সোমবার থেকে এখনও পর্যন্ত প্রায় দশ হাজারেরও বেশি পাখির মৃত্যু হয়েছে রাজস্থানের সম্বর হ্রদে। এদের মধ্যে অধিকাংশই পরিযায়ী পাখি। স্বাভাবিকভাবে মনে করা হচ্ছে কোনোরকম বিষাক্ত জিনিস খাওয়ার কারণে পাখিদের মৃত্যু হচ্ছে। মৃত পাখিদের দেহের নমুনা পরীক্ষা করে দেখার জন্য বন দফতরের কাছে পাঠানো হয়েছে।

৭০ জন সদস্য বিশিষ্ট বিপর্যয় মোকাবিলার একটি দলকে হ্রদের পাশাপাশি পড়ে থাকা বাকি পাখির মৃতদেহগুলোকে নষ্ট করে দেওয়ার কাজে লাগানো হয়েছে যাতে এই পাখিদের মৃতদেহ থেকে অন্য কোনো পাখির শরীরে বিষক্রিয়া না ছড়ায়। এছাড়াও পশুপালন বিভাগের এক ডজন টিম পরিস্থিতির ওপর নজর রেখেছে। রাজস্থানের জয়পুরে অবস্থিত দেশের বৃহত্তম নোনাজলের হ্রদ সম্বরে প্রতি বছর শীতকালে হাজার হাজার পরিযায়ী পাখি আসে।

বন দফতরের একাংশ এই মৃত্যুর কারণের জন্য এভিয়ান ফ্লু-কে দায়ী করলেও মধ‍্যপ্রদেশের ভোপালের একটি পরীক্ষাগার এই রিপোর্টকে অস্বীকার করেছে।

সপ্তাহের শুরুতে সোমবার ৭১৬টি পাখির মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছিল। পরের দিন সংখ্যাটা দ্বিগুণ বেড়ে হয় ১,৬২২। বুধবার, বৃহস্পতিবার ও শুক্রবারে যথাক্রমে ১,৯২২, ৫৪০, ৩,২৪৫টি পাখির মৃতদেহ পাওয়া যায়। শুক্রবার থেকে এর কারণ অনুসন্ধানের চেষ্টা করা শুরু সত্ত্বেও মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে।

এই ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন রাজ‍্যের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলত। উদ্ভিদ ও প্রাণীদের রক্ষা করা তাঁর সরকারের অন্যতম অগ্রাধিকার বলে জানিয়েছেন তিনি। শুক্রবার রাজস্থান হাইকোর্ট রাজ‍্য সরকারকে এই মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল। আগামী ২২শে নভেম্বর এই মামলার পরবর্তী শুনানি হবে।

জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন