তীব্র কটাক্ষ - করোনা মোকাবিলায় মোদি সরকারের ভূমিকাকে তুলোধোনা আন্তর্জাতিক মিডিয়ার

দ্য নিউইয়র্ক টাইমস লিখেছে, ভারতের এই সংকটজনক পরিস্থিতির জন্য মোদি সরকারের ভুল পদক্ষেপ এবং আত্মতৃপ্তি দায়ী
তীব্র কটাক্ষ - করোনা মোকাবিলায় মোদি সরকারের ভূমিকাকে তুলোধোনা আন্তর্জাতিক মিডিয়ার
ছবি- অফিসিয়াল পেজ

করোনার প্রথম ধাপ সামলে যখন আক্রান্ত, মৃত্যুর সংখ্যা ক্রমশই নিয়ন্ত্রণে আসছে বলে সবাই মনে করছিলেন, সেই সময়ে সারা বিশ্বজুড়ে শুরু হয়েছিল মোদির জয় গান। কেউ লিখেছিল, গোটা বিশ্ব কোভিডের বিরুদ্ধে মোদির লড়াই দেখে অনুপ্রাণিত। কেউ লিখেছিল, কোভিড বিপর্যয় থেকে গোটা বিশ্বকে বাঁচিয়ে দিয়েছে মোদির ভারত। কেউ লিখেছিল, করোনা মোকাবিলায় ভারত আজ বিশ্বগুরু। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সঙ্গে মোদির তুলনা ভালো ভাবে নেয়নি সাহিত্যমহল। বিশ্বজুড়ে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে না পারার জন্য সমালোচনার মুখে সেই "বিশ্বগুরু" মোদীই।

বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে দিল্লির গণচিতার ছবি প্রকাশিত হয়েছে। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে সবার প্রথমে উঠে আসা ভারতকে নানাভাবে সমালোচনা করা হয়েছে অক্সিজেনের অভাব, ভ্যাকসিন নিয়ে কেন্দ্রীয় নীতির কথা তুলে ধরে। দিল্লিতে অক্সিজেনের নিদারুণ সংকট, অসহায় অবস্থায় সাধারণ মানুষের মৃত্যু, মৃত্যুর পর শ্মশান- কবরস্থানের জায়গা না হওয়ার খবর তুলে ধরা হচ্ছে। বিভিন্ন দেশে ভ্যাকসিনেশনের মাধ্যমে করোনাকে কীভাবে রোখা যায়, সেই ভাবনাকেই চূড়ান্ত ধরা হচ্ছে। সেখানে ভারতের এই চিত্র কার্যত মোদি সরকারের দূরদৃষ্টি অভাবের চিত্র তুলে ধরেছে।

দ্য টাইমস বলছে, দ্বিতীয় সুনামিতে ভাসল ভারত। প্রতিদিন তিন লাখেরও বেশি সংক্রমিত হওয়ার খবর আসছে। তারা সেই আভাসটাই ধরতে পারেনি। শুধু তাই নয়, আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের আলোচনায় রয়েছে মোদি সরকারের ধর্মীয় বিভাজন নীতি। করোনার সংকটজনক পরিস্থিতি মোকাবিলায় জন্য যেখানে ঐক্যবদ্ধভাবে লড়াই করা উচিত, সেখানে বিভেদ করছে মোদি সরকার। হিন্দুদের খুশির জন্য কুম্ভমেলা করছে। বিভিন্ন মাধ্যমে কুম্ভমেলায় নিয়ম না মেনে স্নানের ছবি প্রকাশিত হয়েছে। মোদি নিজের পশ্চিমবঙ্গে কোনও নিয়ম না মেনেই একের পর এক সমাবেশ করেছেন।

গার্ডিয়ান বলছে, দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ে বিশেষজ্ঞরা আগেই সতর্ক করেছিল মোদি সরকারকে। তা না শোনার ফল ভোগ ভোগ করতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে। উত্তরপ্রদেশ, গুজরাটে করোনায় প্রকৃত মৃতের সংখ্যা লুকিয়ে রাখা হচ্ছে। তাদের শিরোনাম হয়েছে, ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে: ভারতের করোনার নরকে অবনমন। এই ঘটনার জন্য মোদির অহংকারকেই অভিযুক্ত করে মোদিকে শুধরে নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছে।

দ্য নিউইয়র্ক টাইমস লিখেছে, ভারতের এই সংকটজনক পরিস্থিতির জন্য মোদি সরকারের ভুল পদক্ষেপ এবং আত্মতৃপ্তিকে দায়ী করেছে। এইভাবে চলতে থাকলে এর প্রভাব পড়বে গোটা বিশ্বেই। বিবিসি দিল্লির গণচিতার ছবি প্রকাশ করে তীব্র সমালোচনা করেছে। অস্ট্রেলিয়ার এবিসি বলেছে, এই বিপর্যয় সহজে এড়ানো যেত। সরকারের অপদার্থতায় তা হয়নি। গ্লোবাল টাইমস বলছে, ভোলা যায় না এমন ভুল করেছে মোদি সরকার। বিশ্বকে নেতৃত্ব দিতে গিয়েছিল ভারত। এখন গোটা বিশ্ব ভারতের জন্য প্রার্থনা করছে। দিকে দিকে অক্সিজেনের জন্য আবেদন জানানো হচ্ছে।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in