রামমোহন রায় হিন্দুবিরোধী! প্রাক্তন সিবিআই কর্তার বিতর্কিত ট্যুইট ঘিরে সমালোচনা

টুইট অনুসারে, আমাদের পাঠ্য বইয়ে এক ঐতিহাসিক চরিত্রকে কীভাবে ফুটিয়ে তোলা হবে, তা নির্ভর করে তিনি কতটা হিন্দুবিরোধী ছিলেন, তার ওপর। তিনি যতটা হিন্দু বিরোধী হবেন, তাঁর সম্পর্কে ততটা বেশি শেখানো হবে।
রামমোহন রায় হিন্দুবিরোধী! প্রাক্তন সিবিআই কর্তার বিতর্কিত ট্যুইট ঘিরে সমালোচনা
রাজা রামমোহন রায়ছবি সংগৃহীত

সতীদাহ প্রথা বিলোপকারী রাজা রামমোহন রায় নাকি হিন্দু বিরোধী! এমনই মন্তব্য করে বিতর্ক তৈরি করলেন প্রাক্তন সিবিআই কর্তা এম নাগেশ্বর রাও। গত শনিবার ছিল ভারতের নবজাগরণের পথিকৃৎ রাজা রামমোহন রায়ের ২৫০তম জন্মবার্ষিকী। একদিকে গোটা দেশ তাঁর জন্মবার্ষিকী পালন করছে। অন্যদিকে, তাঁকেই এভাবে হিন্দু-বিরোধী তকমা দিয়ে আক্রমণ করা হচ্ছে।

বাঙালি-বিদ্বেষী মন্তব্য করে প্রচারের আলোয় আসার চেষ্টা নতুন কিছু নয়। এবার প্রাক্তন সিবিআই কর্তার বাঙালি মনীষীকে নিয়ে কুৎসা ছড়ানোর এহেন মন্তব্য ঘিরে ঝড় উঠেছে বাঙালি মননে। প্রতিবাদে তোলপাড় বঙ্গ সমাজ।

নাগেশ্বর রাওয়ের টুইট, ‘আমাদের পাঠ্য বইয়ে একজন ঐতিহাসিক চরিত্রকে কীভাবে ফুটিয়ে তোলা হবে, তা নির্ভর করছে তিনি কতটা হিন্দুবিরোধী ছিলেন, তার উপর। অর্থাৎ, তিনি যতটা হিন্দু বিরোধী হবেন, তাঁর সম্পর্কে ততটা বেশি শেখানো হবে। অন্যদিকে, হিন্দুত্ববাদীদের ততটাই দূরে সরিয়ে রাখা হবে। এই নিক্তিতেই রাজা রামমোহন রায় ও ঋষি অরবিন্দ ঘোষকে বিচার করা দরকার।’

ওয়াকিবহাল মহল প্রশ্ন তুলেছে, বাংলার মনীষীদের ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য এটা কি কোনও চক্রান্ত? রাজনৈতিক মহলে কান পাতলে অন্য কথা শোনা যাচ্ছে। তাদের মতে, বরাবরই হিন্দুত্বকে ঢাল করে খবর হওয়ার চেষ্টা করেছেন প্রাক্তন এই আইপিএস।

গত বছর ২৫ ডিসেম্বর শুভেচ্ছা বার্তা পাঠানো নিয়ে তিনি কটাক্ষ করেছিলেন। নাগেশ্বর টুইট করে প্রশ্ন তুলেছিলেন, কেন একজন হিন্দু অধ্যাপক তাঁকে ক্রিসমাসের শুভেচ্ছা জানাবেন? উত্তরে তিনি বলেন, ‘আমি একজন হিন্দু, আমি মনে করি আপনিও একজন হিন্দু। তাহলে এই শুভেচ্ছা বার্তার অর্থ কী? আমাদের ভগবত গীতা জয়ন্তী উদযাপন করা উচিত।’

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in