Bangladesh: বাংলাদেশে ব্যয় সংকোচনের লক্ষ্যে মন্ত্রণালয় ও বিভাগে নতুন গাড়ি কেনা বন্ধ করছে সরকার

সরকারি ব্যয় সংকোচনের উদ্দেশ্যে ২০২২-২৩ অর্থবছরে মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোর জন্য নতুন গাড়ি কেনা বন্ধ করা হয়েছে। আজ রোববার অর্থ বিভাগের বাজেট অনুবিভাগ-১ এর এক প্রজ্ঞাপনে এ সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়েছে।
শেখ হাসিনা
শেখ হাসিনাফাইল ছবি, গ্রাফিক্স সুমিত্রা নন্দন

বাংলাদেশে বৈদেশিক মুদ্রা রিজার্ভ সংরক্ষণ ও তার মাধ্যমে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ করতে হিমশিম খাচ্ছে দেশের সরকার। তাই যে কোন ধরনের অর্থনৈতিক বিপর্যয় ঠেকাতে সরকারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এ লক্ষ্যে সরকারি ব্যয় সংকোচনের উদ্দেশ্যে ২০২২-২৩ অর্থবছরে মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোর জন্য নতুন গাড়ি কেনা বন্ধ করা হয়েছে। আজ রোববার (৩ জুলাই) অর্থ বিভাগের বাজেট অনুবিভাগ-১ এর এক প্রজ্ঞাপনে এ সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়েছে।

করোনা মহামারি ও বৈশ্বিক অর্থনৈতিক অবস্থার কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতি মোকাবিলায় সরকারি ব্যয়ে কৃচ্ছ্রসাধন পরিকল্পনার অংশ হিসাবে সব ধরনের যানবাহন ক্রয় বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

এতে বলা হয়, বর্তমান বৈশ্বিক অর্থনৈতিক অবস্থার প্রেক্ষাপটে সরকারি ব্যয়ে কৃচ্ছ্রসাধনের লক্ষ্যে ২০২২-২৩ অর্থবছরের সব সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, রাষ্ট্রায়ত্ত, সংবিধিবদ্ধ, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোম্পানি ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পরিচালন ও উন্নয়ন বাজেটে কতিপয় খাতে বরাদ্দকৃত অর্থ ব্যয়ে সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

সিদ্ধান্তের মধ্যে রয়েছে - নতুন/প্রতিস্থাপক হিসেবে সব ধরনের যানবাহন ক্রয় (মোটরযান, জলযান, আকাশযান) বন্ধ থাকবে। শুধু জরুরি ও অপরিহার্য ক্ষেত্র বিবেচনায় আপ্যায়ন ব্যয়, ভ্রমণ ব্যয়, অন্যান্য মনিহারি, কম্পিউটার ও আনুষঙ্গিক, বৈদ্যুতিক সরঞ্জামাদি ও আসবাবপত্র খাতে বরাদ্দকৃত অর্থের সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ ব্যয় করা যাবে।

এর আগে সরকারি-বেসরকারি সব খাতে ব্যয় কমানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এক্ষেত্রে সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য নির্বাহী আদেশে কিছু নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বেসরকারি খাতকেও এসব মেনে চলার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া প্রকল্প অনুমোদনের ক্ষেত্রে পরিকল্পনামন্ত্রীর ক্ষমতা কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) সভায় গত মে মাসে সরকারপ্রধান এসব নির্দেশনা দেন।

এর আগে ২০২০ সালে কোভিড-১৯ মহামারির ব্যাপক প্রাদুর্ভাবের সময়ে ৬ মাসের জন্য গাড়ি ক্রয়ে এধরনের একটি নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছিল।

অন্যদিকে গাড়ি কেনা ছাড়াও আতিথেয়তা ও প্রশিক্ষণ বাবদ সরকারি কর্মকর্তারা চলতি অর্থবছরে আগের অর্থবছরের তুলনায় বরাদ্দ পাবেন মাত্র ৫০ শতাংশ। যার ফলে এই খাতেও সরকারি ব্যয় সংকোচন করা হচ্ছে।

ব্যয় কমানোর নানান উদ্যোগের মাধ্যমে এপর্যন্ত সাড়ে ৫ হাজার কোটি টাকা বাঁচানোর আশা করছে সরকার। অর্থ মন্ত্রণালয়ের সূত্রগুলির বরাতে গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুসারে এ তথ্য জানা গেছে।

এর আগে ব্যয় সংকোচনের লক্ষ্যে, সরকারের পক্ষ থেকে বিলাসবহুল পণ্য ক্রয়, সরকারি কর্মকর্তাদের অপ্রয়োজনীয় বিদেশ সফরে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in