শিক্ষাক্ষেত্রে কেন্দ্রের হস্তক্ষেপের তীব্র বিরোধিতা আমেরিকান হিস্টোরিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের

শিক্ষাক্ষেত্রে কেন্দ্রের হস্তক্ষেপের তীব্র বিরোধিতা আমেরিকান হিস্টোরিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের
ছবি সংগৃহীত

এবার শিক্ষাক্ষেত্রেও কেন্দ্রের বিরুদ্ধে স্বাধীনতা খর্ব করার অভিযোগ উঠল ঐতিহাসিক ও আমেরিকান হিস্টোরিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের তরফে। গত সপ্তাহেই কেন্দ্রীয় সরকার একটি নতুন নির্দেশিকা জারি করেছে। যা শিক্ষাক্ষেত্রে পড়ুয়াদের অধিকারকে খর্ব করবে। এখন সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে অনলাইন সেশন করাতে হলে বিদেশ মন্ত্রকের অনুমতি প্রয়োজন। সুতরাং এখন অনলাইন কনফারেন্স ও ওয়েবিনার করতে হলে অনুমতি নিতে হবে।

বিয়বস্তু বাছতে হলে এবং অংশগ্রহণকারীদের আগে বিদেশ মন্ত্রকের অনুমতির প্রয়োজন বলেও উল্লেখ করা হয়েছে। আমেরিকান হিস্টোরিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের রেজিস্ট্রার এই বিষয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। এক বিবৃতিতে এই প্রসঙ্গে বলা হয়েছে - এই নতুন নির্দেশিকায় শুধু অনলাইনে অ্যাকাডেমিক ইভেন্টের উপর কেন্দ্র বাধ্যবাধকতা চাপিয়েছে তাই নয়, দেশের বেশিরভাগ স্কলাররা যে সব আন্তর্জাতিক বিষয়ে আগ্রহ দেখান, সেগুলোর উপর একপ্রকার নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

ওই বিবৃতি অনুসারে, এই নতুন পলিসির ফলে ভারতীয় স্কলারদের আলোচনার বিষয়বস্তুর উপর হস্তক্ষেপ করা হচ্ছে। যার মধ্যে ইতিহাসও রয়েছে। শুধু ভারতই নয়, অন্যান্য দেশের স্কলারদেরও এরফলে হতাশ করা হয়েছে। ভারতীয় স্কলারদের মাধ্যমে তাঁরাও জ্ঞান অর্জ করতে পারতেন। কিন্তু কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের পর এখন আর তা সম্ভব নয়।

আমেরিকান হিস্টোরিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের তরফে এই হস্তক্ষেপের তীব্র বিরোধিতা করে জানানো হয়েছে, এই ধরনের হস্তক্ষেপের ফলে শিক্ষাক্ষেত্রের স্বাধীনতার নীতিকে খর্ব করা হচ্ছে।

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in