COVID-19: ২৪ ঘন্টায় সংক্রমণের নতুন রেকর্ড দেশে, দৈনিক মৃত্যু ৩ হাজারের পথে

গত ১৫ এপ্রিল থেকে দেশে প্রতিদিন ২ লাখের বেশি মানুষ সংক্রমিত হচ্ছেন। দিল্লি, মহারাষ্ট্র ও উত্তরপ্রদেশের অবস্থা সবথেকে ভয়াবহ। রেকর্ড সংক্রমণের পাশাপাশি প্রতিদিন রেকর্ড মানুষের মৃত্যু হচ্ছে সেখানে।
COVID-19: ২৪ ঘন্টায় সংক্রমণের নতুন রেকর্ড দেশে, দৈনিক মৃত্যু ৩ হাজারের পথে

প্রতিদিনই করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ও মৃত্যুর সংখ্যার রেকর্ড তৈরি হচ্ছে দেশে। প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ ছুঁতে চললো দেশে দৈনিক করোনা সংক্রমণ। দৈনিক মৃত্যু সংখ্যাও তিন হাজারের গন্ডির দিকে এগিয়ে চলেছে ক্রমশ। গত ১৫ এপ্রিল থেকে দেশে প্রতিদিন ২ লাখের বেশি মানুষ সংক্রমিত হচ্ছেন। সক্রিয় রোগীর সংখ্যা প্রায় ২৭ লক্ষ। দিল্লি, মহারাষ্ট্র ও উত্তরপ্রদেশের অবস্থা সবথেকে ভয়াবহ। রেকর্ড সংক্রমণের পাশাপাশি প্রতিদিন রেকর্ড সংখ্যক মানুষের মৃত্যু হচ্ছে সেখানে।

রবিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, শেষ ২৪ ঘন্টায় দেশে করোনা সংক্রমিত হয়েছেন ৩ লক্ষ ৪৯ হাজার ৬৯১ জন, করোনাকালে এটাই সর্বাধিক সংক্রমণ। গতকাল এই সংখ্যাটা ছিল ৩.৪৬ লক্ষ। আজকের পরিসংখ্যান নিয়ে দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১ কোটি ৬৯ লক্ষ ৬০ হাজার ১৭২। ২৪ ঘন্টায় দেশে মারা গেছেন ২ হাজার ৭৬৭ জন, গতকাল যা ছিল ২ হাজার ৬২৪ জন। এখনও পর্যন্ত দেশে কোভিডে মোট মৃত্যু হয়েছে ১ লক্ষ ৯২ হাজার ৩১১ জনের। ২৪ ঘন্টায় সক্রিয় কেস প্রায় ১.৩০ লক্ষ বেড়ে দেশে মোট সক্রিয় কেসের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৬ লক্ষ ৮২ হাজার ৭৫১।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সবথেকে বেশি প্রভাব ফেলেছে মহারাষ্ট্রে, যা সামলাতে আপতত হিমসিম খাচ্ছে প্রশাসন। একদিনে সেখানে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৬৭ হাজার ১৬০ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৬৭৬ জনের। রাজ্যে মোট আক্রান্ত ৪২ লক্ষ ২৮ হাজার ৮৩৬। রাজ‍্যে এখন সক্রিয় কেসের সংখ্যা ৬.৯৬ লক্ষ। গোটা দেশের মধ্যে সর্বাধিক সক্রিয় কেস এখানেই। করোনার কারণে রাজ্যে মোট মৃত্যু হয়েছে ৬৩ হাজার ৯২৮ জনের। মুম্বাইয়ে শেষ ২৪ ঘন্টায় করোনা আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ৬ হাজার মানুষ, গত তিন সপ্তাহে যা সর্বনিম্ন।

মহারাষ্ট্রের পরেই সবথেকে খারাপ অবস্থা উত্তরপ্রদেশের। ২৪ ঘন্টায় সেখানে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৩৭ হাজার ৯৪৪ এবং মৃত্যু হয়েছে ২২২ জনের। এখানে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ২.৮৮ লক্ষ।

এরপরই রয়েছে দিল্লি। দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যার বিচারে সর্বাধিক ক্ষতিগ্রস্ত শহরের তালিকায় উপরের দিকে রয়েছে দিল্লি। শেষ ২৪ ঘন্টায় সেখানে আক্রান্ত হয়েছেন ২৪ হাজার ১০৩ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৩৫৭ জনের। রাজধনীর হাসপাতালগুলিতে অক্সিজেনের চূড়ান্ত অভাব দেখা দিয়েছে। গতকালই অক্সিজেনের অভাবে জয়পুর গোল্ডেন হাসপাতালে ২৫ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। অক্সিজেন না পাওয়া পর্যন্ত নতুন রোগী ভর্তি নেবে না বলে জানিয়েছে বেশ কয়েকটি হাসপাতাল। ইতিমধ্যেই লকডাউন জারি করা হয়েছে রাজধানীতে। সূত্র মারফত জানা যাচ্ছে, আরো এক সপ্তাহ লকডাউন বাড়ানো হতে পারে সেখানে।

এই তিনটি রাজ‍্য ছাড়াও কর্ণাটক, কেরল, ছত্তিশগড়, তামিলনাড়ু, পশ্চিমবঙ্গ, গুজরাট, রাজস্থান - এই সাতটি রাজ্যের পরিস্থিতিও অত‍্যন্ত উদ্বেগজনক। এই সাতটি রাজ্যে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা যথাক্রমে ২৯,৪৩৮, ২৬,৬৮৫, ১৬,৭৩১, ১৪,৮৪২, ১৪,২৮১, ১৪,০৯৭, ১৫,৩৫৫। একদিনে করোনা বেঙ্গালুরুতে রেকর্ড সংখ্যক মানুষ করোনা আক্রান্ত হয়েছেন, ১৭ হাজারের বেশি। ২৪ ঘন্টায় ছত্তিশগড়, গুজরাট ও কর্ণাটকে কোভিডে প্রাণ হারিয়েছেন যথাক্রমে ২১৮, ১৫২ ও ২০৮ জন।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in