সৃজিত মুখার্জির বাবার মৃত্যু নিয়ে ভুয়ো খবর - সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রতিবাদ পরিচালকের

এক সংবাদমাধ্যমে চিত্র পরিচালক সৃজিত মুখার্জির বাবার মৃত্যু হয়েছে বলে জানানো হয়। একই সঙ্গে ওই সংবাদে বলা হয় – ‘করোনার দেহ সৎকারের জন্য মিলছে না সাহায্য, রাজের কাছে সাহায্যের আবেদন সৃজিতের’।
সৃজিত মুখার্জির বাবার মৃত্যু নিয়ে ভুয়ো খবর - সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রতিবাদ পরিচালকের
চিত্র পরিচালক সৃজিত মুখার্জিফাইল ছবি সংগৃহীত

করোনার আবহে সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে ফেক নিউজের ছড়াছড়ি। ভুয়ো ছবি, ভুয়ো খবর মুহূর্তে ছড়িয়ে পড়ছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। অনেক সময়েই না জেনেই তা ব্যবহার করছেন অনেকেই। এই ফেক নিউজের হাত থেকে রেহাই পাচ্ছেন না সেলিব্রিটিরাও। মঙ্গলবার এরকমই একটি খবর ছড়িয়ে পড়ে সোশ্যাল মিডিয়ায়। এক সংবাদমাধ্যমে চিত্র পরিচালক সৃজিত মুখার্জির বাবার মৃত্যু হয়েছে বলে জানানো হয়। একই সঙ্গে ওই সংবাদে বলা হয় – ‘করোনার দেহ সৎকারের জন্য মিলছে না সাহায্য, রাজের কাছে সাহায্যের আবেদন সৃজিতের’।

এই খবর নজরে আসা মাত্র এক ট্যুইট বার্তায় প্রতিবাদ জানান চিত্র পরিচালক সৃজিত। নিজের ট্যুইটার হ্যান্ডেলে তিনি লেখেন – এটা একটা ভুয়ো খবর। আমার বাবা মারা গেছেন ২০১৭ সালে। আমি সোশ্যাল মিডিয়ায় অন্য কোনো ব্যক্তির জন্য সাহায্য চেয়ে আবেদন জানিয়েছিলাম। সেটা নিয়েও খবর হয়ে গেছে। দয়া করে একটু দায়িত্বজ্ঞানসম্পন্ন হন।

সৃজিত মুখার্জির ট্যুইটের স্ক্রীনশট

ওই সংবাদমাধ্যমের পোষ্টে লেখা হয় – “টলিউডে ফের শোকের ছায়া। বাবাকে হারালেন পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায় । বাবার মৃত্যুসংবাদ নিজেই সোশ্যাল নিজেই সোশ্যাল মিডিয়ায় জানিয়েছেন খোদ সৃজিত। পরিচালকের বাবা কোভিড পজিটিভ ছিলেন কিন্তু কোভিডে নয়, হার্ট অ্যাটাকে মৃত্যু হয়েছে পরিচালকের বাবা সমরেশ মুখার্জির। শরীরে ছিল না করোনার উপসর্গ।”

যদিও বিষয়টি ছিলো সম্পূর্ণ অন্য। বারাকপুরের কোনো এক ব্যক্তির বাবার মৃত্যু এবং তাঁর দেহ সৎকার নিয়ে কিছু সমস্যা দেখা দেয়। ওই ব্যক্তির ট্যুইটটি বারাকপুরের তৃণমূল বিধায়ক তথা চিত্র পরিচালক রাজ চক্রবর্তীকে ট্যাগ করে ট্যুইট করেন সৃজিত মুখার্জি। করোনার দ্বিতীয় ঢেউতে দেশ যখন অক্সিজেন, বেড-এর অভাবে ভুগছে সেই সময় পরিচালক সৃজিত মুখার্জি একাধিকবার মানুষের পাশে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। সচেষ্ট হয়েছেন অক্সিজেন, বেড, রক্ত জোগাড় করতে। এদিনও সেভাবেই এক ব্যক্তির জন্য সাহায্যের আবেদন জানিয়ে ট্যুইট করেছিলেন সৃজিত।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in