করোনা আবহে দেশজুড়ে কর্মহীন হয়ে পড়েছেন বহু মানুষ। এমন পরিস্থিতিতে দেশের থমকে যাওয়া অর্থনীতিকে কন্দ্র করে দেশের শ্রম আইনে আমূল বদল আনতে চলেছে কেন্দ্রীয় সরকার। কিন্তু তার আগেই ভারতে শ্রমিক অধিকার নিয়ে বড়সড় প্রশ্ন তুলে দিল সিআরআইআই রিপোর্ট। রিপোর্ট অনুসারে, বিশ্বের ১৫৮ টি দেশের মধ্যে শ্রমিক অধিকার রক্ষার নিরিখে ভারতের স্থান ১৫১ নম্বরে।

অক্সফামের বৈষম্য দূরীকরণ সংকল্প সূচক রিপোর্ট অনুসারে, আগের ১৪১ তম স্থান থেকে আরও দশ ধাপ পিছিয়ে গিয়েছে ভারত। ১৫৮টি দেশের মধ্যে শেষমেশ জায়গা হয়েছে ১৫১ নম্বরে। আর এই পরিসংখ্যানই বুঝিয়ে দিচ্ছে, বিশ্বের নিরিখে শ্রমিক অধিকারে ঠিক কতটা কাজ হয়েছে এ দেশে। শুধু তাই নয়, কেন্দ্রীয় সরকারের কাজকর্মেও অনেকটাই পিছিয়ে রয়েছে ভারত। ১৪১তম স্থানে রয়েছে ভারত। ক্রমেই পরিস্থিতি আরও ঘোরাল হয়ে উঠছে মোদি সরকারের জন্য। এমনকী, কেন্দ্রীয় সরকারকে এ বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যবস্থা নিতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর থেকে সব বিষয়েই সাফল্যের দাবি করেন নরেন্দ্র মোদি। কিন্তু রিপোর্ট বলছে, সরকারি নীতি, শিক্ষা, সামাজিক সুরক্ষা, করব্যবস্থা ও শ্রমিক অধিকার-সবমিলিয়ে ভারত ১২৯তম স্থানে। স্বাস্থ্যখাতে সরকারের খরচের নিরিখে্‌ই ভারত শেষের দিক থেকে ৪ নম্বরে রয়েছে। রিপোর্ট অনুসারে, ৭০ শতাংশ মানুষই চিকিৎসা খরচ নিজেরাই দেন।

গুজরাত, উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ-সহ একের পর এক বিজেপি-শাসিত রাজ্য করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই শ্রম আইন হয় সাসপেন্ড, না-হয় সংশোধনের কাজে হাত দিয়েছে। শ্রম আইনের ৪৪ টি বিধি কমিয়ে ৪ টি করার পরিকল্পনা নিয়েছিল কেন্দ্র। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই যা মালিকপক্ষকে বাড়তি সুবিধা দিতে পারে বলে আশঙ্কা অনেকের। সিআইআরআর-এর রিপোর্ট নতুন করে সেই প্রশ্ন তুলে দিল।

 

 

 

 

 

 

জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন