এপ্রিল থেকেই ওষুধের দাম বাড়তে পারে প্রায় ২০ শতাংশ
ছবি প্রতীকী সংগৃহীত

এপ্রিল থেকেই ওষুধের দাম বাড়তে পারে প্রায় ২০ শতাংশ

আশঙ্কাকে বাড়িয়েই এবার বাড়তে চলেছে ওষুধের দাম। আগামী এপ্রিল মাসে থেকে যা বাড়ার সম্ভাবনা প্রবল। সর্বোচ্চ কুড়ি শতাংশ হারে ওষুধের দাম বাড়তে চলেছে বলে জানা গিয়েছে।

আচ্ছে দিন বোধহয় এসেই গেল! এবার দাম বাড়তে চলেছে ওষুধের। দ্রব্যমূল্যের বৃদ্ধি তো হচ্ছিলই। পেট্রোল-ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধিতে আশঙ্কা ছিল যে কবে সেই মূল্যবৃদ্ধি আরও বেশি হয়। রান্নার গ্যাসের দাম ইতিমধ্যেই আটশো পেরিয়েছে। সেই আশঙ্কাকে বাড়িয়েই এবার বাড়তে চলেছে ওষুধের দাম। আগামী এপ্রিল মাসে থেকে যা বাড়ার সম্ভাবনা প্রবল। সর্বোচ্চ কুড়ি শতাংশ হারে ওষুধের দাম বাড়তে চলেছে বলে জানা গিয়েছে।

ওষুধ শিল্পে উৎপাদন ব্যয় বেড়েছে ১৫-২০ শতাংশ। সরকারও ওষুধ প্রস্তুতকারকদের বার্ষিক পাইকারি মূল্য সূচকের (ডব্লিউপিআই) ভিত্তিতে মূল্যবৃদ্ধির অনুমতি দিয়েছে।

জাতীয় ফার্মাসিউটিক্যাল প্রাইসিং কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সরকার ওষুধ প্রস্তুতকারীদের পাইকারি মূল্য সূচকে ০.৫ শতাংশ হারে বাড়ানোর অনুমতি দিয়েছে। পেইনকিলার, অ্যান্টিনোফ্ল্যাটিভ, কার্ডিয়াক এবং অ্যান্টিবায়োটিক-সহ বিভিন্ন প্রয়োজনীয় ওষুধের দাম ২০ শতাংশ পর্যন্ত বাড়তে পারে এপ্রিল থেকেই।

করোনা মহামারী ওষুধ আমদানিতে প্রভাব ফেলেছে। বেশিরভাগ ওষুধ আসে চিন থেকে, ৮০-৯০ শতাংশ নির্ভর করতে হয়। গত বছরের শুরুতেই চিনে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় আমদানির ক্ষেত্রে সমস্যা বাড়ে। ভারতীয় ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলি খরচ বেড়ে যায় ১০-২০ শতাংশ। তাই শেষ পর্যন্ত এ দেশেও নিয়ন্ত্রক সংস্থা দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। চিন থেকে আমদানি করা হয় কার্ডিও ভাস্কুলার, ডায়াবেটিস, অ্যান্টিবায়োটিক, অ্যান্টি-ইনফেকটিভ এবং ভিটামিন উৎপাদন করার জন্য বেশিরভাগ উপাদান।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in