লকডাউনে পাশে ছিল CPIM-ই - সুরাট থেকে ব্রিগেডের পথে পরিযায়ী শ্রমিক, হুইল চেয়ারে হালিশহর থেকে রবি দাস
পরিযায়ী শ্রমিক ও রবি দাসছবি সংগৃহীত

লকডাউনে পাশে ছিল CPIM-ই - সুরাট থেকে ব্রিগেডের পথে পরিযায়ী শ্রমিক, হুইল চেয়ারে হালিশহর থেকে রবি দাস

পরিযায়ী শ্রমিক বলেন, "ব্রিগেড থেকে আমাদের শপথ নিতে হবে কোকেন পাচারকারী-দাঙ্গাবাজা-দালাল বিজেপি, তোলাবাজ-কয়লা পাচারকারী তৃণমূলের হাত থেকে মুক্ত করতে হবে বাংলাকে। নাহলে আমরা গরীবরা বাঁচবো না।"

বিপদের দিনে সিপিআইএম-ই কেবল পাশে থেকেছে। সমস্ত রকম সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। তাই সিপিআইএম-এর প্রতি সমর্থন জানাতে সুদূর গুজরাট থেকে রবিবারের ব্রিগেড যোগ দিতে আসছেন এক পরিযায়ী শ্রমিক। অপরদিকে শাসকদলের অপশাসনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে হুইল চেয়ারে করেই হাজার প্রতিকূলতা কাটিয়ে হালিশহর থেকে ইতিমধ্যেই ব্রিগেডের ময়দানে এসে উপস্থিত হয়েছেন আর এক বাম সমর্থক।

আজই সুরাট বিমানবন্দর থেকে বিমান ধরে কলকাতায় ফিরছেন সেখানে কাজ করা ওই বাঙালি পরিযায়ী শ্রমিক। তার আগে বিমানবন্দর থেকেই এক ভিডিও বার্তায় বিপদের দিনে সিপিআইএম কীভাবে তাঁর ও তাঁর সঙ্গীদের সাহায্য করেছে, তা জানিয়েছেন তিনি। 'দরকারে পাই, সরকারে চাই' - সাম্প্রতিককালে বামেদের দেওয়া এই শ্লোগানই কার্যত শোনা গেছে তাঁর গলাতে। ভিডিও বার্তায় তিনি বলেন, "লকডাউনের সময় আমি সুরাটে ছিলাম। কেউ আমাদের খোঁজ নেয়নি। একমাত্র সিপিআইএম পার্টি খোঁজ নিয়েছে। আমাদের খাবারের ব্যবস্থা করেছে, বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করেছে। আমাদের পরিবারের খোঁজখবর নিয়েছে। আর কেউই করেনি এমনটা। তাই সিপিআইএমের ব্রিগেড সমাবেশে যোগ দিতে আমি কলকাতা যাচ্ছি।"

রাজ‍্যের ও কেন্দ্রের শাসকদলকে আক্রমণ করে তিনি আরও বলেন, "ব্রিগেড থেকে আমাদের শপথ নিতে হবে কোকেন পাচারকারী-দাঙ্গাবাজা-দালাল বিজেপি, তোলাবাজ-কয়লা পাচারকারী তৃণমূলের হাত থেকে মুক্ত করতে হবে বাংলাকে। নাহলে আমরা গরীবরা বাঁচবো না। তাই বলছি আমিও ব্রিগেড যাচ্ছি, আপনারাও আসুন।"

অপরদিকে হালিশহর থেকে হুইল চেয়ারে ব্রিগেড আসা রবি দাস পিপলস্ রিপোর্টারের প্রতিনিধিকে জানিয়েছেন, রাজ‍্যে বর্তমানে যে ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে তার প্রতিবাদ জানাতে এতো প্রতিকূলতা সত্ত্বেও ব্রিগেডে এসেছেন তিনি। গত ২৩ ফেব্রুয়ারি ব্রিগেডের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিলেন তিনি, গতকাল পৌঁছেছেন। পেশায় লটারি ব্রিকেতা রবি দাস জানিয়েছেন তিনি প্রতি বছর বামেদের ব্রিগেড সমাবেশে আসেন।

সমাবেশের শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি দেখতে আজ ব্রিগেড প‍্যারেড ময়দানে আসেন সুজন চক্রবর্তী, বিমান বসুরা। সাংবাদিকদের সামনে বিমান বসু বলেন, আগামীকালের সমাবেশে বামেদের তরফ থেকে সংগঠিতভাবে সাড়ে সাত লক্ষ মানুষের জমায়েত হবে। এছাড়াও কংগ্রেস, আইএসএফ ও অন্যান্য দলগুলোর সমর্থকরাও আসবেন। এককথায় আগামীকালের ব্রিগেড সমাবেশ জনজোয়ারে পরিণত হবে।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in