তাঁর পাঠানো প্রার্থী তালিকা বদলে অন্য প্রার্থী দিয়েছে দল, প্রচারে আপত্তি ক্ষুব্ধ অনুব্রতর

অপরদিকে প্রার্থী অসীমা ধীবর বলেন, 'মুখ্যমন্ত্রী নিজে প্রার্থী হিসেবে আমার নাম ঘোষণা করেছে। আর কেষ্ট দা বলেছেন আমার পাশে আছে। প্রার্থী বদলের জন্য কেউ দাবি করেনি।'
তাঁর পাঠানো প্রার্থী তালিকা বদলে অন্য প্রার্থী দিয়েছে দল, প্রচারে আপত্তি ক্ষুব্ধ অনুব্রতর
অনুব্রত মণ্ডলফাইল ছবি

প্রার্থী তালিকা প্রকাশের পর গোষ্ঠী কোন্দল প্রকাশ্যে আসেনি ঠিকই। কিন্তু তা বেশিদিন দলের অন্দরেও থাকল না। প্রার্থী পছন্দ নয়, তাই তাঁর হয়ে প্রচার চালাবেন না। স্পষ্ট ঘোষণা করেছেন বীরভূম জেলা তৃণমূলের সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল।

বীরভূম জেলার দশটি আসনের দায়িত্ব তিনি নিচ্ছেন। কিন্তু দুবরাজপুর আসনের দায়িত্ব নিচ্ছেন না। কারণ সেই আসনের প্রার্থী তাঁর পছন্দ নয়। অনুব্রতর পছন্দ বর্তমান বিদায়ী বিধায়ক নরেশ চন্দ্র বাউড়িকে। কিন্তু দল সেখানে প্রার্থী করেছেন খয়রাশোলের বাসিন্দা গৃহবধূ অসীমা ধীবরকে। তাই প্রার্থী ঘোষণার পর প্রায় এক সপ্তাহ কেটে গেলেও সেখানে তৃণমূল কর্মীদের মধ্যে প্রচার কার্যক্রম, বিধানসভা নির্বাচন নিয়ে কোনওরকম উত্তেজনা নেই। তবে দুবরাজপুরের একটি সভায় বর্তমান বিধায়ক ও আসন্ন নির্বাচনের প্রার্থীকে পাশে বসিয়ে দলীয় প্রার্থীকে জেতানোর আহ্বান জানান অনুব্রত মন্ডল। যদিও সেদিন ওই সভায় কাঁদতে দেখা যায় নরেশকে।

অনুব্রতর তালিকাকেই বরাবর প্রাধান্য দেয় দল। কিন্তু এবার তার কিছুটা ব্যতিক্রম ঘটেছে। তা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে দলকে নিজের আপত্তি জানিয়ে দুবরাজপুরের প্রার্থী বদলের জন্য ফের তিনটি নাম পাঠিয়েছেন অনুব্রত। অসীমা ধীবর যে একেবারেই পছন্দের নয়, তা স্পষ্ট নরেশ চন্দ্র বাউড়ির কথায়, 'কেষ্টদার জন্য আমার বিধায়ক হওয়া। আমি জানি, উনি আমাকে বাদ দিয়ে অন্য কারও নাম পাঠাননি। তবুও দল প্রার্থী বদল করে দিয়েছে।'

দুবরাজপুরের বাসিন্দা জেলার তৃণমূল সহ-সভাপতি মলয় মুখোপাধ্যায় জানান, খয়রাশোল এবং দুবরাজপুর এলাকার বেশ কিছু অঞ্চলে অসীমা ধীবরকে নিয়ে তৃণমূল কর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ রয়েছে। জেলা সভাপতিকে জানানো হয়েছে।

নিজের দেওয়া নামের তালিকায় বদল প্রসঙ্গে অনুব্রতর সাফাই, 'আমি বলেছিলাম প্রার্থী বদল করলে হেডেক আমার নেই। দায়িত্ব আমার নেই। দল যখন দুবরাজপুরে আমার পাঠানো নাম বদল করেছে তখন দলই বুঝবে।' অপরদিকে প্রার্থী অসীমা ধীবর বলেন, 'মুখ্যমন্ত্রী নিজে প্রার্থী হিসেবে আমার নাম ঘোষণা করেছে। আর কেষ্ট দা বলেছেন আমার পাশে আছে। প্রার্থী বদলের জন্য কেউ দাবি করেনি।'

জেলা তৃণমূল সূত্রে জানা গিয়েছে, ইতিমধ্যেই অনুব্রতর কাছ থেকে নতুন করে তিনজন প্রার্থীর নাম চাওয়া হয়েছে। তাঁদের মধ্যে আছেন বিদায়ী তৃণমূল বিধায়ক নরেশ চন্দ্র বাউড়ি, ইলামবাজার ও রাজনগরের দু'জন শিক্ষক।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in