'যেতে নাহি দিব..তবু যেতে দিতে হয়', বাচিক শিল্পী পার্থ ঘোষের প্রয়াণে শোকস্তব্ধ ব্রততী বন্দোপাধ্যায়

আবৃত্তি জগতের জনপ্রিয় দম্পতি ছিলেন পার্থ ঘোষ ও গৌরী ঘোষ। তাঁদের কণ্ঠে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের 'কর্ণ-কুন্তী সংবাদ' বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিল। ২৬ আগস্ট গৌরী ঘোষের মৃত্যু হয়।
'যেতে নাহি দিব..তবু যেতে দিতে হয়', বাচিক শিল্পী পার্থ ঘোষের প্রয়াণে শোকস্তব্ধ ব্রততী বন্দোপাধ্যায়
পার্থ ঘোষ এবং ব্রততী বন্দোপাধ্যায়ছবি সৌজন্যে ব্রততী বন্দোপাধ্যায়ের সোশ্যাল মিডিয়া

শিল্প ও সংস্কৃতি জগতের নক্ষত্র পতন। প্রয়াত বাচিক শিল্পী পার্থ ঘোষ। শনিবার সকালে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে প্রয়াত হন তিনি। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৩ বছর।

বেশ কিছুদিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন প্রবীণ এই বাচিক শিল্পী। হাওড়ার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল তাঁকে। গলায় অস্ত্রোপচার হয় তাঁর। তারপর ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠছিলেন তিনি। শনিবার সকালে হঠাৎ হৃদরোগে আক্রান্ত হন তিনি। তৎক্ষণাৎ আইসিইউতে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু চিকিৎসকদের সমস্ত চেষ্টা ব্যর্থ করে চলে যান শিল্পী।

আবৃত্তি জগতের জনপ্রিয় দম্পতি ছিলেন পার্থ ঘোষ ও গৌরী ঘোষ। তাঁদের কণ্ঠে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের 'কর্ণ-কুন্তী সংবাদ' বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিল। পার্থ ঘোষের কণ্ঠে রবীন্দ্রনাথের 'শেষ বসন্ত', 'দেবতার গ্রাস', 'বিদায়' ইত্যাদিও আবৃত্তি প্রেমীদের নজর কেড়েছিল। আকাশবাণী কলকাতার সাথে দীর্ঘদিন যুক্ত ছিলেন এই দম্পতি। দু'জনে মিলে উপস্থাপন করেছেন অসংখ্য শ্রুতি নাটক। গত বছর ২৬ আগস্ট গৌরী ঘোষের মৃত্যু হয়। এবার চলে গেলেন পার্থ ঘোষও।

পার্থ ঘোষের মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে শিল্পমহলে। শোক প্রকাশ করেছেন আবৃত্তিশিল্পী ব্রততী বন্দোপাধ্যায়। সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের সঙ্গে পার্থ ঘোষের একটি ছবি দিয়ে তিনি লেখেন, "যুগাবসান। অন্য লোকে, অন্য কোনোখানে, পার্থ-দাও... "যেতে নাহি দিব" আমরা বলি, তবু যেতে দিতে হয়।"

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.