আমন্ত্রিত, তবুও রাহুলের Bharat Jodo Yatra এড়িয়ে যাচ্ছেন অখিলেশ-মায়াবতী! কেন?

কংগ্রেসের যাত্রায় অংশ নিলে ২০২৪ সালের সাধারণ নির্বাচনের আগে রাজনৈতিক জোট নিয়ে গুঞ্জন ছড়াতে পারে। সেই কারণে, সমাজবাদী পার্টি ভারত জোড়ো যাত্রা থেকে দূরে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানা যাচ্ছে।
রাহুল গান্ধীর সাথে অখিলেশ যাদব
রাহুল গান্ধীর সাথে অখিলেশ যাদব

উত্তরপ্রদেশে ভারত জোড়ো যাত্রায় অংশ নিতে একাধিক অ-বিজেপি রাজনীতিবিদদের আমন্ত্রণ জানিয়েছে কংগ্রেস। তবে, সেই আমন্ত্রণ তাঁরা এড়িয়ে যেতে পারেন বলেই সূত্রের খবর।

কংগ্রেস সূত্রে খবর, আগামী ৩ জানুয়ারি, উত্তরপ্রদেশের গাজিয়াবাদে প্রবেশ করবে রাহুল গান্ধীর ভারত জোড়ো যাত্রা। যোগী রাজ্যে তিনদিন ধরে চলবে এই যাত্রা। এরপর তা বাগপত ও শামলি হয়ে হরিয়ানায় পৌঁছাবে। তার আগে এই যাত্রায় সামিল হওয়ার জন্য রাজ্যের বিরোধী দলের নেতাদের আমন্ত্রণ জানিয়েছে কংগ্রেস। মঙ্গলবার, এমনই দাবি করেছেন কংগ্রেস মুখপাত্র অশোক সিং।

জানা যাচ্ছে, আমন্ত্রিতদের তালিকায় রয়েছেন - সমাজবাদী পার্টি (SP)-র সভাপতি অখিলেশ যাদব, বহুজন সমাজ পার্টি (BSP)-র সুপ্রিমো মায়াবতী ও রাষ্ট্রীয় লোকদল (RLD) নেতা জয়ন্ত চৌধুরী।

এছাড়া, ভারতীয় জাতীয় লোকদল (Indian National Lok Dal)-র নেতা ওমপ্রকাশ রাজভর এবং ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (CPI)-র সেক্রেটারি অতুল অঞ্জনকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে বলে দাবি করেছেন অশোক সিং।

তবে, এক রিপোর্টে NDTV জানিয়েছে, এই যাত্রায় যোগ দেবেন না অখিলেশ যাদব। এমনকি, এই যাত্রায় অংশ নিতে কোনও দলীয় নেতাকে তিনি পাঠাবেন কিনা, তাও এখন স্পষ্ট নয়।

সমাজবাদী পার্টির মুখপাত্র ঘনশ্যাম তিওয়ারি বলেন, ভারত জোড়ো যাত্রার ধারণাকে সমর্থন করে সমাজবাদী পার্টি। তবে, রাজনৈতিক জোট নিয়ে জল্পনা ছড়িয়ে দিয়ে এটিকে (যাত্রাকে) জলঘোলা করতে চায় না দল।

তিনি জানান, ‘ভারত জোড়ার মিশনটি আমাদের সংবিধানে কল্পনা করা হয়েছে। এই ধারণা নিয়েই আমরা বড় হয়েছি। কিন্তু, ভাঙার এবং বিষাক্ত করার চেষ্টা করছে বিজেপি। ভারত জোড়ো যাত্রা একটি অভূতপূর্ব যাত্রা, কিন্তু এটি কখনই রাজনৈতিক জোট গড়ার প্রচেষ্টা নয়৷ আমরা এটাকে রাজনৈতিক জোট গড়ার আন্দোলনে পরিণত করতে চাই না।’

রাষ্ট্রীয় লোকদলের (RLD) প্রধান জয়ন্ত চৌধুরী জানিয়েছেন, তাঁর পূর্বনির্ধারিত কিছু কর্মসূচী রয়েছে, সেজন্য তিনি কংগ্রেসের পদযাত্রায় যোগ দিতে পারবেন না।

দলের মুখপাত্র রোহিত জাখর জানান আরএলডি এই যাত্রাকে সমর্থন করে। তবে, এই পদযাত্রাকে রাজনৈতিক অ্যাঙ্গেলে দেখা উচিত নয়। ফোনে এনডিটিভিকে তিনি বলেন, ‘আমরা ইতিমধ্যেই রাজস্থানে কংগ্রেসের সাথে জোট বেঁধে সরকার চালাচ্ছি। আদর্শগতভাবে এই যাত্রাকে আমরা সমর্থন করি।’

কংগ্রেসের যাত্রায় অংশ নিলে ২০২৪ সালের সাধারণ নির্বাচনের আগে রাজনৈতিক জোট নিয়ে গুঞ্জন ছড়াতে পারে। সেই কারণে, সমাজবাদী পার্টি ও রাষ্ট্রীয় লোকদল ভারত জোড়ো যাত্রা থেকে দূরে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানা যাচ্ছে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, সমাজবাদী পার্টিকে কংগ্রেসের আমন্ত্রণ রাজনৈতিকভাবেও তাৎপর্যপূর্ণ। কারণ, ২০২৪ সালের সাধারণ নির্বাচনে প্রভাব ফেলতে উত্তরপ্রদেশের বৃহত্তম বিরোধী শক্তি হিসাবে সমাজবাদী পার্টির সমর্থন প্রয়োজন কংগ্রেসের।

তবে, এদিকে সতর্ক থাকার পন্থা বেছে নিয়েছেন অখিলেশ যাদব। কারণ, ২০১৭ সালে কংগ্রেসের সাথে জোট বেঁধে রাজ্য নির্বাচনে পরাজয়ের সম্মুখীন হয়েছিল তাঁর দল। অন্যদিকে, ২০২২ সালের নির্বাচনে একাকি লড়ে ভালো ফলাফল করেছে সমাজবাদী পার্টি।

বর্তমানে কংগ্রেসের প্রবল সমালোচক হলেন BSP সুপ্রিমো মায়াবতী। ২০২২ সালের নির্বাচনের আগে তিনি দাবি করেন, কংগ্রেসকে সমর্থন করার অর্থ হল শুধুমাত্র বিজেপি-বিরোধী ভোটকে বিভক্ত করা। তাই, রাহুল গান্ধীর নেতৃত্বাধীন মিছিলে যোগ না দেওয়ার যে সিদ্ধান্ত তিনি নিয়েছেন, তাতে অবাক হওয়ার কিছু নেই।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in