Al-Zawahiri: মার্কিন হানায় নিহত আল কায়দা প্রধান আয়মান আল-জাওয়াহিরি

এক ট্যুইট বার্তায় আল কায়দা প্রধানের নিহত হবার খবর জানিয়েছেন আমেরিকান প্রেসিডেন্ট জো বিডেন। আল জাওয়াহিরির খোঁজ পেতে ২৫ মিলিয়ন ডলার পুরস্কার ঘোষণা করেছিল আমেরিকা।
আয়মান আল-জাওয়াহিরি
আয়মান আল-জাওয়াহিরিফাইল ছবি সংগৃহীত

আমেরিকান ড্রোন হামলায় মৃত্যু হল ৯/১১ হামলার প্রধান চক্রান্তকারী তথা আল কায়দা প্রধান আয়মান আল জাওয়াহিরির (Ayman al-Zawahiri)। এক ট্যুইট বার্তায় আল কায়দা প্রধানের নিহত হবার খবর জানিয়েছেন আমেরিকান প্রেসিডেন্ট জো বিডেন। আল জাওয়াহিরির খোঁজ পেতে ২৫ মিলিয়ন ডলার পুরস্কার ঘোষণা করেছিল আমেরিকা।

এদিন সকালে এক ট্যুইট বার্তায় বিডেন বলেন – শনিবার কাবুলে বিমান হামলা চালায় আমেরিকা। যে হানায় মৃত্যু হয়েছে আল কায়দা প্রধানের। ওই ট্যুইট বার্তায় তিনি আরও জানান, যারা আমাদের ক্ষতি করতে চায়, আমরা তাদের হাত থেকে আমেরিকান মানুষকে রক্ষা করার সংকল্প জারি রেখেছি।

৯/১১-র বিমানহানায় আমেরিকায় ২,৯৭৭ জনের মৃত্যু হয়েছিল। এই বিমানহানার সাথেই যুক্ত ছিলেন আয়মান আল-জাওয়াহিরি। এছাড়াও আমেরিকার পক্ষ থেকে ১৯৮৮ এবং ২০০০-এ কেনিয়া এবং তানজানিয়ার হত্যাকান্ডের জন্যও আল-জাওয়াহিরিকেই দায়ি করা হয়। ৯/১১-র ঘটনার মূল চক্রী ওসামা বিন লাদেনকে গত ২০১১ সালে পাকিস্তানে হত্যা করে আমেরিকা।

জানা গেছে, সিআইএ পরিচালিত ড্রোন থেকে তাঁর ওপর দুটি হেলফায়ার মিসাইল ছোঁড়া হয়। এই সময় তিনি কাবুলে তাঁর বাড়ির বারান্দায় দাঁড়িয়ে ছিলেন। এখানেই তিনি তাঁর পরিবারের সঙ্গে থাকতেন। যদিও তাঁর পরিবারের অন্য কোনো সদস্য এই ঘটনায় আহত বা নিহত হয়নি বলে আমেরিকান আধিকারিকদের পক্ষ থেকে সাংবাদিকদের জানানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ২৫ জুলাই আল-জাওয়াহিরিকে হত্যার বিষয়ে সবুজ সঙ্কেত দিয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বিডেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট তাঁর বিবৃতিতে জানিয়েছেন, এই বছরের গোড়ায় আমেরিকান গোয়েন্দারা জাওয়াহিরির সন্ধান পায়। দীর্ঘদিন পর নিজের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মিলিত হতে তিনি ওই সময় কাবুলে এসেছিলেন। তাঁর গতিবিধি সম্পর্কে নিশ্চিত হবার পর এই আক্রমণের চূড়ান্ত নির্দেশ দেওয়া হয়।

বিডেন জানিয়েছেন: "এই মিশনটি অত্যন্ত সতর্কতার সাথে পরিকল্পনা করা হয়েছিল। যাতে অন্যান্য অসামরিক নাগরিকদের ক্ষতির ঝুঁকি কমিয়ে আনা যায়। এক সপ্তাহ আগে, এই বিষয়ে নিশ্চিত হবার পর চূড়ান্ত মিশনের জন্য সবুজ সঙ্কেত দেওয়া হয়।"

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র গত কয়েক সপ্তাহ ধরে জাওয়াহিরির এবং তার পরিবারের সদস্যদের ওপর নজরদারি চালিয়েছে। পরিবারের মহিলা সদস্যরা নজরদারি এড়াতে ঘুরপথে যাতায়াত করতেন।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আফগানিস্তান ছেড়ে যাওয়ার প্রায় এক বছর পরে এই আক্রমণ চালানো হল। যদিও এর আগে আফগানিস্তানে সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান চালানোর ক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল।

- with inputs from IANS

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in