কিশোরী তার বাড়িতে জল খেতে এসেছিল। তখনই সে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। কিন্তু মেয়েটি সাহায্যের জন্য চিৎকার করায় তাকে খুন করে মাটিতে পুঁতে দেয় সে।
ফের শিরোনামে যোগী রাজ্য - ধর্ষণ করে খুন কিশোরীকে, ৬ দিন পর গর্ত থেকে উদ্ধার দেহ
এই গর্ত থেকেই উদ্ধার হয় দেহছবি ট্যুইটার থেকে সংগৃহীত

দিন ছয়েক আগে ১২ বছরের এক কিশোরী গ্রাম থেকে নিখোঁজ হয়ে যায়। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ওই গ্রামেরই এক বাসিন্দার বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে মাটি খুঁড়ে তার দেহ উদ্ধার করা হয়েছে। চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিম উত্তরপ্রদেশের বুলান্দশহরে। পুলিশ অভিযুক্তকে হিমাচল প্রদেশের সিমলা থেকে গ্রেফতার করেছে। ধৃতের নাম হরেন্দ্র (২২)। সে দিল্লিতে শ্রমিকের কাজ করত। কিন্তু ঘটনার দিন সে বাড়িতেই ছিল।

বুলান্দ শহর পুলিশ প্রধান সন্তোষ কুমার সিং জানান, গত ২৮ ফেব্রুয়ারি নিখোঁজ কিশোরীর বাবা থানায় অভিযোগ দায়ের করেন যে হরেন্দ্র নামে এক যুবক তার মেয়েকে অপহরণ করেছে। অভিযুক্তের বাড়ির কাছ থেকেই মেয়েটির মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে গতকাল। পুলিশের আধিকারিক আরও জানান, জেরায় অভিযুক্ত স্বীকার করেছে যে ওই কিশোরী তার বাড়িতে জল খেতে এসেছিল। তখনই সে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। কিন্তু মেয়েটি সাহায্যের জন্য চিৎকার করায় তাকে খুন করে মাটিতে পুঁতে দেয় সে।

বুলান্দ শহর পুলিশ জানিয়েছে, ২৫ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় মেয়েটি তার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মাঠে কাজ করছিল। কাজ করতে করতে তৃষ্ণার্ত বোধ করায় সে পাশে হরেন্দ্রর বাড়িতে জল চাইতে যায়।

এদিকে, ওই কিশোরী যাওয়ার বেশ খানিকক্ষণ পরও কাজে ফেরায় তার বোনেরা ঘটনাস্থলে গিয়ে তার খোঁজ করে। কিন্তু তারা কোন সাড়া পায়নি বলে জানায়। তারা ভেবেছিল যে কিশোরী হয়তো বাড়ি ফিরে গিয়েছে। তাই তারা আবার কাজে ফিরে যায়।

ওই দিন সন্ধ্যায় তারা ফের ঘটনাস্থলে গিয়ে মদ্যপ অবস্থায় একটি লোককে দেখে কিন্তু ওই কিশোরীকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। দু-তিন দিন ধরে তার সন্ধান চালিয়ে শেষপর্যন্ত খুঁজে না পেয়ে পরিবারটি পুলিশের দ্বারস্থ হয়।

এদিন ঘটনাস্থলে গিয়ে পুলিশ ফের তল্লাশি শুরু করে। তখন দেখা যায় বাড়ির মধ্যে একটা জায়গায় সদ্য খোঁড়া মাটির ঢিপি মতো রয়েছে। সেখান থেকে ওই কিশোরীর দেহ উদ্ধার করা হয়। অভিযুক্তের বাবাকেও পুলিশ নিজেদের হেফাজতে নিয়েছে।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in