Euro Cup: অতিরিক্ত সময়ে হ্যারি কেনের গোলে প্রথমবার ফাইনালে ইংল্যান্ড

১৯৬৬ সালে বিশ্বকাপ জয়ের পর কোনো মেজর টুর্নামেন্টের ফাইনালেই ওঠা হয়নি থ্রি লায়ন্সদের। গতরাতে ওয়েম্বলিতে অতিরিক্ত সময়ে অধিনায়ক হ্যারি কেনের গোলে সেই শাপমুক্তি ঘটে ব্রিটিশদের।
Euro Cup: অতিরিক্ত সময়ে হ্যারি কেনের গোলে প্রথমবার ফাইনালে ইংল্যান্ড
জয়ের পর ইংল্যান্ড বাহিনীছবি উয়েফা ইউরোর ট‍্যুইটার হ‍্যান্ডেলের সৌজন্যে

ইউরোর ইতিহাসে প্রথমবারের জন্য ফাইনালে ইংল্যান্ড। ১৯৬৬ সালে বিশ্বকাপ জয়ের পর কোনো মেজর টুর্নামেন্টের ফাইনালেই ওঠা হয়নি থ্রি লায়ন্সদের। গতরাতে ওয়েম্বলিতে অতিরিক্ত সময়ে অধিনায়ক হ্যারি কেনের গোলে সেই শাপমুক্তি ঘটে ব্রিটিশদের। প্রথম ইউরো জয়ের লক্ষ্যে ফাইনালে ইতালির মুখোমুখি হবে গ্যারেথ সাউথগেটের লায়ন্সরা।

স্পেনকে হারিয়ে '২০২০ ইউরো কাপের' প্রথম ফাইনালিস্ট ইতালি। গতরাতে ডেনিশদের হারিয়ে দ্বিতীয় ফাইনালিস্ট হিসেবে উঠে এলো ইংল্যান্ড। আগামী ১২ জুলাই ভারতীয় সময় রাত ঠিক সাড়ে ১২ টায় ওয়েম্বলিতে অনুষ্ঠিত হতে চলেছে চলতি ইউরোর মেগা ফাইনাল।

ওয়েম্বলিতে রোমহর্ষক সেমিফাইনালে প্রথমে কিন্তু এগিয়ে যায় ডেনিশরাই। মিকেল ডেমসগার্ডের ডিনামাইট ফ্রি কিকের কোনো উত্তর ছিলোনা জর্ডান পিকফোর্ডের কাছে। চলতি ইউরোতে প্রথমবার জড়ালো ইংল্যান্ডের জালে বল। ৭২৫ মিনিট পর গোল হজম করতে হলো ব্রিটিশদের। অঘটনটা ঘটে যায় এর ঠিক ৯ মিনিট বাদেই। সমতা ফিরে পায় ইংল্যান্ড। তবে গোলটি গ্যারেথ সাউথগেটের ছাত্রদের মধ্যে কেউ করেননি। গোল করেছেন ডেনমার্ক অধিনায়ক সাইমন কাইজার। কাইজারের আত্মঘাতী গোলে প্রথমার্ধেই স্কোরলাইন হয় ১-১।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই ডেনমার্কের উপর কর্তৃত্ব রেখে একের পর এক আক্রমণে ওঠে ইংল্যান্ড। তবে কিছুই হচ্ছিলো না। ডেনিশ গোলরক্ষক স্মাইকেল দুরন্ত কিছু সেভ করে দলকে বাঁচিয়ে রেখেছিলেন। নির্ধারিত ৯০ মিনিটে আর কোনো গোল আসেনি দুই পক্ষেরই। এরপর খেলা গড়ায় অতিরিক্ত ৩০ মিনিটে।

ম্যাচের বয়স যখন ১০৪ মিনিট, তখন পেনাল্টি উপহার পেয়ে যায় ইংল্যান্ড। ডেনিশদের বক্সের মধ্যে জোয়াকিম মাহল অবৈধভাবে ফাউল করেন রহিম স্টার্লিংকে। ভিএআরের মাধ্যমে দেখে রেফারি তার পেনাল্টির সিদ্ধান্ত বজায় রাখেন। স্পট কিক নিতে যান স্বয়ং অধিনায়ক হ্যারি কেন। তাঁর পেনাল্টি আটকে দিয়েছিলেন ডেনমার্কের গোলকিপার কাসপের স্মাইকেল। তবে ফিরতি বল অনায়াসে জালে জড়িয়ে উদযাপন শুরু করেন ব্রিটিশরা। শেষ পর্যন্ত এই লীড ধরে রেখেই ইউরোর ফাইনালে প্রবেশ করে গ্যারেথ সাউথগেটের ছেলেরা।

চলতি ইউরোতে হ্যারি কেনের এটি চতুর্থ গোল। গোল্ডেন বুট জেতার দৌড়ে তিনি ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলছেন। এছাড়া গত রাতে গোলের পর কেন স্পর্শ করেছেন গ্যারি লিনকারকে।মেজর টুর্নামেন্টে ইংল্যান্ডের হয়ে সর্বোচ্চ গোলদাতা এখন যুগ্মভাবে লিনকার এবং কেন(১০ টি করে)।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in