Jai Bhim: চরিত্র ফুটিয়ে তুলতে ৪০ দিন 'ইরুলা' উপজাতিদের গ্রামে ছিলেন অভিনেতা মনিকন্দন

সিনেমাটি প্রান্তিক মানুষের পাশে দাঁড়ানো এক সাহসী আইনজীবীর লড়াইকে তুলে ধরেছে। পাশাপাশি বর্ণবৈষম্যের নগ্ন চিত্রকে দর্শকদের সামনে উপস্থাপন করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই প্রশংসিত হয়েছে এই সিনেমাটি।
Jai Bhim: চরিত্র ফুটিয়ে তুলতে ৪০ দিন 'ইরুলা' উপজাতিদের গ্রামে ছিলেন অভিনেতা মনিকন্দন
জয় ভীম সিনেমার পোস্টারছবি - অ্যামাজন প্রাইম

ইতিমধ্যেই অনলাইন প্ল্যাটফর্মে মুক্তি পাওয়া সিনেমা “জয় ভীম” সাড়া ফেলে দিয়েছে। সত্য ঘটনা অবলম্বনে তৈরি করা এই সিনেমা সমাজের প্রান্তিক মানুষের কঠিন পরিস্থিতি ও লড়াইকে তুলে ধরেছে। তুলে ধরেছে প্রান্তিক মানুষের পাশে দাঁড়ানো এক সাহসী আইনজীবীর লড়াইকেও। পাশাপাশি স্বাধীন ভারতে বর্ণবৈষম্যের নগ্ন চিত্রকে দর্শকদের সামনে উপস্থাপন করেছে। ইতিমধ্যেই প্রশংসিত হয়েছে এই সিনেমাটি।

‘জয় ভীম’ সিনেমার অভিনেতা মণিকন্দন, ‘রাজাকান্নু’ চরিত্রে অভিনয় করেছেন। তিনি বলেন - কাজ করার সময় তিনি সবচেয়ে বড় যে শিক্ষাটি পেয়েছেন তা হল, সুখী হওয়ার জন্য শুধুমাত্র ইচ্ছা থাকা ছাড়া অন্য কিছুর প্রয়োজন নেই।

মণিকন্দন, যিনি চলচ্চিত্রে একজন ইরুলার উপজাতির ভূমিকায় অভিনয় করেছেন। ৪০ দিনের জন্য তিনি ইরুলারদের সাথে বসবাস করেন। তাঁদের আচার-ব্যবহার এবং জীবনধারা শেখার জন্য ইরুলা উপজাতিদের গ্রামে ছিলেন তিনি।

তাঁর কথায় - “আমরা বুঝতে পেরেছিলাম যে এই লোকেরা কতটা আত্মনির্ভরশীল। তাদের সাথে থাকতে থাকতে আমি বেশ কিছু জিনিস শিখেছি। তাদের জীবনধারা আমার উপর অনেক প্রভাব ফেলেছে। আমি বুঝতে পেরেছিলাম যে তাদের সুখী হওয়ার জন্য তেমন কিছুর প্রয়োজন নেই। কেউ যদি খুশি হতে চায়, সে চাইলেই খুশি হতে পারে। তাদের প্রায় কিছুই ছিল না, কিন্তু তারা অত্যন্ত খুশি ছিল।” এই চরিত্রে অভিনয় করা যে খুব একটা সহজ ছিল না , সে কথাও স্বীকার করছেন তিনি। মেকআপে প্রায় ২ থেকে আড়াই ঘন্টা সময় লাগতো।

প্রসঙ্গত, তামিল এই সিনেমায় মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করেছেন তামিল সুপারস্টার সূর্য। অভিনয় আর জনপ্রিয় অভিনেতা প্রকাশ রাজও। তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী এমকে স্টালিন এই ছবির প্রশংসা করে বিবৃতি জারি করেছেন। আইনজীবী চন্দ্রুর জীবনের অনুপ্রেরণায় তৈরি হয়েছে এই ছবি। যেখানে একজন আদিবাসী মহিলার ন্যায়ের জন্য লড়াই করেন তিনি।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in