Kerala: কেন্দ্র কেরালার কোভিড পরিসংখ্যান বিষয়ে মিথ্যা প্রচার করছে - বীণা জর্জ

জর্জ জানান, "এমন ঘটনা একেবারেই ঘটেনি এবং আমরা সবাই অবাক হয়েছি যে কেন্দ্র কীভাবে এমন কথা বলতে পারে, যখন রোজ আমরা ই-মেইলের মাধ্যমে প্রতিদিনের কোভিড পরিসংখ্যান পাঠাচ্ছি। কেন্দ্র মিথ্যা প্রচার করছে।"
Kerala: কেন্দ্র কেরালার কোভিড পরিসংখ্যান বিষয়ে মিথ্যা প্রচার করছে - বীণা জর্জ
কেরালার স্বাস্থ্যমন্ত্রী বীণা জর্জফাইল ছবি, বীণা জর্জ-এর ট্যুইটার হ্যান্ডেলের সৌজন্যে

কেরালা প্রতিদিনের কোভিড পরিসংখ্যান আপডেট করা বন্ধ করেছে – কেন্দ্রের এই দাবির বিরোধিতা করলেন রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী বীণা জর্জ। মঙ্গলবার বীণা জর্জ জানিয়েছেন, কেন্দ্র কেরালার কোভিড পরিসংখ্যান বিষয়ে মিথ্যা প্রচার করছে।

এদিন জর্জ জানান, "এমন ঘটনা একেবারেই ঘটেনি এবং আমরা সবাই অবাক হয়েছি যে কেন্দ্র কীভাবে এমন কথা বলতে পারে, যখন প্রতিদিন আমরা ই-মেইলের মাধ্যমে প্রতিদিনের কোভিড পরিসংখ্যান পাঠাচ্ছি। কেন্দ্র মিথ্যা প্রচার করছে।" জর্জ আরও জানিয়েছেন সোমবার প্রায় ২০০ টি নতুন সংক্রমণের খবর পাওয়া গেছে।

উল্লেখ্য, গত এপ্রিল ২০২০ থেকে টানা প্রায় দু’বছর প্রতিদিন সন্ধ্যে ৬টার সময় কেরালার পক্ষ থেকে কোভিডের আপডেট দেওয়া হত। গত সপ্তাহের শুরু থেকে রাজ্যের স্বাস্থ্য বিভাগ রাজ্যের কোভিড পরিস্থিতির উপর দৈনিক আপডেট না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

প্রাথমিকভাবে, মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন এইসময় দৈনিক প্রেস ব্রিফিং করতেন এবং এপ্রিল ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনে জয়ের দুর্দান্ত রেকর্ড করার পরে, তিনি ধীরে ধীরে দৈনিক প্রেস ব্রিফিং করা বন্ধ করেন। ২০২১ সালের সেপ্টেম্বরে তার শেষ প্রেস মিটিংয়ের পরে, তিনি ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতে সাংবাদিক সম্মেলন করেন। বর্তমানে রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী বীণা জর্জের উপর কোভিড পরিস্থিতি পরিচালনার ভার ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

সোমবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রককের পক্ষ থেকে দৈনিক ভিত্তিতে কোভিড ডেটা আপডেট না করার জন্য কেরালা সরকারকে চিঠি লেখা হয়েছে।

কেরালার স্বাস্থ্য বিভাগের মুখ্য সচিব, রাজন এন. খোবরাগাদেকে লেখা চিঠিতে, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক অন্যান্য রাজ্যগুলির মত কেরালাকেও প্রয়োজনীয় বিবরণ প্রতিদিন আপডেট করার জন্য অনুরোধ করেছে।

ওই চিঠি অনুসারে, "কেরালা ১৩ এপ্রিল থেকে ৫ দিনের ব্যবধানের পরে তার কোভিড-১৯ রাজ্য স্তরের ডেটা রিপোর্ট করেছে।"

কেন্দ্রের অভিযোগ, এই ঘটনায় সংক্রমণ, মৃত্যু এবং পজিটিভিটির মতো ভারতের গুরুত্বপূর্ণ পর্যবেক্ষণ সূচকগুলির অবস্থাকে প্রভাবিত করছে। ভারতে নতুন সংক্রমণের ঘটনা ৯০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে এবং এক দিনে পজিটিভিটি ১৬৫ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

চিঠিতে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, জেলা, রাজ্য এবং জাতীয় স্তরে মহামারী সম্পর্কে একটি অর্থপূর্ণ বোঝাপড়ায় পৌঁছানোর জন্য এবং যে কোনও অসঙ্গতি, বৃদ্ধি বা সাম্প্রতিক প্রবণতাগুলিকে সময়মত চিহ্নিতকরণ নিশ্চিত করার জন্য ডেটার দৈনিক এবং সযত্ন প্রতিবেদন পেশ করা গুরুত্বপূর্ণ।

- with inputs from IANS

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.