ট‍্যুইটার 'হিন্দুবিরোধী' 'দেশবিরোধী', নিষিদ্ধ করা উচিত, দাবি কঙ্গনার

ট‍্যুইটার 'হিন্দুবিরোধী' 'দেশবিরোধী', নিষিদ্ধ করা উচিত, দাবি কঙ্গনার
কঙ্গনা রানাওয়াতটিম কঙ্গনা ট্যুইটার হ্যান্ডেলের সৌজন্যে

যে সোশ্যাল মিডিয়া প্ল‍্যাটফর্ম ট‍্যুইটারে তিনি অতি সক্রিয়, সেই ট‍্যুইটারকেই এবার নিশানা করলেন কঙ্গনা রানাওয়াত। ট‍্যুইটারকে হিন্দুবিরোধী, অ‍্যান্টি-ন‍্যাশনাল প্ল‍্যাটফর্ম হিসেবে অভিহিত করলেন তিনি। ভারতে এই মাইক্রো ব্লগিং সাইটটি নিষিদ্ধ করা উচিত বলে মনে করেন তিনি।

মজার জিনিস, নিজের ট‍্যুইটার অ‍্যাকাউন্ট থেকেই এই মন্তব্য করেছেন অভিনেত্রী। এই মন্তব্যের সাথে ভাইয়ের বিয়েতে তোলা নিজের কয়েকটি ছবিও পোস্ট করেছেন তিনি, যার মধ্যে একটি ছবিতে কঙ্গনা রানাওয়াত ও তাঁর বাবাকে দেখা যাচ্ছে।

ট‍্যুইটারে তিনি লেখেন, "আমি এবং আমার বাবার কোনো কিছুতে একমত হওয়ার একটি বিরল ছবি, যদিও আমরা কেউই মনে করতে পারছি না কীসে একমত হয়েছিলাম আমরা। যাই হোক, সরকার ট‍্যুইটার ব‍্যান করতে পারে, এরকম একটি গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। তাই করো ভারত... আমাদের এই হিন্দুবিরোধী, অ‍্যান্টি-ন‍্যাশনাল প্ল‍্যাটফর্মের দরকার নেই, যা আমাদের দমিয়ে রাখে।"

কঙ্গনা রানাওয়াত এমন সময় এই মন্তব্য করেছেন যখন #BanTwitter ট্রেন্ড করছে। ভারতের মানচিত্রে ভুল দেখানোর পর থেকেই এই ট্রেন্ড শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের ভেরিফায়েড ট‍্যুইটার অ‍্যাকাউন্ট থেকে প্রোফাইল পিকচারও সরিয়ে দেয় ট‍্যুইটার কর্তৃপক্ষ। যদিও কিছুক্ষণের মধ্যেই তা ফিরিয়ে দেওয়া হয়। জানা গেছে, কেউ অমিত শাহের ছবির কপিরাইট দাবি করায় এই পদক্ষেপ নিয়েছিল ট‍্যুইটার।

প্রসঙ্গত, ট‍্যুইটার বিশ্বের সর্বাধিক জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া প্ল‍্যাটফর্ম। মত প্রকাশের মাধ্যম হিসেবে ব‍্যবহার করা হয় এই প্ল‍্যাটফর্ম। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ট‍্যুইটারে ফলোয়ারের সংখ‍্যা ৬৩.৫ মিলিয়নের বেশি। কঙ্গনার এই মন্তব্যের বিরোধিতা করেছেন নেট নাগরিকরা।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in